• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • TMC KHELA HOBE DIVAS IN GUJRAT PROGRAM EXECUTION AT A FIX AS PLAY GROUND AUTHORITY DENIED APPROVAL LADT MOMENT AKD

TMC Khela Hobe Dibas| Gujrat| প্রথমে 'হ্যাঁ' বলেও ২৪ ঘণ্টায় 'না'! গুজরাটে খেলা হবে দিবস পালনের পথে অজস্র চোরকাঁটা

গুজরাটে খেলা হবে দিবস পালন নিয়ে তৃণমূলে আশঙ্কা।

TMC Khela Hobe Dibas| Gujrat| গুজরাটে অতান্তরে তৃণমূল ব্রিগেড। এর মধ্যে কদর্য রাজনীতি দেখছে ঘাসফুল শিবির।

  • Share this:

#গোধরা: মোদির রাজ্যেও ফুটবল ম্যাচ হবে, হই হই করে পালিত হবে খেলা হবে দিবস। একরকম মন প্রস্তুত করেই ফেলেছে তৃণমূল। কিন্তু শেষমুহূর্তে যে স্কুলে ম্যাচ হওয়ার কথা, সেই স্কুল কর্তৃপক্ষ মাঠ ব্যবহারের অনুমতি দিতে রাজি না হওয়ায় গুজরাটে অতান্তরে তৃণমূল ব্রিগেড। এর মধ্যে কদর্য রাজনীতি দেখছে ঘাসফুল  শিবির।

মানতে হবে করোনা বিধি, এই সামান্য প্রস্তাবে সম্মতি না দেওয়ার কিছু নেই। তাই স্থানীয় তৃণমূল নেতা জীতেন্দ্র খাদাওয়াতা হ্যাঁ-ই বলেছিল। গুজরাটের গোধরায় এর পরেই তৃণমূল খেলা হবে কর্মসূচি পালনের অনুমতি পায়। দলের তরফ থেকে দ্রুত সমস্ত আয়োজন এর তৎপরতা শুরু হয়। স্থির হয়, নেতাজি সুভাষ ও ভগৎ সিং সদস্যরা এই দুটি দলে ভাগ হয়ে খেলবেন। সেই মতো জার্সি, ট্রফিও  তৈরি হয়ে যায় রাতারাতি। কিন্তু ২৪ ঘন্টার মধ্যেই নাটকীয় পরিবর্তন। সেন্ট আর্নল্ড হাইস্কুলের কর্তৃপক্ষ আজ স্বাধীনতা দিবসের দিনে জানিয়ে দেয়, উচ্চতর কর্তৃপক্ষের নির্দেশ অনুসারে করোনা পরিস্থিতিতে ম্যাচ বাতিল করা হচ্ছে।

স্বাভাবিক ভাবেই এই ঘটনায় বেজায় ক্ষুব্ধ তৃণমূল। তৃণমূল সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায় নিউজ18 কে বলেন, স্থানীয় তৃণমূল নেতারা আগে থেকেই জানিয়েছিল তাঁরা সমস্ত বিধিনিষেধ মেনে এই কর্মসূচি পালন করবে। ঠিক কী কারণে শেষ মুহূর্তে মাঠ ব্যবহারের অনুমতি দান থেকে বিরত হল এই স্কুল উপায় নেই। তারা কি জানে ফুটবল ম্যাচ ১১ জনে খেলা হয়, একজন রেফারি থাকে এবং দুজন লাইন্সম্যান। সব মিলিয়ে একটি মাঠে ৫০ জনের বেশি থাকার কথাও নয়।"

এদিনই লালকেল্লায় প্রধানমন্ত্রী বিবৃতি পাঠের সময়ে মাতঙ্গিনী প্রসঙ্গে ভুল তথ্য দিয়েছেন। আজ সেই ঘটনাকে হাতিয়ার করতে সময় নিলেন না সুখেন্দুশেখর। তাঁর কথায়, "বিজেপি তো কথায় কথায় স্বামী বিবেকানন্দর কথা টেনে আনে। তারা কি জানেন তরুণসমাজকে ফুটবল খেলতে উদ্বুদ্ধ করতেন স্বামী বিবেকানন্দ, তাদের নেতারা তো রবীন্দ্রনাথ কোথায় জন্মেছিলেন, মাতঙ্গিনী হাজরা কোথায় জন্মেছিলেন- তাও জানেন না। বিজেপি এবং আরএসএস খুব ভালো করে জানে কী ভাবে ছেলেদের হাতের লাঠি বা অন্যান্য অস্ত্র তুলে দেওয়া যায়। যা পরে গন্ডোগোল বাধাতে কাজে লাগবে। ঠিক যেমনটা হয়েছিল গুজরাটে। এই কারণেই ফুটবল সম্পর্কে তাদের কোনো ধারনাই নেই। আমি চূড়ান্ত প্রতিরোধ করছি এই ধরনের ফ্যাসিবাদি আগ্রাসনের।"

Published by:Arka Deb
First published: