World Wildlife Day 2021: চির চেনা পশুরাও বেঁচে আছে মোটে হাজারের ঘরে, পরিসংখ্যান ভয় ধরাবে

চির চেনা পশুরাও বেঁচে আছে মোটে হাজারের ঘরে, পরিসংখ্যান ভয় ধরাবে

বিশ্বে ক্রমেই কমছে বন্যপ্রাণের সংখ্যা। জঙ্গলের গর্ব বলে পরিচিত দোর্দণ্ডপ্রতাপ প্রাণীরাও নিজের চরম পরিণতির অপেক্ষায় দিন গোনা শুরু

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: আজ বিশ্ব বন্যপ্রাণ দিবসে (World Wildlife Day) সব চেয়ে বেশি চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে বন্য জন্তুদের নিরাপত্তা ও সুরক্ষা। মনুষ্যসমাজের অনৈতিক কীর্তি-কলাপ যার প্রধান অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। যার জেরে বিশ্বে ক্রমেই কমছে বন্যপ্রাণের সংখ্যা। জঙ্গলের গর্ব বলে পরিচিত দোর্দণ্ডপ্রতাপ প্রাণীরাও নিজের চরম পরিণতির অপেক্ষায় দিন গোনা শুরু করেছে। দেখে নেওয়া যাক সেই তালিকা!

১) হাতি: এ যুগের অন্যতম বৃহৎ ও রাজকীয় প্রাণীটির নাম হল হাতি। যারা ক্রমেই অবলুপ্তির পথে এগিয়ে চলেছে বলা চলে। ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ফান্ড ফর নেচার (World Wild Fund for Nature) বা ডব্লুডব্লুএফের (WWF) পরিসংখ্যান অনুযায়ী বিশ্বে মেরেকেটে ৪০ থেকে ৫০ হাজার হাতি অবশিষ্ট রয়েছে। চোরা শিকারকেই এর জন্য দায়ী করছেন পশুপ্রেমীরা।

২) সিংহ: জঙ্গলের রাজা বলে পরিচিত সিংহ প্রজাতি শেষের দিন গুনছে বলা চলে। সাম্প্রতিক সমীক্ষা অনুযায়ী আফ্রিকায় সিংহের সংখ্যা মেরেকেটে ২০ হাজার। চোরাশিকার, গুপ্ত খুনই এর জন্য দায়ী। মন্দার বাজারে ভারতে এই প্রাণীর সংখ্যা বাড়লে হারাচ্ছে তাদের বৈচিত্র। তা নিয়ে শঙ্কিত পশুপ্রেমীরা।

৩) গণ্ডার: বহু মূল্যবান সিং-এর জন্য গণ্ডার নিধন চলছে বিশ্বের সর্বত্র। অসম থেকে উত্তরবঙ্গে গণ্ডারের সংখ্যা কমেছে উল্লেখযোগ্য। সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান অনুযায়ী বিশ্বব্য়াপী গণ্ডারের সংখ্য়া ৫০ লক্ষ থেকে ২৭ হাজারে এসে দাঁড়িয়েছে। সুমিত্রা, জাভার গণ্ডারের প্রজাতি এখন আর প্রায় খুঁজে পাওয়া যায় না বলা চলে।

৪) গোরিলা: এক সময় বিশ্বব্যাপী দাপট থাকলেও আফ্রিকার সাব-সাহারান রিজিওন ছাড়া গরিলা প্রজাতির প্রাণী কার্যত অমিল। মূলত ইস্টার্ন ও ওয়েস্টার্ন গরিলার সংখ্যা লক্ষাধিক থাকলেও এখন তাদের সামনে বিপন্ন হওয়ার আশঙ্কা। এই প্রজাতির প্রাণীকে লাল তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করেছে ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অফ নেচার (International Union for Conservation of Nature)।

৫) ভাকুইটা: ডলফিন সদৃশ এই জলজ প্রাণীকে ১৯৫৮ সালে প্রথম আবিষ্কার করা হয়েছিল। এক সময় এই স্তন্যপায়ী প্রাণীর জনসংখ্যা ছিল বিপুল। মেক্সিকোর উপকূলে চোরা শিকার ও অবৈধ চালানের কারণে সেই প্রাণীর সংখ্যা কমছে বলে জানানো হয়েছে। বর্তমানে ভাকুইটা প্রজাতির ডলফিনের সংখ্যা কমে ১০-এ এসে দাঁড়িয়েছে।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: