মাটির নীচে গুপ্তধন, কলসি ভর্তি ভুরি-ভুরি সোনার গয়না... তেলেঙ্গানার ব্যবসায়ীর চোখ কপালে

মাটির নীচে গুপ্তধন, কলসি ভর্তি ভুরি-ভুরি সোনার গয়না... তেলেঙ্গানার ব্যবসায়ীর চোখ কপালে

মাটি খুঁড়তেই বেরিয়ে এল কলসি আর তার মুখ খুলতেই চোখ ছানাবড়া... কলসি ভর্তি সোনার গয়নায়

মাটি খুঁড়তেই বেরিয়ে এল কলসি আর তার মুখ খুলতেই চোখ ছানাবড়া... কলসি ভর্তি সোনার গয়নায়

  • Share this:

    #তেলেঙ্গানা: মাটি খুঁড়তেই বেরিয়ে এল কলসি আর তার মুখ খুলতেই চোখ ছানাবড়া... কলসি ভর্তি সোনার গয়নায়! শুনে মনে হচ্ছে নির্ঘাৎ কোনও রূপকথার গল্প! কিন্তু, নাহ, একেবারেই গল্পকথা নয়, ঘোর বাস্তব! তেলেঙ্গানার এক জমি ব্যবসায়ী নিজের জমিতেই মাটি খুঁড়ে পান এই গয়না ভর্তি কলসি। গয়নার আদল থেকে অনুমান করা হচ্ছে, সেগুলি সম্ভবত ঠাকুরের গয়না। ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

    জানা যায়, জানগাঁ জেলার পেমভারতী গ্রামে জাতীয় সড়কের পাশে নিজের ১১ একর জমিতে খনন কাজ চালাচ্ছিলেন ব্যবসায়ী। আচমকাই তাঁর নজরে আসে মাটির নীচে কী যেন একটা চকচক করছে! মাটি সরাতেই দেখেন তামার একটা কলসি। প্রথমে একটু ভয়-ই পান, কবেকার কলসি, ভিতরে কী আছে কে জানে! কিন্তু কৌতূহলবশত ঢাকনা সরাতেই চোখের সামনে তারা! কলসির ভিতরে থরে থরে সাজানো সোনা-রূপোর গয়না। পরীক্ষা করে দেখা যায়, কলসিতে ১.৭২৭ কিলো রূপোর গয়না ও ১৮৭.৪৫ গ্রাম সোনার গয়না রয়েছে। চোখ ধাঁধানি গয়নার মধ্যে রয়েছে কানের দুল, নাকছাবি, পায়ের তোড়া, গলার হার, আরও কত কী!

    গুপ্তধনের কথা চাউড় হতে সময় লাগে না! কাতারে কাতারে গ্রামবাসী জমির চারপাশে ভিড় জমান, গয়না দেখতে ভিড় উপচে পড়ে। তবে জানা গিয়েছে, নরসিমহা নামের জনৈক জমি ব্যবসায়ী গয়না নিজের কাছে রাখতে পারবেন না। আপাতত সমস্তটাই জমা রাখা হয়েছে জেলার কালেক্টরের অফিসে।

    Published by:Rukmini Mazumder
    First published: