• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • TRIPURA RAJ PARIWAR MEMBER PRADYOT KISHORE MANIKYA WILL EFFECT ON TRIPURA ASSEMBLY ELECTION SB

Pradyot Kishore Manikya Tripura: ত্রিপুরায় BJP-র বিকল্প কি? সকলের নজরে মহারাজা প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য! 

প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য

Pradyot Kishore Manikya Tripura: স্বশাসিত জেলার ভোটে ত্রিপুরায় বিজেপিক ও তাদের জোট অংশীদার IPFT ব্যাপক ভাবে পরাস্ত হয়েছে। সেখানে প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য উজ্জ্বল হয়ে উঠেছেন।

  • Share this:

#ত্রিপুরা: তৃণমূল বলছে আগে দেখেছেন বাম। পরে দেখছেন রাম, এবার আপনারা দেখবেন কাম। ত্রিপুরায় অবশ্য বিকল্পের সন্ধান নিয়ে জোর চর্চা। আর সেখানেই ক্রমশ গুরুত্ব বাড়ছে ত্রিপুরার রাজ পরিবারের। সবার নজর বিকল্প হিসাবে কার হাত ধরেন মহারাজা প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য। ত্রিপুরায় বিকল্প সন্ধান বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির। সেখানে সাম্প্রতিক সময়ে স্বশাসিত জেলা পরিষদের ভোটে বিপুল সাফল্য এনে দিয়েছে প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য। কারণ প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্যের গ্রেটার তিপ্র‍্যাল্যান্ড ইস্যু। স্বশাসিত জেলার ভোটে বিজেপিকে ও তাদের জোট অংশীদার IPFT ভোটে ব্যাপক ভাবে পরাস্ত হয়েছে। সেখানে প্রদ্যোত মাণিক্য উজ্জ্বল হয়ে উঠেছেন।

ত্রিপুরা রাজ্যের আনাচে কানাচে এখন গ্রেটার তিপ্র‍্যাল্যান্ডের দাবি। বিজেপির অংশীদার ২০১৮ সালের ভোটে IPFT ক্ষমতায় আসে তিপ্র‍্যাল্যান্ড ইস্যু নিয়ে। কিন্তু সরকারে থাকার ৩ বছর হয়ে গেলেও চুপ বিজেপি-IPFT সরকার। প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য সেটাকেই উসকে দিয়ে গ্রেটার তিপ্র‍্যাল্যান্ডের দাবি উসকে দিয়েছে। হিসাব বলছে ত্রিপুরায় ৩১% জনজাতি ভোট। ৬৯% ভোট বাঙালি ভোট। এই জনজাতি ভোট ত্রিপুরার ২০ বিধানসভা আসনে সংরক্ষিত। যার ওপর সরকার গঠন নির্ভর করে৷ একটা সময় জনজাতিদের ভোট ছিল বামেদের দিকে। পরবর্তী সময়ে বামেদের সেই ভোট চলে যায় IPFT এর দিকে। কিন্তু সরকারে আসার পরে তিপ্র‍্যাল্যান্ডের দাবি নিয়ে চুপ বিজেপি৷ তাই দোটানায় IPFT..স্বশাসিত জেলা পরিষদের ভোটের আগে এই নিয়ে সরব হয়েছিল তারা। কিন্তু অজানা কারণে ফের সে চুপ। আর এই জনজাতি ভোটকে হাতিয়ার করেই এগোচ্ছে প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য। কংগ্রেস বলছে প্রদ্যোত আমাদের বন্ধু। ডিসেম্বরেই আপনারা সব দেখতে পাবেন। তৃণমূল বলছে ত্রিপুরার মানুষের দাবি নিয়ে আমরা কথা বলতে চাই।বিজেপি বলছে অখন্ড ভারত। কিছু শক্তি সক্রিয় রয়েছে অশান্তি করতে। তাদের থেকে সচেতন থাকতে হবে। সব মিলিয়ে ত্রিপুরায় ফের নজরে প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য। আর তার হাত কে ধরবেন তাই নিয়েই জোর চর্চা।

বিজেপি নেতা নব্যেন্দু ভট্টাচার্য বলছেন, আমরা মনে করি জনজাতি ভাইবোনেরা আমাদের থেকে আলাদা নয়।আমরা অখন্ড ভারত গড়ার পক্ষে। সেখানে গ্রেটার তিপ্রাল্যান্ডের বিষয় একটা লঘু ব্যাপার। মানেই রাখে না কোনও। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের একাধিক দাবি-দর্শন আছে। কিছু রাজনৈতিক দল তাদের মতাদর্শের কথা বলতে পারে। আমরা ভারতীয়তায় বিশ্বাস করি। সমগ্র দেশে অখন্ড ভারতে একই সংস্কৃতি এটা মনে করি। কারও নিজস্ব দাবি রাখতে পারে। আমাদের নিজস্ব মতাদর্শ আছে। এই সব ছোটখাটো বিষয় সেভাবে দেখছি না। জনজাতিদের আলাদা মনে করি না। সংস্কৃতি নষ্ট করতে কিছু শক্তি সক্রিয় আছে। তাদের থেকে সাবধান থাকতে হবে। ডেরেক ও'ব্রায়ান, তৃনমূল কংগ্রেস সাংসদ বলছেন, আমরা তো বাংলা থেকে এসে সরকার চালাব না। এখানের মানুষ সরকার চালাবে৷ অবশ্যই আমরা তাই এখানের মানুষ নিয়ে কথা বলব। আমাদের কোর কমিটি কথা বলবে। অন্যদিকে, পীযুষ বিশ্বাস, ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি বলছেন, ডিসেম্বর মাসেই সব পরিষ্কার হয়ে যাবে।আর যাকে নিয়ে এত চর্চা সেই  মহারাজা প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য তিপ্রামোথা সুপ্রিমো বলছেন, আমার সাথে সবার সম্পর্ক ভালো। কিন্ত তিপ্র‍্যাল্যান্ড নিয়ে আমি কমপ্রোমাইজ করতে পারব না। অনেকে বঞ্চনা করা হয়েছে জনজাতিদের। আর সহ্য করা হবে না।

Published by:Suman Biswas
First published: