corona virus btn
corona virus btn
Loading

LAC-তে বিপুল সেনা মোতায়েন করেছে চিন, স্বীকার করেও আলোচনাতেই আস্থা রাজনাথের

LAC-তে বিপুল সেনা মোতায়েন করেছে চিন, স্বীকার করেও আলোচনাতেই আস্থা রাজনাথের
চিন আগ্রাসী মনোভাব দেখালেও আলোচনাতেই আস্থা ভারতের৷ PHOTO- FILE

চিনের পাল্টা ভারতও ওই অঞ্চলের সেনা বাড়াতে শুরু করেছে৷ দু' দেশের সামরিক বাহিনীই নিজেদের ঘাঁটিতে প্রচুর পরিমাণে অস্ত্রশস্ত্র মজুত করতেও শুরু করেছে৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর এলাকায় বিপুল সংখ্যক সেনা মোতায়েন করেছে চিন৷ সিএনএন নিউজ ১৮-কে দেওয়া এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারে একথা স্বীকার করে নিলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং৷ তবে ভারত যে এখনও আলোচনার মাধ্যমেই উত্তেজনা প্রশমনে আগ্রহী, সেকথাও জানিয়েছেন রাজনাথ সিং৷ আলোচনার পরিবেশ যাতে নষ্ট না হয়, সেজন্য এখনই চিনের উদ্দেশ্য নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে রাজি হননি প্রতিরক্ষামন্ত্রী৷

রাজনাথ দাবি করেছেন, সেনাপ্রধান এম এম নারভানে তাঁকে জানিয়েছেন, আগামী ৬ জুন ভারত এবং চিনে সামরিক বাহিনীর শীর্ষকর্তাদের মধ্যে একটি বৈঠক রয়েছে৷ শান্তিপূর্ণ ভাবেই সমস্যার সমাধান হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী৷

২০১৭ সালে ৭৩ দিন ধরে চলা ডোকলাম বিবাদের কথা মনে করিয়ে দিয়ে রাজনাথ বলেন, 'এই ধরনের সমস্যা আগেও হয়েছে এবং তার সমাধান সূত্রও বেরিয়েছে৷'

দু' দেশের মধ্যে যখন আলোচনার পরিবেশ রয়েছে এবং দেশ মহামারির মোকাবিলা করছে, তখন পূর্ব লাদাখে চিনা সামরিক বাহিনীর তৎপরতা বৃদ্ধির পিছনে কোনও উদ্দেশ্য খুঁজতে বা সন্দেহ প্রকাশ করতে নারাজ রাজনাথ৷ প্রতিরক্ষা মন্ত্রী অবশ্য স্বীকার করেছেন, দু' দেশের মধ্যে কথা না হলে তিনি নিশ্চয়ই এ বিষয়ে নিশ্চয়ই কিছু বলতেন৷ তিনি বলেন, 'চিনা নেতৃত্বও জানিয়েছেন যে তাঁরাও আলোচনার মাধ্যমে বিবাদের নিষ্পত্তি চান৷'

গত প্রায় এক মাস ধরে লাদাখে ভারত এবং চিনের মধ্যে প্রকৃত নিয়ন্ত্ররেখা বরাবর এলাকায় উত্তপ্ত হয়ে রয়েছে পরিস্থিতি৷ গত ৫ মে চিন এবং ভারতীয় বাহিনীর মধ্যে একপ্রস্ত হাতাহাতি এবং পাথর ছোড়াছুড়ির ঘটনাও ঘটেছিল৷ পরে সিকিমের না কুলা পাসেও দু' দেশের বাহিনী সংঘর্ষে জড়ায়৷

উপগ্রহে চিত্রে দেখা গিয়েছে, লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার ওপারে চিনা বাহিনীর তৎপরতা অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে৷ লাদাখের প্যাংগং সো লেক, গালওয়ান উপত্যকায় প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার ওপারে বিপুল সংখ্যক বাহিনী মোতায়েন করেছে চিন৷ ওই এলাকায় অন্তত ২৫০০ চিনা সেনা মোতায়েন করা হয়েছে বলেও খবর৷ এ সবই ভারতের উপরে চাপ বাড়ানোর জন্য চিনের কৌশল বলে মনে করছে নয়াদিল্লি৷

চিনের পাল্টা ভারতও ওই অঞ্চলের সেনা বাড়াতে শুরু করেছে৷ দু' দেশের সামরিক বাহিনীই নিজেদের ঘাঁটিতে প্রচুর পরিমাণে অস্ত্রশস্ত্র মজুত করতেও শুরু করেছে৷ ফলে উত্তেজনা ক্রমশই বাড়ছে৷ তবে রাজনাথের কথায় স্পষ্ট, এখনও আলোচনাতেই আস্থা রাখতে চায় ভারত৷

Published by: Debamoy Ghosh
First published: June 3, 2020, 10:08 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर