corona virus btn
corona virus btn
Loading

মদ না পেয়ে কারখানায় ব্যবহৃত স্পিরিট খেয়ে মৃত ২, লকডাউনে বাড়ছে আত্মহত্যার ঘটনাও !

মদ না পেয়ে কারখানায় ব্যবহৃত স্পিরিট খেয়ে মৃত ২, লকডাউনে বাড়ছে আত্মহত্যার ঘটনাও !
Representational Image

অ্যালকোহল না পেয়ে কারখানায় ব্যবহৃত বিষাক্ত স্পিরিটের সঙ্গে কোলড্রিঙ্ক এবং জল মিশিয়ে খেয়ে মৃত্যু হয়েছে ২ জনের ৷

  • Share this:

#জোরহাট: মিষ্টি নয় ৷ মদের দোকান খোলা হোক ৷ লকডাউনে এমন আবেদন এখন দেশজুড়ে অনেক মানুষেরই ৷ বাড়িতে বসে মদ না পেয়ে অনেক মানুষই অস্থির হয়ে উঠেছেন ৷ অনেকে আবার আত্মহত্যাও করছেন ৷ দক্ষিণ ভারতের রাজ্যগুলিতে এমন আত্মহত্যার ঘটনা গত কয়েকদিনে অনেকগুলি ঘটেছে ৷ যাতে চিন্তায় সরকারও ৷

কেরল সরকার ইতিমধ্যেই ডাক্তারের ‘প্রেসক্রিপশন’ দেখিয়ে মদ কেনার ব্যবস্থা চালু করেছে সে রাজ্যে ৷ যদিও তাতে সমস্যা মেটেনি ৷ গত সাত দিনে ৬ জন মদ না পাওয়ায় আত্মহত্যা করেছেন, বলে জানা গিয়েছে ৷ ডি-অ্যাডিকশন বিশেষজ্ঞরাই জানাচ্ছেন, এমনটা চলতে থাকলে আগামী কয়েকদিনে আত্মহত্যার ঘটনা আরও বাড়বে ৷ নেশাগ্রস্থরা আচমকা মদ না পাওয়ার শোক কাটিয়ে উঠতে পারছেন না ৷ বাড়ি বাড়ি শুরু হয়েছে অশান্তি, জিনিসপত্র ভাঙচুর ৷ ‘উইড্রয়াল সিম্পটম’-কে মানিয়ে নিতে অসুবিধায় পড়েছেন অধিকাংশরাই ৷

কর্ণাটক সরকার যেমন বছরে শুধুমাত্র অ্যালকোহল সেল করেই ২০ হাজার কোটি টাকা আয় করে ৷ তাই লকডাউনে মদ বিক্রি বন্ধ হওয়ায় লিকার সেল থেকে রাজস্ব আদায়ও সরকারের অনেকটাই কমবে বলে মনে করা হচ্ছে ৷ শুধুমাত্র কেরল বা কর্ণাটকই নয়, মদ না পাওয়ার শোকে অসমের জোরহাটে আত্মহত্যা করেছেন দুই ব্যক্তি বলে জানা গিয়েছে ৷ যারা অ্যালকোহল না পেয়ে কারখানায় ব্যবহৃত বিষাক্ত স্পিরিটের সঙ্গে কোলড্রিঙ্ক এবং জল মিশিয়ে খেয়ে মারা গিয়েছেন ৷ আরও তিন জন এখন জোরহাট মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসাধীন ৷ তাদের দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে ৷

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: April 1, 2020, 10:42 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर