Home /News /national /
Supreme Court: কাঁথি পুরসভার নির্বাচন নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত সুপ্রিম কোর্টের, পাল্টে গেল হাইকোর্টের নির্দেশ

Supreme Court: কাঁথি পুরসভার নির্বাচন নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত সুপ্রিম কোর্টের, পাল্টে গেল হাইকোর্টের নির্দেশ

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

Supreme Court: পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথি পুরসভায় রিগিং, সন্ত্রাসের অভিযোগ তুলে হাইকোর্টে মামলা করেছিলেন শুভেন্দু অধিকারীর ভাই সৌমেন্দু অধিকারী।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: কাঁথি পুরসভা নির্বাচনের সিসিটিভি ক্যামেরার ফরেন্সিক পরীক্ষা নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টের রায় স্থগিত করে দিল সুপ্রিম কোর্ট। কাঁথি পুরসভায় ব্যবহৃত সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজের ফরেন্সিক পরীক্ষার নির্দেশ দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট। নির্বাচন প্রক্রিয়ায় আদালতের হস্তক্ষেপের সমালোচনা করে বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড় বলেন, হাইকোর্ট ভোট পরবর্তী পরিস্থিতি দেখছে আইনি প্রক্রিয়ায়। তাঁর মতে, এই প্রবণতা রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে অত্যন্ত বিপজ্জনক। বিচারপতি বলেন, ভোট সম্পন্ন এবং ফলাফল প্রকাশের পর হাইকোর্টের এই নির্দেশের মাধ্যমে আদালত তার এক্তিয়ার বাড়িয়েছে। এর পরেই হাইকোর্টের নির্দেশের ওপর স্থগিতাদেশ জারি করে বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড় এবং বিচারপতি সূর্য কান্তের বেঞ্চ। হাইকোর্টের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল রাজ্য নির্বান কমিশন।

আরও পড়ুন- দুঃখ হয়, রবীন্দ্রনাথের নোবেল প্রাইজ এখনও উদ্ধার হল না, বললেন মমতা

পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথি পুরসভায় রিগিং, সন্ত্রাসের অভিযোগ তুলে সিসিটিভি ফুটেজ ফরেন্সিক পরীক্ষার আবেদনে হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেছিলেন বিজেপি নেতা ও রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর ভাই সৌমেন্দু অধিকারী। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, তিনি এই পুরসভার চেয়ারম্যান ছিলেন। গত ২৬ এপ্রিল অবকাশকালীন বিশেষ বেঞ্চ সিসিটিভি ফুটেজ ফরেন্সিক পরীক্ষার নির্দেশ দেয় বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তব এবং বিচারপতি রাজর্ষি ভরদ্বাজের বেঞ্চ। রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে ১০ দিনের মধ্যে সিসিটিভি ফুটেজ কেন্দ্রীয় ফরেন্সিক ল্যাবরেটরিতে পাঠনোর নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।

আরও পড়ুন - মায়ের মৃত্যু ভারতে, মেয়েরা ছিলেন বাংলাদেশে! সীমান্তে কী কাণ্ড ঘটল শুনলে অবাক হবেন

এ দিন বিচারপতি চন্দ্রচূড় বলেন, হাইকোর্ট যে নির্দেশ দিয়েছে, সেটি একটি অন্তবর্তীকালীন রায় এবং তারপর কোনও নির্দেশ দেয়নি আদালত। অর্থাৎ আদালত হস্তক্ষেপ করলে সেটি চূড়ান্ত অনিয়ম হবে। তিনি আবেদনকারীকে বলেন, কারও মনে হয়েছে ফুটেজ বিকৃত করা হয়েছে। কেন ফরেন্সিক অডিট করা হবে। বিচারপতি বলেন, "কোনও ভোটার বা সদস্য একে চ্যালেঞ্জ করেননি এবং মাত্র ৮টি ওয়ার্ডের জন্য ফরেন্সিক পরীক্ষার দাবিতে জনস্বার্থ মামলা হয়েছে। আমি বুঝতে পারছি, আপনি ৮টি ওয়ার্ডের কথা বলছেন, কিন্তু ৮২টি ওয়ার্ডে ব্যতিক্রম?" বিচারপতি চন্দ্রচূড় বলেন, "ভোটপর্ব মিটে যাওয়ার পর জনস্বার্থ মামলা? নির্বাচন প্রক্রিয়াকে চ্যালেঞ্জ করে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা যায় না।" বিচারপতি সূর্য কান্ত বলেন, "এটা কোনও জনস্বার্থ মামলা নয়, এটি নির্বাচনী আবেদন।"

RAJIB CHAKRABORTY

Published by:Uddalak B
First published:

Tags: Supreme Court

পরবর্তী খবর