সাইকেলে চেপেই কেরল থেকে কাশ্মীর, কৃষক আন্দোলনে অভিনব সমর্থন ছাত্রের!

প্রসঙ্গত, কৃষি আইনের বিরুদ্ধে পঞ্জাব-হরিয়ানার অগণিত কৃষক পথে নেমেছেন । দীর্ঘ দিন ধরে জারি রয়েছে তাঁদের আন্দোলন।

প্রসঙ্গত, কৃষি আইনের বিরুদ্ধে পঞ্জাব-হরিয়ানার অগণিত কৃষক পথে নেমেছেন । দীর্ঘ দিন ধরে জারি রয়েছে তাঁদের আন্দোলন।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: এখনও দাবি পূরণের লক্ষ্যে দিল্লির সীমান্তে প্রতিবাদ জারি কৃষকদের। পঞ্জাব, হরিয়ানার হাজার হাজার চাষি ঘর ছেড়ে রাজধানীর সীমান্তের পথেই দিন কাটাচ্ছেন। দীর্ঘ দু'মাস ধরা চলা এই কৃষি আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়েছেন সমাজের নানা স্তরের মানুষ। এবার এই আন্দোলনে সামিল হচ্ছেন কেরলের জিবিন জর্জ (Jibin George)। সাইকেলে চেপেই কেরল থেকে দিল্লির আন্দোলনে যোগ দেবেন তিনি। যাত্রা শেষ হবে জম্মু-কাশ্মীরে।

কেরলের শঙ্কুমুখমের ২২ বছর বয়সী এই যুবকের অভিনব উদ্যোগ নজর কেড়েছে দেশবাসীর। এক্ষেত্রে তিরুবনন্তপুরম থেকে যাত্রা শুরু করেছেন জিবিন। সাইকেলে চেপেই দিল্লির সীমান্তে কৃষকদের প্রতিবাদে যোগ দেবেন তিনি। এখানেই শেষ নয়। যাত্রাপথেও কৃষকদের সমস্যা নিয়ে সাধারণ মানুষকে সচেতন করে চলেছেন আতিঙ্গলের রাজধানী ইনস্টিটিউট অফ হোটেল ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড ক্যাটারিং টেকনোলজির এই ছাত্র।

সম্প্রতি The New Indian Express-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জিবিন জানিয়েছেন, বিষয়টি নিয়ে দক্ষিণ ভারতের মানুষ কোথাও যেন সেই মাত্রায় সচেতন নন। অনেকের কাছে কোনও ধারণাই নেই। তাই এই সাইকেল অভিযান। এর মাধ্যমে কৃষকদের ইস্যু নিয়ে মানুষজনকে যতটা সম্ভব সচেতন করার চেষ্টা করছেন তিনি। তাঁর কথায়, কৃষকরা আমাদের দেশের মেরুদণ্ড। তাই তাঁদের জন্য আমাদের সহানুভূতি নয়, শ্রদ্ধা আর সমর্থনের দরকার। এই যাত্রাপথে কৃষিবিল নিয়ে মানুষজনের সঙ্গে কথা বলব। তাঁদের মতামত জানার চেষ্টা করব। যাঁরা এখনও বিষয়টি জানেন না, তাঁদের এই বিষয়ে সচেতন করব।

এক্ষেত্রে গোয়া পৌঁছানো পর্যন্ত উপকূলবর্তী রাস্তা ধরে এগোনোর পরিকল্পনা করেছেন জিবিন। মহারাষ্ট্র থেকে মেইন রোড ধরবেন। তার পর সোজা কৃষকদের প্রতিবাদে যোগ দেবেন। তাঁর যাত্রা শেষ হবে জম্মু-কাশ্মীরে। জিবিনের কথায়, এখনও পর্যন্ত তাঁকে নানা রাজ্যের মানুষ স্বাগত জানিয়েছেন। আগামীতেও একই আশা করছেন।

প্রসঙ্গত, কৃষি আইনের বিরুদ্ধে পঞ্জাব-হরিয়ানার অগণিত কৃষক পথে নেমেছেন । দীর্ঘ দিন ধরে জারি রয়েছে তাঁদের আন্দোলন। এ নিয়ে ক্ষমতার আসীন সরকার ও বিরোধীদের মধ্যেও রাজনৈতিক লড়াই স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। সিংঘু সীমান্তে বিক্ষোভরত কৃষকরা জানিয়েছেন, এ নিয়ে নবম বার সরকারের সঙ্গে বৈঠক করতে চলেছেন তাঁরা। আর এটি সম্ভবত শেষ বৈঠক। তবে এখনও কোনও আশার আলো দেখা যায়নি। ইতিমধ্যেই বিষয়টির সমাধানে এগিয়ে এসেছে সুপ্রিম কোর্ট। একটি প্যানেলও তৈরি হয়েছে। ১৯ জানুয়ারি বৈঠকে বসতে চলেছে এই প্যানেল।

Published by:Pooja Basu
First published: