দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

৩১ ডিসেম্বর ১৪৪ ধারা জারি হল বেঙ্গালুরু ও মেঙ্গালুরুতে

৩১ ডিসেম্বর ১৪৪ ধারা জারি হল বেঙ্গালুরু ও মেঙ্গালুরুতে
৩১ ডিসেম্বর অর্থাৎ আজ সন্ধ্যা ৬ টা থেকে পরদিন ভোর ৬টা পর্যন্ত জারি থাকবে ১৪৪ ধারা

বছরের শেষ দিনে বর্ষবরণের উৎসবে এবার রাশ টানল কর্ণাটক সরকার৷ করোনা সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে বেঙ্গালুরু ও মেঙ্গালুরু শহরে জারি হল ১৪৪ ধারা৷ নতুন নির্দেশিকা মেনে কোনও ক্লাব বা পাবে পার্টি করা যাবে না ওই সময়৷

  • Share this:

#মেঙ্গালুরু: বছরের শেষ দিনে বর্ষবরণের উৎসবে এবার রাশ টানল কর্ণাটক সরকার৷ করোনা সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে বেঙ্গালুরু ও মেঙ্গালুরু শহরে জারি হল ১৪৪ ধারা৷ ৩১ ডিসেম্বর অর্থাৎ আজ সন্ধ্যা ৬ টা থেকে পরদিন ভোর ৬টা পর্যন্ত মেঙ্গালুরুতে জারি থাকবে ১৪৪ ধারা৷ এই নিয়ম বেঙ্গালুরুতে  বলবৎ  হবে রাত ১২টা থেকে পরদিন ভোর ৬টা পর্যন্ত৷

মেঙ্গালুরুর পুলিশ কমিশনার বিকাশ কুমার ও অতিরিক্ত জেলা শাসক সরকারি নির্দেশ মেনেই এই নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন ওই শহরে৷ নতুন নির্দেশিকা মেনে কোনও ক্লাব বা পাবে পার্টি করা যাবে না ওই সময়৷ পাশাপাশি কোনও রেস্তোরাঁ বা অনান্য জায়গাতেও সামাজিক দূরীকরণ না মেনে বিপুল সংখ্যক মানুষের জমায়েত নিষিদ্ধ৷ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে রাস্তাঘাটে এক সঙ্গে ৫ জনের বেশি কেউ বর্ষবরণের আনন্দে মেতে উঠতে পারবেন না৷ কর্ণাটক সরকার আগেই জানিয়েছিল যে, এবছর তারা প্রকাশ্যে কোনও রকম বর্ষবরণের আনন্দে মানুষকে গা ভাসাতে দেবে না৷ ২৪ ঘণ্টা আগেই কর্ণাটকে নতুন করোনা ভাইরাসের হদিশ মিলছে সাতজনের শরীরে৷ ফলে কর্ণাটক বাড়তি সতর্তকা অবলম্বন করছে৷

শুধু কর্ণাটকই নয়, বছর শেষের জনসুনামিতে রাশ টেনেছে মহারাষ্ট্র, রাজস্থানের জয়পুর ও উত্তরপ্রদেশের লখনউ৷ মহারাষ্ট্রে আগামী ৫ জানুয়ারি পর্যন্ত নাইট কারফিউ (রাত ১১টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত) জারি থাকছে৷ সমস্ত রেস্তোরাঁ, হোটেল ও দোকানপাটের দরজা রাত ১১টার মধ্যেই বন্ধ করতে হবে৷ বছর শেষে উদ্বেগ আরও বাড়িয়েছে ব্রিটেনের নতুন করোনা স্ট্রেন।

অন্যদিক কলকাতা হাইকোর্ট পশিচমবঙ্গ সরকারকে নির্দেশ দিয়েছে কোভিডের নিয়ম সঠিকভাবে মেনে চলা হচ্ছে কিনা তার উপর কড়া নজরদারি করতে। কোর্ট আরও বলেছে, নববর্ষ পালনে যেন কোনও জনসমাবেশ না হয় শহরে৷

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজ্যের আধিকারিকদের বলেন, কোভিডের নিয়ম মেনে মানুষ চলছে কিনা, সে বিষয়ে নজরদারি করতে। তিনি এও বলেন, নতুন করোনা স্ট্রেনের জেরে নতুন করে সংক্রমণের হার বাড়তে পারে, একথা মনে রেখে তাঁদের নিজেদের প্রস্তুত রাখতে হবে।

রাজ্যের মুখ্য সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, মানুষ নিয়ম মেনে মাস্ক এবং স্যানিটাইজার যে ব্যবহার করছেন এই বিষয়টি নিশ্চিত করা জরুরি। নববর্ষ পালনে কলকাতার যে জায়গাগুলিতে ভিড় হয়, সেখানে প্রয়োজন হলে চেক পয়েন্ট বসাতে হবে।

Published by: Subhapam Saha
First published: December 31, 2020, 2:55 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर