Home /News /national /
যৌনতার জন্য ইনজেকশন, প্রতিবাদ করলে চরম অত্যাচার! পতিতাপল্লী থেকে উদ্ধার ১১জন নাবালিকা

যৌনতার জন্য ইনজেকশন, প্রতিবাদ করলে চরম অত্যাচার! পতিতাপল্লী থেকে উদ্ধার ১১জন নাবালিকা

News 18 Bangla Creative

News 18 Bangla Creative

১১জন নাবালিকাকে পাচারকারীদের হাত থেকে উদ্ধার করল পুলিশ ৷ এদের মধ্যে রয়েছে পাঁচ বছরের শিশুকন্যাও ৷ একটি মন্দির চত্বর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে তাদের ৷

  • Share this:

    #হায়দরাবাদ: ১১জন নাবালিকাকে পাচারকারীদের হাত থেকে উদ্ধার করল পুলিশ ৷ এদের মধ্যে রয়েছে পাঁচ বছরের শিশুকন্যাও ৷ একটি মন্দির চত্বর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে তাদের ৷ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে উঠেছে এক মারাত্মক অভিযোগ ৷ দেহব্যবসায় নামানোর জন্য তাদের শরীরে এক বিশেষ সেক্স হরমোন ইনজেক্ট করা হত ৷ যাতে অল্প বয়সেই সেক্সের জন্য উপযুক্ত করে তাদেরকে বিক্রি করে দেওয়া যায় ৷ ২ লক্ষ টাকায় তাদের বিক্রি করে দেওয়ার পরিকল্পনা করছিল পাচারকারীরা ৷ তদন্তের পর এমনই মারাত্মক অভিযোগ উঠে এসেছে ৷ এই ঘটনায় অভিযুক্ত দুই এজেন্ট কৃষ্ণা শঙ্কর এবং কামসানি ইয়াদাগ্রিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ৷ যাদের মারফতই চলত এই শিশু বিক্রি ৷

    তেলেঙ্গানার ইয়াদ্রি ভোঙ্গির এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে ৷ এই ঘটনায় অভিযুক্ত পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ৷ রচাকোন্ডা থানার পুলিশ ঘটনাটির তদন্ত শুরু করেছে ৷ এখনও অবধি এই ঘটনায় দু’জন এজেন্ট ছাড়াও অভিযুক্ত আটজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ৷ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে গনেসাঙ্গার এলাকার একটি পতিতাপল্লীতে অভিযান চালায় তারা ৷ সেখান থেকেই আটজন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে পুলিশ ৷

    পুলিশ সূত্রে খবর, রবিবার গভীর রাতে গনেসাঙ্গার এলাকার একটি পতিতাপল্লী থেকে বেশ কয়েকটি শিশুকন্যার কান্নার আওয়াজ শুনতে পান স্থানীয় বাসিন্দারা ৷ এরপরই স্থানীয় বাসিন্দার সূত্র মারফত গনেসাঙ্গার এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ, স্পেশাল অপারেশন টিম এবং চাইল্ড ডেভলপমেন্ট স্কিমের আধিকারিকরা ৷ সেখান থেকেই দু’জন নাবালিকাকে উদ্ধার করে পুলিশ ৷ মোট পাঁচটি বাড়িতে তল্লাশি চালায় ওই বিশেষ তদন্তকারী টিমটি ৷ সব মিলিয়ে মোট ১১জনকে উদ্ধার করে পুলিশ ৷ এদের মধ্যে রয়েছে ৫ বছরের একটি শিশুকন্যা এবং সাত বছরের চারজন শিশুকন্যা ৷ ১১জন শিশুকন্যারই শারিরীক অবস্থা খুবই সংকটজনক ৷ এদের প্রত্যেকের শরীরেই দেওয়া হত বিশেষ হরমোনাল ইনজেকশন ৷ এই ঘটনায় অভিযুক্ত এক চিকিৎসকেও গ্রেফতার করেছে পুলিশ ৷ অভিযুক্ত ড. স্বামী জানিয়েছে, হরমোনাল ইনজেকশনের প্রতিটির দাম ছিল ২৫ হাজার টাকা ৷

    শুধু ইনজেকশন দেওয়াই নয় ৷ ১১জন শিশুকন্যার উপরই চলত নির্মম অত্যাচার ৷ এমনকী, দু’বেলা ঠিকঠাক খাবারও দেওয়া হত না তাদের ৷ অভিযুক্তদের চিহ্নিত করেছে পুলিশ ৷ এদের মধ্যে রয়েছে কামসানি কল্যানি, অনিথা, সুশীলা, নরসিংহ, শ্রুতি, সারিথা, বানী, বামসী ৷ এরা প্রত্যেকেই ইয়াদ্রি ভোঙ্গির এলাকার বাসিন্দা ৷

    First published:

    Tags: Brothels, Telangana

    পরবর্তী খবর