• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • SUPREME COURT QUESTIONS CENTRAL AGENCIES FOR DELAY IN INVESTIGATION AGAINST PUBLIC REPRESENTATIVES DMG

Supreme Court questions central agencies: সাংসদ, বিধায়কদের বিরুদ্ধে তদন্ত শেষ হয় না কেন? সিবিআই, ইডি-কে প্রশ্ন সুপ্রিম কোর্টের

সুপ্রিম কোর্টের প্রশ্নের মুখে ইডি, সিবিআই৷

ক্ষুব্ধ বিচারপতিরা আরও বলেন, 'ইডি শুধুমাত্র অভিযুক্ত জনপ্রতিনিধিদের সম্পত্তিই বাজেয়াপ্ত করছে, তার পরে আর কিছু এগোচ্ছে না (Supreme Court questions central agencies)৷ '

  • Share this:

    #দিল্লি: বছরের পর বছর কেটে গেলেও কেন সাংসদ, বিধায়কদের মতো জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে তদন্ত শেষ করতে পারে না সিবিআই, ইডি-র মতো কেন্দ্রীয় এজেন্সিগুলি? এ দিন এই প্রশ্ন তুলেই সিবিআই, ইডি-র মতো কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাগুলিকে রীতিমতো ভর্ৎসনা করল সুপ্রিম কোর্ট৷ প্রধান বিচারপতি এন ভি রামানা কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাগুলির কাছে সরাসরি জানতে চাইলেন, দশ- পনেরো বছর কেটে গেলেও কেন সাংসদ, বিধায়কদের বিরুদ্ধে চলতে থাকা মামলায় চার্জশিট জমা পড়ে না?

    ক্ষুব্ধ বিচারপতিরা আরও বলেন, 'ইডি শুধুমাত্র অভিযুক্ত জনপ্রতিনিধিদের সম্পত্তিই বাজেয়াপ্ত করছে, তার পরে আর কিছু এগোচ্ছে না৷'

    প্রধান বিচারপতি এন ভি রামানা আরও কঠোর ভাষায় বলেন, 'এ ভাবে তদন্ত ঝুলিয়ে রাখবেন না৷ চার্জশিট জমা করুন৷ আমরা কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থগুলির মনোবল ভাঙতে চাই না বলেই তাঁদের বিরুদ্ধে কিছু বলছি না৷ কিন্তু যে পরিমাণ মামলা জমে রয়েছে, সেই সংখ্যাই সবকিছু বলে দিচ্ছে৷' প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন তিন বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ মনে করিয়ে দেয়, মানুষকে সুবিচার পাইয়ে দিতে দ্রুত মামলার নিষ্পত্তি করতে হবে৷

    এই মামলায় আদালতকে সাহায্যকারী বিজয় হনসারিয়া জানান, জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে চলা একটি মামলা তদন্ত শেষ হতে ২০৩০ সাল হতে পারে বলে জানিয়েছে তদন্তের দায়িত্বে থাকা কেন্দ্রীয় এজেন্সি৷ যা শুনে রীতিমতো বিস্ময় প্রকাশ করেন বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়৷

    তিন বিচারপতিই সহমতের ভিত্তিতে জানান, জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত শেষ হতে কেন এত সময় লাগে, তার কোনও সুস্পষ্ট কারণ জানাতে পারেনি কেন্দ্রীয় এজেন্সিগুলি৷ তবে বিচারপতিরা স্বীকার করেন, বিচার ব্যবস্থার মতোই কেন্দ্রীয় এজেন্সিগুলির উপরেও বিপুল কাজের চাপ থাকে৷ কর্মী সংখ্যাও পর্যাপ্ত থাকে না৷ এর পাশাপাশি কিছু মামলার ক্ষেত্রে বিশেষ প্রক্রিয়া অবলম্বন করতে হয়৷ তাতে আরও সময় লাগে৷

    তবে একই সঙ্গে প্রধান বিচারপতি স্বীকার করেন, জনপ্রতিনিধিরা জড়িত থাকায় অনেক কিছু মাথায় রাখতে হয় তদন্তকারী সংস্থাগুলিকে৷ তা না হলে অভিযুক্ত জনপ্রতিনিধিরা নিজেদের ক্ষমতার অপব্যবহার করতে পারেন৷

    কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে সওয়াল করতে গিয়ে সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতা স্বীকার করে নেন, জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে চলা মামলাগুলির তদন্তে সত্যিই গতি বাড়ানো প্রয়োজন৷ পাল্টা প্রধান বিচারপতি তখন বলেন, 'গতি বাড়ানোর কথা বলাটা সহজ৷ কিন্তু সেটা হচ্ছে কোথায়?' কেন এই ধরনের মামলার তদন্তে দেরি হচ্ছে, পরবর্তী শুনানির দিন আদালতকে তা জানানোর জন্য সলিসিটর জেনারেলকে নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: