corona virus btn
corona virus btn
Loading

ডাক্তাররা মৃত ঘোষণা করেছিলেন, মায়ের চিত্‍কার কান্নায় চোখ খুলল 'ব্রেন ডেড' ছেলে

ডাক্তাররা মৃত ঘোষণা করেছিলেন, মায়ের চিত্‍কার কান্নায় চোখ খুলল 'ব্রেন ডেড' ছেলে

ঘটনার সূত্রপাত গত ২৬ জুন৷ ১৮ বছর বয়সি গন্ধম করিনের প্রবল জ্বর আসে৷ সঙ্গে বমি৷ অবস্থা দ্রুত খারাপ হতে শুরু করে৷ তাকে ভর্তি করা হয় জেলা হাসপাতালে৷ ২৮ জুন গন্ধমের শারীরিক অবস্থা আরও খারাপ হতে থাকে৷ গন্ধমকে নিয়ে পরিবারের লোকেরা হায়দরাবাদ নিয়ে যান৷

  • Share this:

#হায়দরাবাদ: ডাক্তাররা ব্রেন ডেথ ঘোষণা করে দিয়েছিলেন ১৮ যুবককে৷ বাঁচার আশা ওখানেই শেষ৷ চিকিত্‍‌সকরা এরপরই পরিবারের লোকজনকে ডাক্তাররা বলে দেন, মারা গিয়েছে রোগী৷ অন্তিম সংস্কারের প্রস্তুতিও শুরু করে দেন পরিবারের লোকেরা৷ হঠাত্‍‌ বিস্ময়! ছেলের নাম ধরে চেঁচিয়ে কেঁদে উঠলেন মা৷ মৃত ঘোষণা করা ছেলে চোখ মেলল৷ আশ্চর্য ঘটনাটির সাক্ষী তেলঙ্গানার সূর্যপেট৷

ছবিটি সংগৃহীত ছবিটি সংগৃহীত

ঘটনার সূত্রপাত গত ২৬ জুন৷ ১৮ বছর বয়সি গন্ধম করিনের প্রবল জ্বর আসে৷ সঙ্গে বমি৷ অবস্থা দ্রুত খারাপ হতে শুরু করে৷ তাকে ভর্তি করা হয় জেলা হাসপাতালে৷ ২৮ জুন গন্ধমের শারীরিক অবস্থা আরও খারাপ হতে থাকে৷ গন্ধমকে নিয়ে পরিবারের লোকেরা হায়দরাবাদ নিয়ে যান৷

হায়দরাবাদে একটি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় গন্ধমকে৷ দামি হাসপাতালে প্রতিদিন বিল বাড়তে থাকে৷ শেষ পর্যন্ত ৩ জুলাই হাসপাতাল ঘোষণা করে, গন্ধমের ব্রেন ডেড হয়ে গিয়েছে৷ আর বাঁচার কোনও আশাই নেই৷ এরপর গন্ধমকে নিয়ে গ্রামে ফেরেন আত্মীয়রা৷ গ্রামের বাড়িতে শেষকৃত্যের প্রস্তুতি শুরু হয়৷ মাটিতে রাখা ছিল দেহটি৷ ছেলের দেহের পাশে বসে চেঁচিয়ে কেঁদে ওঠেন মা৷ মায়ের কান্নার পরেই হাত-পা নাড়াতে শুরু করে গন্ধম৷ সঙ্গে সঙ্গে খবর দেওয়া হয় ডাক্তারকে৷

ডাক্তার জানান, গন্ধম বেঁচে রয়েছে৷ এমনকী বর্তমানে সুস্থ হয়ে উঠছে দ্রুত৷ গোটা ঘটনার কোনও ব্যাখ্যা খুঁজে পাচ্ছেন না চিকিত্‍‌সকরা৷

First published: July 10, 2019, 4:24 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर