দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

দেশীয় পণ্যকে করে তুলতে হবে বিশ্বমানের, বছরের শেষ মন কি বাতে বার্তা মোদির

দেশীয় পণ্যকে করে তুলতে হবে বিশ্বমানের, বছরের শেষ মন কি বাতে বার্তা মোদির
দেশীয় পণ্যকে করে তুলতে হবে বিশ্বমানের , বছরের শেষ মন কি বাতে বার্তা মোদির
  • Share this:

নয়াদিল্লি: ভারতে তৈরি পণ্যকে বিশ্বমানের করে তুলতে হবে৷ রবিবাসরীয় মন কি বাতে 'ভোকাল ফর লোকাল' মন্ত্রে ভর করে দেশীয়করণের ওপর জোর দিতে বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷

চলতি বছরের শেষ রেডিও অনুষ্ঠানে মোদি বললেন, "নির্মাতা ও শিল্প নেতাদের জানাতে চাই যে, দেশের প্রতিটি ঘরে যেন ভোকাল ফর লোকাল মন্ত্র ধ্বনিত হয়৷ আমাদের দেশীয় পণ্যকে বিশ্বমানের করে তুলতেই হবে৷ এই বিষয় আমরা বদ্ধপরিকর৷"

মোদি আরও জানিয়েছেন যে, করোনা কালে ভারত অনেক বেশি করে আত্মনির্ভর হয়ে উঠেছে৷ তাঁর সংযোজন,“করোনার কারণে সারা বিশ্বের সরবরাহ চেইন ব্যাহত হয়েছে৷ তবে আমরা প্রতিটি সংকট থেকে নতুন শিক্ষা পেয়েছি। জাতিও নতুন সক্ষমতা বিকাশ করেছে। একেই বলা যায় ‘আতত্মনির্ভরতা’ বা স্বনির্ভরতা৷

এদিনের অনুষ্ঠানে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণের বিষয়টাও জোর দিয়েছেন মোদি৷ তিনি জানিয়েছেন যে, বাঘ এবং সিংহের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য ভাবে বেড়েছে৷ তবে এই কৃতিত্ব তিনি শুধু সরকারকেই দেননি৷ তাঁর বক্তব্য, যাঁরা বন ও বন্যপ্রাণ সংরক্ষণে নিজেদের অবদান রেখেছেন, এই কৃতিত্ব তাঁদেরও৷ মোদি বললেন, “ভারতে সিংহ ও বাঘের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে৷ শুধু সরকারই নয়, এর অবদান মানুষের, এই সমাজের ও অন্যান্য সংস্থাগুলির৷ যারা বন ও বন্যজীবন সংরক্ষণের জন্য ভেবেছে৷ ”

মোদি তাঁর রেডিও ভাষণে শহীদ শ্রী গুরু গোবিন্দ সিংয়ের প্রসঙ্গও টেনে এনেছেন৷ মোদি বললেন, "শহীদ শ্রী গুরু গোবিন্দ সিংয়ের আত্মবলিদান আমাদের সভ্যতা রক্ষায় অসাধারণ কাজ করেছে৷ আমরা ওঁর কাছে ঋণী৷"

মোদি আবারও দেশের পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখার জন্য সরকারের 'স্বচ্ছ ভারত অভিযান'-এর কথা বলেছেন৷ তিনি বলেছেন, যত্রতত্র জঞ্জাল ফেলা ও একবার ব্যবহার করা যায় এমন প্লাস্টিক থেকে বিরত থাকতে৷ দেশবাসীর উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, "আসুন আমরা শপথ নিই যে, আমরা যত্রতত্র জঞ্জাল ফেলব না৷ এটাই হবে 'স্বচ্ছ ভারত অভিযান'-এর সঙ্কল্প৷ আরও একটা কথা মনে করিয়ে দিতে চাই যে, করোনার জন্য একটা আলোচনা হয়নি সেভাবে৷ কিন্তু সেটা বলার সময় এসেছে৷ একবার ব্যবহার করা যায় এমন প্লাস্টিক থেকে দেশকে মুক্তি দিতে হবে৷"

Published by: Subhapam Saha
First published: December 27, 2020, 1:12 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर