• হোম
  • »
  • খবর
  • »
  • দেশ
  • »
  • TWITTER HAS BLOCKED SEVERAL COVID TWEETS MADE BY SOME POPULAR HANDLES AFTER THE CENTRAL GOVERNMENT SENT A NOTICE TO THE COMPANY SAYING THAT THESE TWEETS WERE NOT IN COMPLIANCE WITH INDIAS IT LAW SB

Modi Govt Order to Twitter: ভুয়ো খবর নাকি সমালোচনায় অস্বস্তি? কেন্দ্রের নির্দেশে 'গায়েব' বিরোধীদের ট্যুইট

Modi Govt Order to Twitter: ভুয়ো খবর নাকি সমালোচনায় অস্বস্তি? কেন্দ্রের নির্দেশে 'গায়েব' বিরোধীদের ট্যুইট

নিশানায় মোদি সরকার

সোশ্যাল মিডিয়ায় নরেন্দ্র মোদিকে সম্প্রতি ট্রেন্ডিংও হয়ে উঠেছিল, #Tumsenahopayega। এই পরিস্থিতিতে সরকারের ব্যর্থতা ঢাকতে নতুন কৌশল নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: এ যেন কৃষক আন্দোলনের (Farmers Protest) অ্যাকশন রিপ্লে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ (Corona Second Wave) থাবা বসিয়েছে দেশে। আর এই পরিস্থিতিতে নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi) সরকারের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলেছে বিরোধীরা। একদিকে অক্সিজেন সংকট, অন্যদিকে ভ্যাকসিন-ওষুধ নিয়েও কেন্দ্রের 'দ্বিচারিতা' নিয়ে সরব তারকা থেকে আমজনতার একটা বড় অংশই। সোশ্যাল মিডিয়ায় নরেন্দ্র মোদিকে সম্প্রতি ট্রেন্ডিংও হয়ে উঠেছিল, #Tumsenahopayega। এই পরিস্থিতিতে সরকারের ব্যর্থতা ঢাকতে নতুন কৌশল নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

    কী কৌশল? কেন্দ্রের বিরুদ্ধে একের পর এক ট্যুইট সামনে আসতেই কেন্দ্রের তরফে যোগাযোগ করা হয় ট্যুইটার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে। রীতিমতো নোটিশ পাঠিয়ে তাঁদের বলা হয়, এই ধরনের ট্যুইট ভারতের তথ্য প্রযুক্তি আইনের পরিপন্থী। এরপরই কেন্দ্রের নিশানায় থাকা ৫২টি ট্যুইট মুছে দেয় ট্যুইটার কর্তৃপক্ষ।

    যদিও সরকারের তরফে যুক্তি দেওয়া হয়েছে, দেশে এখন গভীর করোনা সঙ্কট। এই পরিস্থিতিতেও পুরনো ছবি দিয়ে ভুয়ো খবর ছড়ানো হচ্ছে। তাতে সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি হচ্ছে। সেই কারণেই ট্যুইটগুলি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কারণ এর ফলে মানুষকে বিভ্রান্ত করা হচ্ছিল। এদিন 'মন কি বাত' থেকেও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশের মানুষের উদ্দেশে বলেন, 'করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আমাদের ধৈর্য ও সহনশীলতার পরীক্ষা নিচ্ছে। এই পরিস্থিতিও আমরা জয় করে উঠতে পারব। কিন্তু এই সময় কেউ কোনও গুজবে কান দেবেন না।'

    জানা গিয়েছে, পশ্চিমবঙ্গের শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটক, সাংসদ রেবানাথ রেড্ডি, অভিনেতা বিনীতকুমার সিং, চিত্র পরিচালক বিনোদ কাপ, অবিনাশ দাসের মতো মানুষদের ট্যুইট মুছে দেওয়া হয়েছে। মূলত করোনা কালে দেশের হাসপাতালগুলিতে বেডের সঙ্কট, অক্সিজেনের তুমুল ঘাটতিতে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ, করোনা-কালেও কুম্ভমেলায় জনসমাগমের জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনা করে ট্যুইটগুলি করা হয়েছিল। সেগুলিই মুছে দেওয়া হয়েছে।

    যদিও ঠিক কোন কোন ট্যুইটগুলি মুছে দেওয়া হয়েছে কিংবা কী কারণে তাঁদের ট্যুইটগুলি মুছে দেওয়া হল, তার বিস্তারিত ব্যাখ্যা করেনি ট্যুইটার কর্তৃপক্ষ। বরং যাঁদের ট্যুইট ব্লক হয়েছে, সেই সব ইউজারকে নোটিশ পাঠানো হয়েছে বলে খবর। চিঠিতে বলা হয়েছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ধরনের মন্তব্য ভারতীয় আইনবিরোধী।

    Published by:Suman Biswas
    First published:
    0

    লেটেস্ট খবর