corona virus btn
corona virus btn
Loading

আড়ত থেকে বাজারে হানা টাস্ক ফোর্সের! আলু ২৫ টাকায় বিক্রি করতে হবে, কড়া বার্তা

আড়ত থেকে বাজারে হানা টাস্ক ফোর্সের! আলু ২৫ টাকায় বিক্রি করতে হবে, কড়া বার্তা

৭ দিনের মধ্যে কিলো প্রতি আলুর দাম কমাতেই হবে...

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: আলুর দাম কিছুতেই মধ্যবিত্তের নাগালে আসছে না। দাম চড়ছে। আকাশ ছোঁয়া দাম। কিলো প্রতি ৩৫ টাকার কম তো নয়ই! শুধু শিলিগুড়িতেই নয়, রাজ্যজুড়েই আলুর দামের বাড়বাড়ন্ত চলছে। আর তাই এবারে শিলিগুড়ির বাজারে আচমকা হানা জেলা টাস্ক ফোর্সের। পুলিশের দূর্ণীতি দমন শাখা, এগ্রি মার্কেটিং, এগ্রি ডেভলোপমেন্ট এবং রেগুলেটেড মার্কেট কমিটির সদস্যদের নিয়ে গঠিত টাস্ক ফোর্স। আজ প্রথমেই তারা হানা দেয় উত্তর-পূর্ব ভারতের সবচাইতে বড় আড়ত শিলিগুড়ি রেগুলেটেড মার্কেটে।

সেখানে আলুর আড়তে যেতেই চক্ষু চড়কগাছ টাস্ক ফোর্সের সদস্যদের। প্রতিটি আড়তেই আলুর বস্তা মজুত রাখা রয়েছে। সদস্যদের দাবী, এভাবে মজুত রেখেই কৃত্রিমভাবে সংকট তৈরী করে দাম বাড়ানো হচ্ছে। এমনকী কোন আড়তে কত বস্তা আলু মজুত রয়েছে বা প্রতিদিন কত বস্তা আলু বিক্রি হচ্ছে তার কোনো নথিই নেই। অধিকাংশ আড়তেই একই ছবি। আড়তদারদের সতর্ক করে দেওয়া হয়। এবং এক দিনের মধ্যে মজুত আলু বাজারে বিক্রি করার নির্দেশ দেওয়া হয়। নইলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার কড়া বার্তা দেওয়া হয়। রেগুলেটেড মার্কেট কমিটির সচিব অরুন কুমার শর্মা জানান, কালকের মধ্যে আড়ত ফাঁকা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। হিমঘর থেকেই বা কি দামে আড়তদারেরা কিনছে, সেটাও দেখা হচ্ছে। কৃত্রিম সংকট তৈরী করা যাবে না। দার্জিলিংয়ের জেলাশাসকের নির্দেশেই এই কমিটি গঠন করা হয়েছে।

শিলিগুড়ি আলু ও পেঁয়াজ মার্চেন্টস এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক রাম অবতার প্রসাদ জানান, বৃষ্টির জন্যে প্রচুর পেঁয়াজ নষ্ট হয়েছে। আর আলুর ক্ষেত্রে যেমন দামে হিমঘর থেকে কিনতে হচ্ছে, সামান্য মার্জিন রেখেই বিক্রি করা হচ্ছে। ২৫ থেকে ২৬ টাকা কিলো প্রতি আলু কিনে ১ টাকা লাভ রেখে বিক্রি করা হচ্ছে। আর মজুতের ক্ষেত্রে দ্রুত ফাঁকা করে দেওয়া হবে। কৃত্রিম সংকট তৈরী করা হচ্ছে না বলে দাবী আড়তদারদের। যদিও প্রশাসনিক কর্তারা সাফ জানিয়ে দিয়েছে, সাধারন মানুষ যেন আগামী ৭ দিনের মধ্যে ২৫ টাকা প্রতি কিলোতে আলু কিনতে পারেন। এটা নিশ্চিত করতেই এই অভিযান। এদিন চম্পাসারী বাজারও পরিদর্শনে যান টাস্ক ফোর্সের সদস্যরা। ধীরে ধীরে শহরের অন্য বাজারেও হানা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন জেলাশাসক এস পুন্নমবালাম।

Partha Sarkar

Published by: Debalina Datta
First published: September 9, 2020, 8:03 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर