• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • SONIA GANDHI RAHUL GANDHI WILL NOT GET SAME IMPORTANCE BY TMC AKD

Sonia Gandhi| Rahul Gandhi| সোনিয়া ও রাহুলকে সমান গুরুত্ব দেবে না তৃণমূল, স্বাতন্ত্র্য জানান দিচ্ছে দল...

তৃণমূলের কাছে সোনিয়া-রাহুল এক নয়।

Sonia Gandhi| Rahul Gandhi || জাতীয় স্তরে বৃহত্তর ঐক্য গড়ার লক্ষ্যে এগোনোর পাশাপাশি বিজেপি বিরোধিতায় স্বতন্ত্র ভূমিকা বজায় রাখছে তৃণমূল কংগ্রেস।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদি সরকারকে গদিচ্যুত করার লক্ষ্যে একদিকে যখন দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অন্য বিরোধী দলগুলোর শীর্ষ নেতাদের এক মঞ্চে উপস্থিত করার লক্ষ্যে প্রত্যেকের সঙ্গে রাজনৈতিক সুসম্পর্ক রেখে চলেছেন, ঠিক তখনই অন্য দলগুলোর একতরফা ঘোষিত কর্মসূচিতে উপস্থিত না হওয়া অথবা নামমাত্র কোনও নেতাকে প্রতিনিধি হিসেবে পাঠিয়ে দলের স্বতন্ত্রতা সম্পর্কে সম্যক বার্তা দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহে দিল্লি সফরে এসে কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে দেখা করেছেন দলের নেত্রী। কিন্তু, যাননি অন্য কোনও নেতার বাড়ি। বরং নেত্রীর সঙ্গে এসে দেখা করে গিয়েছেন কংগ্রেস নেতা কমলনাথ, আনন্দ শর্মা, অভিষেক মনু সিংভি, ডিএমকে নেত্রী কানিমোঝি, আম আদমি পার্টির প্রধান তথা দিল্লীর মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল এবং বিনোদন জগতের দুই তারকা জাভেদ আখতার ও শাবানা আজমি।এরপরের ঘটনা গুলি লক্ষ্য করলে দেখা যাবে, সংসদে বিরোধীদের রণনীতি তৈরি করার জন্য রাহুল গান্ধি প্রায় প্রতিদিনই বিরোধী দলগুলোর নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। কিন্তু, সেই বৈঠকে তৃণমূল কংগ্রেসের লোকসভা ও রাজ্যসভার নেতারা উপস্থিত থাকেননি।

ওই বৈঠক গুলিতে পাঠানো হয়েছে দলের সংসদ সাজেদা আহমেদ এবং প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায় এর মতো নেতাদের। একইসঙ্গে ১৫টি বিরোধীদল যন্তর মন্তরে আন্দোলনরত কৃষকদের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার কর্মসূচি নিলেও তাতে যোগ দেননি তৃণমূল কংগ্রেসের কোনও নেতা। সেক্ষেত্রেও স্বতন্ত্রভাবে অনেক আগেই কৃষক নেতাদের সঙ্গে দেখা করে এসেছেন দোলা সেন ও প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপর বৃহস্পতিবার সংসদ ভবন থেকে হেঁটে বিজয়চকে বিক্ষোভ কর্মসূচিতেও উপস্থিত হয়নি তৃণমূল কংগ্রেস। যা নিয়ে সংবাদমাধ্যমে বিস্তর হইচই হলেও দলের রাজ্যসভার দলনেতা ডেরেক ও'ব্রায়েন এবং প্রবীণ সাংসদ সৌগত রায় স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, "কোনও সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার পর তা তৃণমূল কংগ্রেসকে জানানো হলে তৃণমূল কংগ্রেস বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে। হঠকারী সিদ্ধান্তে পদক্ষেপ করবে না দল। তৃণমূল কংগ্রেসের দলনেত্রীর অনুমোদন ছাড়া এক পা এগোবে না দল।"

পাশাপাশি এই বিষয়টিও অত্যন্ত স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, "রাজনৈতিক দল হিসেবে স্বতন্ত্রতা বজায় রাখলেও বিজেপি বিরোধী মঞ্চ গড়ার লক্ষ্যে অবিচল তৃণমূল কংগ্রেস। সম্মিলিত সিদ্ধান্ত এবং একক ভাবে নেওয়া কোন দলের সিদ্ধান্তকে গুলিয়ে ফেলা অনুচিত।"প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আগামী ২০ আগস্ট অবিজেপি রাজ্যগুলির মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকে বসছেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধি। বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোনিয়ার আহ্বানে বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে, ঝাড়খন্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সরেন এবং তামিলনাড়ুর  মুখ্যমন্ত্রী এমকে স্ট্যালিন।

এক্ষেত্রে দলের বক্তব্য অত্যন্ত স্পষ্ট। তা হল, কংগ্রেসের সভানেত্রী হিসেবে সোনিয়া গান্ধী এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যে আত্মিক সম্পর্ক রয়েছে, একই সম্পর্ক অন্য কেউ দাবি করতে পারেন না। রাহুল গান্ধি এই মুহূর্তে কংগ্রেসের কেরল থেকে নির্বাচিত শুধুমাত্র একজন সাংসদ। সেই কারণেই সোনিয়ার আমন্ত্রণে সাড়া দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাহুলের আমন্ত্রণে পাঠানো হয় সাজেদা আহমেদ ও প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো প্রতিনিধিদের।

Published by:Arka Deb
First published: