corona virus btn
corona virus btn
Loading

দেশদ্রোহিতায় অভিযুক্ত JNU প্রাক্তনী শরজিল ইমাম গ্রেফতার

দেশদ্রোহিতায় অভিযুক্ত JNU প্রাক্তনী শরজিল ইমাম গ্রেফতার
গ্রেফতার শরজিল ইমাম

শরজিল ইমামকে নিয়ে কয়েক দিন ধরেই উত্তাল জাতীয় রাজনীতি৷ বিশেষ করে দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে বারবার উঠেছে শরজিলের নাম৷ তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ, গত রবিবার তিনি অসমকে দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করার পক্ষে সওয়াল করেন৷

  • Share this:

#জেহানাবাদ: ৪ দিনের তল্লাশির পরে আজ অর্থাত্‍ মঙ্গলবার শাহিনবাগ আন্দোলনের অন্যতম মুখ শরজিল ইমামকে গ্রেফতার করল দিল্লি পুলিশ৷ দেশদ্রোহিতার অভিযোগে অভিযুক্ত জেএনইউ ও আইআইটি-র প্রাক্তন ছাত্র শরজিলকে বিহারের জেহানাবাদে গ্রেফতার করা হয়েছে৷

শরজিল ইমামকে নিয়ে কয়েক দিন ধরেই উত্তাল জাতীয় রাজনীতি৷ বিশেষ করে দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে বারবার উঠেছে শরজিলের নাম৷ তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ, গত রবিবার তিনি অসমকে দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করার পক্ষে সওয়াল করেন৷ একই সঙ্গে সিএএ, এনআরসি ও এনপিআর-এর বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক মন্তব্য করেন৷ শরজিলের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার অভিযোগে এফআইআর করে দিল্লি পুলিশ৷ দিল্লি পুলিশের এফআইআর-এর পরেই কেন্দ্রীয় এজেন্সি ও জেহানাবাদ পুলিশ শরজিলের বাড়িতে তল্লাশি চালায়৷ তাঁর দুই আত্মীয়কেও গ্রেফতার করে পুলিশ৷

শরজিল ইমামের গ্রেফতারি নিয়ে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার বলেন, 'কেউ যদি কোনও ভুল করে, পদক্ষেপ তো নিতেই হবে৷ আইনের বিরুদ্ধে যাওয়া কারওই উচিত নয়৷ শরজিল যা বলেছেন বা পুলিশ যা পদক্ষেপ করেছে, পুরোটাই আদালতের বিচার্য৷'

পুলিশের দাবি, শরজিল গত বছর ১৩ ডিসেম্বর জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে যে বক্তৃতা দেন, তা সরকারের বিরুদ্ধে অত্যন্ত কুরুচিকর৷

শাহিনবাগের বিক্ষোভে বক্তৃতা করে প্রচারে এসেছিলেন জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র শরজিল ইমাম। রবিবার তাঁর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করে দিল্লি পুলিশ৷ রবিবার শরজিল ইমামের একটি অডিও ক্লিপে তাঁকে বলতে শোনা গিয়েছে, 'অসমকে ভারতের অন্যান্য অঞ্চল থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া উচিত এবং একটি শিক্ষা দেওয়া উচিত। কারণ হিন্দু ও মুসলমান বাঙালিদের নির্বিশেষে হত্যা করা হয়েছে বা ক্যাম্পে আটকে রাখা হয়েছে৷'

তাঁকে আরও বলতে শোনা যায়, তিনি যদি পাঁচ লক্ষ মানুষকে সংগঠিত করতে পারেন, তা হলে অসমকে গোটা ভারতের থেকে বিচ্ছিন্ন করে দিতেন। যদি স্থায়ী ভাবে তা সম্ভব না হয়, তা হলে কয়েক মাসের জন্য তো বটেই।

জেএনইউ-এর প্রাক্তন ছাত্র শরজিল বিহারের বাসিন্দা। গত ১৩ ডিসেম্বর দিল্লির জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়েও তিনি বক্তৃতা দেন। পুলিশের অভিযোগ, সেখানে উত্তেজক বক্তব্য পেশের পর পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। ওই বক্তব্য সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই তা ভাইরাল হয়।

Published by: Arindam Gupta
First published: January 28, 2020, 4:40 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर