কাশ্মীরে গত দশকে এই মুহূর্তে সবচেয়ে দুর্বল অবস্থায় জঙ্গিরা,বলছে রিপোর্ট

photo/the mint

কাশ্মীরে চিনার কর্পস এর কমান্ডার জেনারেল বি এস রাজু জানিয়েছেন উপত্যকায় গত দশকের ভেতর এই মুহূর্তে সন্ত্রাসবাদীদের অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। এত দুর্বল জায়গায় দু বছর আগেও ছিল না তাঁরা।

  • Share this:

    #শ্রীনগর: দিন দুয়েক আগেই ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল নারাভানে জানিয়েছিলেন এই মুহূর্তে কাশ্মীরে ঢোকার জন্য প্রায় তিন থেকে চারশো সশস্ত্র জঙ্গি অপেক্ষা করে আছে বিভিন্ন লঞ্চপ্যাডে। পাকিস্তানের সাহায্যে ভারতের বিভিন্ন জায়গায় হামলা চালাতে প্রস্তুত তাঁরা। কিন্তু ভারতীয় সেনার কড়া পাহারা এড়িয়ে ঢোকা সম্ভব নয় জানিয়ে দিয়েছিলেন সেনাপ্রধান। তাঁর স্পষ্ট বার্তা ছিল এপারে এলে ওপরে যেতে হবে। এবার কাশ্মীরে চিনার কর্পস এর কমান্ডার জেনারেল বি এস রাজু জানিয়েছেন, উপত্যকায় গত দশকের ভেতর এই মুহূর্তে সন্ত্রাসবাদীদের অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। এত দুর্বল জায়গায় দু বছর আগেও ছিল না তাঁরা। গত বছর ভারতীয় সেনার সরকারি হিসেব বলছে প্রায় দুশো বাইশ জন জঙ্গিকে হত্যা করা হয়েছে,পঞ্চাশের কাছাকাছি আটক। আরও বেশ কয়েকজন আত্মসমর্পণ করেছেন।

    খুব বেশি হলে এই মুহূর্তে দুশো পনেরো জন জঙ্গি রয়েছে উপত্যকায়। তাঁদের বিরুদ্ধে দ্রুত অভিযান চালানো হবে। স্পেশাল ফোর্স প্রয়োজন না হলে ব্যবহার না করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। রাষ্ট্রীয় রাইফেলস এবং জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ মিলেই যৌথ অভিযান চালাবে। জেনারেল রাজু জানিয়েছেন পাকিস্তান যুবসমাজকে বিভিন্ন উপায়ে সন্ত্রাসবাদের দিকে ঠেলে দিত। এখনও নিজেদের অবস্থান পরিবর্তন করেনি তাঁরা। ধর্ম এবং অর্থের লোভ দেখিয়ে ট্রেনিং দিয়ে এই যুবকদের ভারতের বিরুদ্ধে ব্যবহার করার ছক পুরনো। কিন্তু ভারতীয় সেনা চেষ্টা করছে উপত্যকা থেকে তরুণ যুবকরা যাতে পাকিস্তানের এই ফাঁদে না পড়ে। তাই বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়েছে সেনা। কাশ্মীর থেকে যেমন সেনাবাহিনীতে ভর্তির সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে, তেমনই যুবকদের জন্য বিভিন্ন রোজগারের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। সাড়াও মিলছে ব্যাপক।

    জেনারেল জানিয়েছেন, ভারতে অনুপ্রবেশের ঘটনা প্রায় সত্তর শতাংশ কমেছে। এলওসি-তে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে ভারতীয় সেনা। তবে স্থানীয় কাশ্মীরিদের বিভিন্ন ভাবে সাহায্য করার কর্মসূচি নেওয়া একটা নতুন সিদ্ধান্ত। মানুষদের সেনা বার্তা দিতে চায় তাঁরা প্রত্যেকেই কাশ্মীরিদের সাহায্যের জন্য প্রস্তুত। এই ছবি আগামীদিনে পরিস্থিতি বদলে দেবে আশাবাদী ভারত। জম্মু কাশ্মীর এবং লাদাখ নিয়ে ভারত সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তা নিয়ে অনেক সমালোচনা হলেও পরে সে সিদ্ধান্ত সঠিক তা প্রমাণিত। যদিও চিন এবং পাকিস্তান চেষ্টা করে চলেছে এই দুই জায়গায় অশান্তি জিইয়ে রাখতে। ভারত আগেও জানিয়েছে প্রয়োজনে দুই শত্রুর বিরুদ্ধে একসঙ্গে মোকাবিলা করতে তৈরি সেনা।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: