২০ দিনে আক্রান্ত মাত্র এক! ম্যাজিকের মতো করোনাকে রুখে দিয়েছে রাজস্থানের ‘ভিলওয়ারা মডেল’

  • Share this:

    #ভিলওয়ারা: সারা বিশ্ব এখন কাবু ছোট্ট এক মারণ ভাইরাসের ভয়ে । এক ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র ভাইরাস প্রায় স্তব্ধ করে দিয়েছ গোটা পৃথিবীকে। এ দেশেও সংক্রমণ সাড়ে ৫ হাজার ছাড়িয়েছে । করোনায় মৃত বেড়ে ১৬৬ । তার মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৪৭৩ জন । ভারতে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত মহারাষ্ট্রে । মহারাষ্ট্রে করোনা আক্রান্ত ১১৩৫ জন । সংক্রমণ ঠেকাতে ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার । রাজনৈতিক মহলের মতে আরও বাড়বে এই লকডাউন । কারণ করোনা সংক্রমণ রুখতে এছাড়া আর কোনও পথ নেই । এখনও পর্যন্ত রাজস্থানে আক্রান্ত ৩৮৩, মৃত ৬ জন । সুস্থ হয়েছেন ৩২ জন । কিন্তু যেখানে সারা দেশ এই ভাইরাস মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছে, সেখানে রাজস্থানের ছোট্ট একটি জেলা কামাল করে দেখাল। রাজস্থানের ভিলওয়ারা জেলায় গত ২০ দিনে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন মাত্র ১ জন । যেখানে ২০ মার্চ পর্যন্ত ২৬ জন করোনা আক্রান্তের খোঁজ পাওয়া গিয়েছিল, সেখানে ২০ তারিখের পর আজ পর্যন্ত ভিলওয়ারাতে আক্রান্ত বেড়েছে মাত্র একজন । কী এমন পদক্ষেপ নিয়েছে ভিলওয়ারার প্রশাসন । যাতে একেবারে ম্যাজিকের মতো কাজ হয়েছে? এই লড়াইয়ের নেতৃত্ব দিয়েছেন রাজস্থানের স্বাস্থ্য দফতরের অতিরিক্ত মুখ্যসচিব রোহিত কুমার সিং। তিনি জানিয়েছেন, রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রঘু শর্মা এর নাম দিয়েছেন ‘ভিলওয়ারা মডেল।’ কী এই ‘ভিলওয়ারা মডেল’? ভিলওয়ারার জেলাশাসক রাজেন্দ্র ভাট জানিয়েছেন, করোনা পজিটিভের সংখ্যা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই জেলা কার্ফু জারি করা হয়। জেলার সীমান্ত সিল করে দেওয়া হয়। এবার শহর ও গ্রামে চলে ব্যাপক পরীক্ষা। কোথায় কে অসুস্থ খুঁজে বের করা হয়। চালানো হয় ডের টু ডোর ক্যাম্পেইন। এর জন্য ১৯৩৭টি টিম তৈরির করা হয়য়েছিল। ২২ মার্চ থেকে ২ এপ্রিল পর্যন্ত ৪.৪১ লাখ ঘরে সার্ভে করে ফেলা হয়। এই জেলায় করোনা ছড়িয়েছিল এক ডাক্তারের মাধ্যমে। তাঁর নিজের হাসপাতাল আছে। তিনি অন্য দু’টি হাসপাতালেও চিকিৎসা করতে যান। তাঁর মাধ্যমেই এই ভাইরাস ছড়ায়। তাই প্রথমেই তাঁকে আইসোলেশনে রাখা হয়। এরপর শুরু হয় ব্যাপক স্ক্রিনিং। ৭০০০ দল তৈরি করা হয় । ইনফ্লুয়েঞ্জার রোগীদের শনাক্ত করে আইসোলেশনে রাখা হয় । এভাবেই আস্তে আস্তে কমতে থাকে আক্রান্তের সংখ্যা। এই মুহূর্তে সারাদেশে চর্চা হচ্ছে ভিলওয়ারা মডেল নিয়ে । সারা দেশেই এই মডেল প্রয়োগ করার কথা চলছে ।

    Published by:Simli Raha
    First published: