• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • নো এন্ট্রিই বহাল নাকি মিলবে মণ্ডপে ঢোকার অনুমতি? পঞ্চমীতে হাইকোর্টের দিকে চেয়ে সব পক্ষ

নো এন্ট্রিই বহাল নাকি মিলবে মণ্ডপে ঢোকার অনুমতি? পঞ্চমীতে হাইকোর্টের দিকে চেয়ে সব পক্ষ

ত্রিশূল -এই অস্ত্র দেবী লাভ করেছিলেন শিবের কাছ থেকে। বলা হয়, শূলের তিনটি অগ্রভাগ আদতে সত্ত্ব, রজ, তম এই তিন গুণের প্রতীক। আদর্শ চরিত্রে এই তিনগুণেরই সামঞ্জস্য থাকা উচিত, সে কথাই বলে দুর্গার হাতের এই অস্ত্র।

ত্রিশূল -এই অস্ত্র দেবী লাভ করেছিলেন শিবের কাছ থেকে। বলা হয়, শূলের তিনটি অগ্রভাগ আদতে সত্ত্ব, রজ, তম এই তিন গুণের প্রতীক। আদর্শ চরিত্রে এই তিনগুণেরই সামঞ্জস্য থাকা উচিত, সে কথাই বলে দুর্গার হাতের এই অস্ত্র।

সোমবার রাজ্যের সমস্ত পুজো প্যান্ডেলর ভিতরকেই দর্শক শূন্য রাখার কথা জানিয়ে দেয় আদালত।

  • Share this:

    #কলকাতা: পুজো মণ্ডপে নো এন্ট্রি নাকি নতুন করে ভেবে দেখবে কলকাতা হাইকোর্ট? জানা যাবে আজই। সোমবারই দুর্গাপুজোয় মণ্ডপে ঢুকে প্রতিমা দর্শনে নিষেধাজ্ঞা জানিয়ে ঐতিহাসিক রায় দেয় কলকাতা হাইকোর্টে বিচারপতি সঞ্জীব বন্দোপাধ্যায়ের বেঞ্চ। সেই রায় পুনর্বিবেচনার আর্জি নিয়ে আজ অর্থাৎ চতুর্থীর দিন আদালতের দারস্থ হয়েছে ফোরাম ফর দুর্গোৎসব। জরুরি ভিত্তিত শুনানির আবেদন জানানো হলে, আজ অর্থাৎ বুধবার রায় পুনর্বিবেচনা করে মত জানাবে হাইকোর্ট। ফলে সব নজরই এখন আদালতের দিকে।

    এই আবেদনকারীদের মধ্যে মোট চারশো পুজো কমিটি রয়েছে। কলকাতার নামজাদা হেভিওয়েট পুজোগুলিও ফোরামের শরিক। তাঁরা চান মণ্ডপ দর্শকশূণ্য রাখার যে রায় দিয়েছে আদালত, তা পুনর্বিবেচনা করা হোক। এক পুজো কমিটির শীর্ষকর্তার কথায়, "আমরা প্রবল উৎকণ্ঠায় আছি। সব কিছুর জন্যেই প্রস্তুত। রায় যেনে পরবর্তী পদক্ষেপ করব।"

    প্রশাসনের তরফে অবশ্য রায়ের জন্যে অপেক্ষা না করে ব্যবস্থা নেওয়ার কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। দেশপ্রিয় পার্ক, সুরুচি সংঘ, ত্রিধারার মতো পুজোগুলিতে ভীড় নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে ৪৫-৬৫ জন পুলিশ অফিসার থাকবেন। জেলাগুলিকেও ব্যবস্থা নেওযা হচ্ছে সুবিধে বুঝে। কোথাও বাড়তি হোমগার্ড-সিভিক পুলিশ নেওয়ৈ হচ্ছে, কোথাও আবার অতিরিক্ত বাহিনী নামানো হচ্ছে। কিন্তু তৎপরতাটা ঠিক কী হবে তা বোঝা যাবে এদিনের রায়ের পরেই।

    সোমবার রাজ্যের সমস্ত পুজো প্যান্ডেলর ভিতরকেই দর্শক শূন্য রাখার কথা জানিয়ে দেয় আদালত। সোমবার রাজ্যের হয়ে হাইকোর্টে সওয়াল করছিলেন কিশোর দত্ত। অন্য দিকে, জনস্বার্থ মামলায় মামলাকারীদের পক্ষে লড়েন বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য। সওয়াল জবাব শেষে আদালত স্পষ্ট জানায়, সব মণ্ডপের চারপাশে ৫-১০ মিটার জায়গা জুড়ে ব্যারিকেড দিতে হবে। নো এন্ট্রি ঘোষণা করতে হবে এই ব্যারিকেড জোনকে। সেখানে প্রবেশাধিকার শুধুই উদ্যোক্তাদের। সেই কর্মকর্তাদের নামও ঝুলিয়ে দিতে হবে মণ্ডপের বাইরে। দূরত্ব বিধি প্রণয়নের দায়ভার কলকাতা পুলিশ এবং পুজো উদ্যোক্তাদের। আদালত আরও বলে, পুজোকমিটিগুলিকেই ভার্চুয়ালি পুজো দেখার বন্দোবস্ত করতে হবে। হাইকোর্টের আদেশ কী ভাবে কতটা পালিত হল তা হলফনামা দিয়ে জানাতে হবে ৫ নভেম্বর।

    Published by:Arka Deb
    First published: