• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • TRANSPORTER HANGS DRIVER UPSIDE DOWN INSERTS ROD IN PRIVATE PARTS AH

ট্রাকচালককে উল্টো করে ঝুলিয়ে বেধড়ক মার,পায়ুছিদ্রে লোহার রড়, ভিডিও ভাইরাল হতেই ধুন্ধুমার!

চলল নৃশংস অত্যাচার

  • Share this:

    #নাগপুর: নাগপুরে ট্রাক ড্রাইভারকে নগ্ন করে উল্টো করে নৃশংসভাবে মারধর করার ঘটনা নিয়ে চর্চা তুঙ্গে ৷ তবে এখানেই শেষ নয় ৷ অত্যাচারের সময় পায়ুছিদ্রে ঢুকিয়ে দেওয়া হয় রড ৷ এই ঘটনার ভিডিও ভাইরাল হতেই এক শিব সেনা নেতা-সহ দু’জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এই ঘটনার নিন্দায় সরব নেটিজেনরা ৷ গর্জে উঠেছেন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কর্মীরাও ৷ কিন্তু ঠিক কী ঘটেছি? যা নিয়ে তোলপাড় দেশ ৷

    পুলিশ জানিয়েছে, অখিল পোহানকর নামে নাগপুরের এক পরিবহণ সংস্থার মালিক গত ২৬ জুলাই কেরলে পণ্য সামগ্রী নিয়ে যাওয়ার জন্য ট্রাকচালককে তিরিশ হাজার টাকা দিয়েছিলেন ৷ আর সেই টাকা দিয়ে মদ, খাবার ও জামাকাপড়ের পিছনে খরচ করেছিলেন বলে অভিযোগ উঠেছে ৷ বিষয়টি জানতে পেরে অখিল ভিকিকে অনেকবার ফোন করেন। কিন্তু, ভিকি ফোন তোলেননি বলে অভিযোগ। এর জেরে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন অখিল।

    পরদিন ওই ট্রাকচালক তাঁর অফিসে আসতেই চড়াও হন ওই পরিবহণ সংস্থার মালিক। সে সময় তাঁর এক বন্ধু, অন্য একটি ট্রান্সপোর্ট কোম্পানির মালিক অমিত ঠাকরেও উপস্থিত ছিলেন। ছিলেন ওই সংস্থার অন্য এক ট্রাকচালক প্রকাশ চৌরেও। তাঁরা তিনজনে মিলে ভিকিকে মারধর করে তাঁর শরীর থেকে অন্তর্বাস ছাড়া সমস্ত জামাকাপড় খুলে নেন। তারপর তাঁর হাত-পা বেঁধে ছাদের সিলিং থেকে ঝুলন্ত একটি রডের সঙ্গে উলটো করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। ওই ঘটনার সময় তোলা ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, ভিকিকে অর্ধ উলঙ্গ অবস্থায় ছাদ থেকে ঝুলিয়ে প্রথমে লোহার রড ও লাঠি দিয়ে মারধর করা হচ্ছে। পরে কোমরের বেল্ট খুলেও ভিকিকে মারধর করেন অখিল। অসহ্য যন্ত্রণায় ছটফট করতে করতে ভিকিকে ক্ষমা চাইতে দেখা যায়। কিন্তু, কোনও কথা শোনেননি অখিল ও তাঁর সঙ্গীরা। এমনকী তাঁর গোপনাঙ্গে লোহার রডও ঢুকিয়ে দেওয়া হয় ৷

    তবে এই ঘটনার দুটি ভিডিও ক্লিপিংস ভাইরাল হতেই নড়েচড়ে বসে স্থানীয় ওয়াদি থানার পুলিশ। অখিল, অমিত ও প্রকাশ-সহ ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা কয়েকজনের নামে খুনের চেষ্টা-সহ বিভিন্ন ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে অখিল ও অমিতকে। যদিও তাঁদের গ্রেপ্তার করার পর থানায় গিয়ে বিক্ষোভ দেখান তাঁদের অনুগামীরা। প্রভাবশালী এক নেতা বিষয়টিকে ধামাচাপা দেওয়া চেষ্টা করেন বলেও অভিযোগ।

    First published: