Citizenship Amendment Bill: পরপর বন্‍ধ, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতায় স্তব্ধ ত্রিপুরা

Citizenship Amendment Bill: পরপর বন্‍ধ, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতায় স্তব্ধ ত্রিপুরা
নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতা ত্রিপুরায়

শুধু ত্রিপুরাই নয়, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতা শুরু হয়েছে গোটা উত্তর-পূর্ব ভারতেই৷

  • Share this:

#আগরতলা: নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতায় একের পর এক বন্‌ধের জেরে কার্যত পঙ্গু হয়ে গিয়েছে ত্রিপুরা৷ বিলের বিরোধিতায় রাস্তায় নেমেছে একাধিক রাজনৈতিক দল৷ সবচেয়ে বেশি বিরোধিতা করছে বিজেপি-র শরিকদল ইন্ডিজিনিয়াস পিপলস ফ্রন্ট অফ ত্রিপুরা (IPFT)৷ আইপিএফটি-র সদস্য-সমর্থকরা ১২ ঘণ্টা বন্‍‌ধের ডাক দিয়েছে৷ এ দিনই লোকসভায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পেশ করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ৷

শুধু ত্রিপুরাই নয়, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতা শুরু হয়েছে গোটা উত্তর-পূর্ব ভারতেই৷ ত্রিপুরায় বিজেপি সংখ্যাগরিষ্ঠ হলেও, IPFT-র সঙ্গে জোট সরকার৷ আজ আইপিএফটি সমর্থকরা খামটিং বাড়ি এলাকায় জমায়েত হয়ে বিক্ষোভ দেখা থাকেন৷ গোটা ত্রিপুরা জুড়ে নিরাপত্তারক্ষী নামানো হয়েছে৷ বন্‍ধের জেরে কার্যত অচল হয়ে গিয়েছে ত্রিপুরা৷ ত্রিপুরার উপজাতি রাজনৈতিক দলগুলি একযোগে বিলের বিরোধিতা করছে৷ আজ অর্থাত্‍ সোমবার থেকে অনির্দিষ্ট্কালের বন্‍ধ ডেকেছে তারা৷ দ্য নর্থ ইস্ট স্টুডেন্টস অর্গানাইজেশন (এনইএসও)-ও মঙ্গলবার ভোর ৫টা থেকে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের বিরোধিতায় গোটা উত্তর-পূর্ব ভারতে ১১ ঘণ্টার বন্‍ধ ডেকেছে৷ ত্রিপুরায় রেললাইনে চলছে বিক্ষোভ৷ রাস্তা বন্ধ৷ সব মিলিয়ে স্তব্ধ ত্রিপুরা৷

আজ লোকসভায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পেশ করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ৷ কংগ্রেস, তৃণমূল কংগ্রেস তীব্র বিরোধিতা করছে বিলের৷ তবে যেহেতু সংখ্যার নিরিখে লোকসভায় বিজেপি ৩০৩, তাই বিলটি পাশ হয়ে যাবে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷ বিরোধীদের বক্তব্য, ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেওয়ার ব্যবস্থা করে দেশে বিভাজন তৈরি করতে চাইছে বিজেপি৷

নাগরিকত্ব আইন ১৯৫৫-এর সংশোধনী বিলে বলা হয়েছে, সেই সব হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পারসি ও খ্রিস্টানদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে, যাঁরা ধর্মীয় নিপীড়নের জেরে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে পালিয়ে ভারতে এসে আশ্রয় নেন৷ ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইনে ভারতের নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য ১২ মাস টানা ভারতে থাকতে হত৷ একই সঙ্গে গত ১৪ বছরের মধ্যে ১১ বছর ভারতবাস জরুরি ছিল। সংশোধনী বিলে দ্বিতীয় নিয়মে পরিবর্তন ঘটানো হচ্ছে। ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্থান থেকে আনা নির্দিষ্ট ৬টি ধর্মাবলম্বীদের জন্য ১১ বছর সময়কালটিকে নামিয়ে আনা হচ্ছে ৬ বছরে। বেআইনি অভিবাসীরা ভারতের নাগরিক হতে পারে না। এই আইনের আওতায়, যদি পাসপোর্ট বা ভিসা ছাড়া কেউ দেশে প্রবেশ করে থাকেন, বৈধ নথি নিয়ে প্রবেশ করার পর নির্দিষ্ট সময়কালের বেশি এ দেশে বাস করে থাকেন, তা হলে তিনি বিদেশি অবৈধ অভিবাসী বলে গণ্য হবেন।

First published: 03:50:30 PM Dec 09, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर