লকডাউনের পর বেড়েছে রিয়েল এস্টেটে বিনিয়োগের ঝোঁক, বলছে নয়া সমীক্ষা

লকডাউনের পর বেড়েছে রিয়েল এস্টেটে বিনিয়োগের ঝোঁক, বলছে নয়া সমীক্ষা
আদি বিজেপি নামে দেওয়াল লিখন! পূর্ব বর্ধমানের গলসিতে ঘটনা ঘিরে চাঞ্চল্য

গত বছর মার্চ থেকে যেভাবে করোনা সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে এবং তার ফলে যে লকডাউনের মুখোমুখি আমাদের হতে হয়েছে, তাতে লাইফস্টাইলের সঙ্গে চি

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: করোনার জেরে পরিবর্তন এসেছে লাইফস্টাইলে। ওয়ার্ক ফ্রম হোমে অভ্যস্ত হয়েছে মানুষ। তবে, লকডাউনে ঘরবন্দি থাকায় বহু মানুষ বাড়িতে থাকার প্রয়োজনীয়তা বুঝেছে ও বাড়িতে জায়গা বাড়ানো নিয়ে পরিকল্পনা করেছে। কারণ একই জায়গায় সারা দিন অনেক মানুষ থাকলে অতিরিক্ত জায়গার প্রয়োজন হয় এবং ওয়ার্ক ফ্রম হোমের জন্যও আলাদা জায়গা লাগে। ফলে বেশিরভাগ মানুষ ঝুঁকি নিয়েও বাড়ি কেনার চেষ্টা করছেন, একই সঙ্গে বহু মানুষ বিনিয়োগ করছেন রিয়াল এস্টেটে। বলছে, নয়া সমীক্ষা।

গত বছর মার্চ থেকে যেভাবে করোনা সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে এবং তার ফলে যে লকডাউনের মুখোমুখি আমাদের হতে হয়েছে, তাতে লাইফস্টাইলের সঙ্গে চিন্তাধারাতেও পরিবর্তন এসেছে মানুষের। আর তার ফলেই এই পরিস্থিতিতে রিয়াল এস্টেটের দিকে ঝুঁকছে মানুষ।

CII-ANAROCK COVID-19 সেন্টিমেন্ট সমীক্ষা বলছে, লকডাউনের পরে, বিশেষ করে মার্চ ও এপ্রিল মাসের পরে অ্যাসেট হিসেবে জমি, বাড়ি বা ফ্ল্যাট কেনার প্রবণতা বেড়েছে। বিভিন্ন অনিশ্চিত পরিস্থিতি সত্ত্বেও এক্ষেত্রে প্রায় ৪৮ শতাংশ বৃদ্ধি দেখা গিয়েছে। তথ্য বলছে, H1 2020 হাউজিং সেলের নিরিখে H2 2020 হাউজিং সেল অনেকটা বেশি হয়েছে। মোট ৭টা শহরে H1 2020 হাউজিং সেল হয়েছে ৫৭,৯০০। সেখানে H2 হাউজিং সেল হয়েছে ৮০,৪০০। অর্থাৎ প্রায় ৩৯ শতাংশ বৃদ্ধি হয়েছে H2 সেলে।


এবার সঞ্চয়ের ক্ষেত্রে একেক মানুষের একেক পদ্ধতি থাকে। একেক ক্ষেত্র থাকে। কেউ FD-তে অর্থ সঞ্চয় করেন, তো কেউ সোনা কিনে! কিন্তু এই FD, সোনা, মিউচুয়াল ফান্ড বা ইকুইটির থেকে সব চেয়ে বেশি মানুষ সঞ্চয় করতে চান এই রিয়েল এস্টেটে। সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, প্রায় ৫৭ শতাংশ মানুষ এই ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করতে চান এবং ২৪ শতাংশ মানুষের দ্বিতীয় পছন্দ হয় এই রিয়াল এস্টেটই।

তবে, এক্ষেত্রে আরেকটা বিষয় বলা যেতে পারে। সোনার গহনায় বিনিয়োগও লকডাউনের পর বেড়েছে। এই পরিস্থিতিতে ১৮ শতাংশ মানুষ FD বা অন্যান্য স্কিমের থেকে সোনা কিনতে পছন্দ করেন এবং তাকেই বিনিয়োগ হিসেবে ধরেন। পাশাপাশি ১২ শতাংশ মানুষের প্রথম পছন্দ সোনায় বিনিয়োগ।

এবিষয়ে ANAROCK গ্রুপের অনুজ পুরি বলেন, এই ওয়ার্ক ফ্রম হোমের পরিস্থিতিতে যখনই সব কিছু স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে, তখনই আমরা এই বাড়ি কিনতে চাওয়া মানুষগুলির উপরে সমীক্ষা করি। তাঁরা কী চাইছেন সেটা বোঝার চেষ্টা করি। আমরা তাতে দেখেছি, উপভোক্তাদের পছন্দ অতিমারীর আগে ও পরে অনেকটাই পালটেছে। এবং নতুন অনেক বিষয় যুক্ত হয়েছে। অতিমারীর আগে যেখানে মানুষ সোনা ও ফিক্সড ডিপোসিট বা FD-তে সঞ্চয় করতেন, এখন সেখানে ৬২ শতাংশ বেশি মানুষ বাড়ি ও জমি কিনছেন। এটাকে করোনা থেকে নেওয়া শিক্ষাও বলা যেতে পারে।

সমীক্ষা আরও বলছে, যাঁরা বাড়ি বা জমি কেনার দিকে ঝুঁকছেন বা ফ্ল্যাটের খোঁজ করছেন, তাঁদের প্রায় ২৪ শতাংশ মানুষ ব্র্যান্ডেড কোনও সংস্থা থেকে কিনতে চাইছেন।

First published:

লেটেস্ট খবর