হুড়ুমুড়িয়ে কমে যাচ্ছে গাধা, খচ্চর, ঘোড়ার সংখ্যা, সাম্প্রতিক রিপোর্টে চাঞ্চল্য

হুড়ুমুড়িয়ে কমে যাচ্ছে গাধা, খচ্চর, ঘোড়ার সংখ্যা, সাম্প্রতিক রিপোর্টে চাঞ্চল্য

Photo-Representative

সংখ্যা ৫১.৫ % হ্রাস হয়েছে৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: ঘোড়া, গাধা, খচ্চরের অর্থাৎ খামারের পশুর সংখ্যায় চাঞ্চল্যকর হ্রাস দেখা গেল ৷ সাম্প্রতিক একটি সমীক্ষায় এই তথ্য সামনে এসেছে৷ খামারের পশুর সংখ্যার শেষ গণনা হয়েছিল ২০১২ সালে তার তুলনায় বর্তমান গণনায় যে সংখ্যা এসেছে তার সংখ্যা ৫১.৫ % হ্রাস হয়েছে৷ ২০১৯ সালে এই পশু গণনা হয়েছে৷ সারা দেশে গাধার সংখ্যা মাত্র ১.২ লক্ষ৷ যা ৬১.২৩ শতাংশ কম ২০১২ -র তুলনায়৷ জোত প্রকাশ কউর ব্রুক ইন্ডিয়ার external affairs and communication -র প্রধান এই তথ্য জানিয়েছেন৷

    সারা দেশে গাধার সংখ্যা চাঞ্চল্যকর ভাবে কমে গিয়েছে৷ গাধাদের একটা দারুণ বাজার রয়েছে চিনে৷ সেখানে “ejiao”-র চাহিদা দারুণ৷ লুকিয়ে গাধা বিক্রি -র কারণেই ভারতের বাজারে গাধার সংখ্যায় চাঞ্চল্যকর হ্রাসের কারণ৷  গ্রামের মানুষদের জীবন প্রচণ্ডভাবেই গাধাদের ওপর নির্ভরশীল৷ সম্প্রতি দিল্লিতে আয়োজিত Brooke India-র ওয়ার্কশপে এই বিষয়টির গুরুত্ব নিয়ে আলোচনা করা হয়৷ যেখানে দৈনন্দিন জীবনে গাধা, খচ্চর ও ঘোড়ার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে আলোচনা করা হয়৷

    ভারতীয় অর্থনীতির বিকাশে ঘোড়াদের তাৎপর্য ঠিক কতটা তা নিয়ে সংবাদমাধ্যমে কোনও আলোচনা অবধি করা হয় না বা তার গুরুত্ব নিয়ে সঠিক দিশাও নেই এমনটাই দাবি করা হয়৷

    ২০১৯ -র পশুগণননা অনুযায়ি তাদের সংখ্যা ক্রমশ কমলেও (০.৫৫ মিলিয়ন) কর্মঠ ঘোড়া. খচ্চর , গাধা গ্রামীণ এলাকায় রোজগারের প্রধান মাধ্যম৷ বিশেষত আর্থিক ভাবে পিছিয়ে থাকা মানুষদের জন্য৷ এরা ইঁচ বয়ে নিয়ে যায়, কন্সট্রাকশনের কাজে, কৃষিক্ষেত্রে , বিভিন্ন জিনিস পরিবহণে মানুষকে সাহায্য করে৷

    এই পশুগুলি থেকে গরীব মানুষরা যে রোজগার করে তা তাঁদের বাচ্চাদের পড়াশুনোর কাজে পরিবাররে খাদ্য জোগাড়ের কাজে ব্যবহার করে৷ এরা এত গুরুত্বপূর্ণ হলেও ভারতের গৃহপালিত পশুর নীতি মূলত গরু ও মোষকে মাথায় রেখেই তৈরি হয়৷ ঘোড়াদের এই পরিবারের কথা কার্যত মাথাতেই রাখা হয় না৷

    Brooke India  নিজেদের ওয়ার্কশপে জানিয়েছে তারা পশুদের উন্নয়নের বিজ্ঞানকে উন্নত করার জন্য কাজ করছে৷ এটা প্রধানত পশুকেন্দ্রিক, গোষ্ঠীগত পদ্ধতি মেনে চলার কথা বলে৷

    গাধাদের সম্পর্কে প্রচলিত ধারণা ভেঙেছে এদের সাম্প্রতিক রিসার্চ৷ যেখানে গাধাদের যথেষ্ট বুদ্ধিসম্পন্ন পশু বলে প্রমাণ করা হয়েছে৷ Brooke India-র পক্ষ থেকে তাঁদের প্রধান নিধি ভরদ্বাজ পশুদের সর্বাঙ্গীন উন্নয়নের বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন ৷ যেখানে গাধাদের ব্যবহারিক বুদ্ধির বিষয়টির ওপর বিস্তর জোর দেওয়া হয়েছে৷ গাধাদের বিদেশে বিক্রি বন্ধ করার আবেদন করা হয়েছে৷

    Brooke Hospital for Animal (India)  - পশুদের উন্নয়নের বিষয় নিয়ে কাজ করে৷ Animal Welfare Board of India (AWBI)-র ছত্রছায়ায় তারা রয়েছে৷ গরীব পরিবারে কার্যকারী ঘোড়াদের উন্নয়ন সাধনের জন্য দীর্ঘদিন ধরে তারা কাজ করছে৷
    Published by:Debalina Datta
    First published: