রাজস্থানে খুন হওয়া শ্রমিক আফরাজুলের বাড়িতে যাচ্ছেন তৃণমূলের মন্ত্রী-সাংসদরা

Afrazul

রাজস্থানে নৃশংসভাবে খুন হওয়া মালদহের শ্রমিক আফরাজুলের বাড়িতে যাচ্ছেন রাজ্যের দুই মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম এবং শুভেন্দু অধিকারী ৷

  • Share this:

    #মালদহ: রাজস্থানে নৃশংসভাবে খুন হওয়া মালদহের শ্রমিক আফরাজুলের বাড়িতে যাচ্ছেন রাজ্যের দুই মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম এবং শুভেন্দু অধিকারী ৷ যাচ্ছেন সাংসদ সৌগত রায়, সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং কাকলি ঘোষদস্তিদারও ৷ আফরাজুলের বাড়ি যাবে কংগ্রেসের প্রতিনিধি দল ৷ অধীর চৌধুরীর নেতৃত্বে যাবেন কংগ্রেস নেতারা ৷ কথা বলবেন পরিবারের সঙ্গে ৷

    শনিবার নিহত আফরাজুলের উদ্দেশ্যে স্মরণসভাও আয়োজন করা হয়েছে ৷ সৈয়দপুরে  নিহত শ্রমিকের বাড়ির সামনে বাঁধা হয়েছে মঞ্চ ৷ তৃণমূলের উদ্যোগে স্মরণসভার আয়োজন করা হয়েছে ৷ সেখানে যোগ দেন দুই মন্ত্রী ও তিনজন সাংসদ ৷

    রাজস্থানে নৃশংসভাবে খুন হওয়া মালদহের শ্রমিকের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মহম্মদ আফরাজুলের পরিবারের একজনকে চাকরি ও তিন লক্ষ টাকা আর্থিক সাহায্য দেবে রাজ্য সরকার। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে নিহতের বাড়িতে আজ যাচ্ছেন তৃণমূলের তিন সাংসদ ও দুই মন্ত্রী। আজ আফরাজুলের বাড়িতে যান মালদহের জেলাশাসক ও পুলিশ সুপার। জেলাশাসকের ফোনে নিহতের স্ত্রী-র সঙ্গে কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী। গতকালই সৈয়দপুরের বাড়িতে ফিরল আফরাজুলের দেহ।

    রাজস্থানে কাজে গিয়ে খুন মালদহের শ্রমিক। নৃশংস সেই খুনের ভিডিও দেখে শিউরে ওঠে গোটা দেশ। বৃহস্পতিবারই টুইট করে ওই নারকীয় হত্যাকাণ্ডের নিন্দা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার নিহত আফরাজুলের পরিবারকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন তিনি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে এদিন আফরাজুলের বাড়িতে যান মালদহের জেলাশাসক ও পুলিশসুপার। পরিবারকে সব রকমের সহযোগিতার আশ্বাস দেন তাঁরা। জেলাশাসক কৌশিক ভট্টাচার্যের ফোনে আফরাজুলের স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী।

    আফরাজুলের স্ত্রী গুলবর বিবি মুখ্যমন্ত্রীকে জানান, ‘‘ দিদি খুনিদের যেন কঠোর শাস্তি হয় আপনি সেই ব্যবস্থা করুন ৷ আমার মেয়ে পড়াশোনা করে। আমার দুনিয়াতে কেউ নেই। আমি কীভাবে চলব ? কীভাবে থাকব ? মেয়েদের চাকরির ব্যবস্থা করে দিলে ভাল হয়... ৷ ’’ জবাবে মুখ্যমন্ত্রী তাঁকে বলেন, ‘‘তোমাকে কোনও চিন্তা করতে হবে না। যা যা করার আছে, তা আমরা করে দেবো ৷ চাকরির ব্যবস্থা করা হবে। আমি চেকও পাঠিয়ে দিচ্ছি ৷ ’’ মুখ্যমন্ত্রীর আশ্বাসে খুশি আফরাজুলের পরিবার। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে শুক্রবার আফরাজুলের বাড়িতে যান তৃণমূল নেতা কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরী। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের হয়ে নিহতের স্ত্রী-র হাতে এক লক্ষ টাকা তুলে দেন তিনি। এদিনই শোকস্তব্ধ সৈয়দপুরের বাড়িতে আসে আফরাজুলের দেহ। রাতেই শেষকৃত্য হয় তাঁর।

    First published: