কাশ্মীর নিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে সংঘাতে কংগ্রেসের

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Aug 14, 2019 12:17 PM IST
কাশ্মীর নিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে সংঘাতে কংগ্রেসের
Photo: News 18 Bangla
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Aug 14, 2019 12:17 PM IST

#জম্মু-কাশ্মীর: তিনশো সত্তর ধারার বিলোপ নিয়ে ফের মোদি সরকারের সঙ্গে সংঘাতে কংগ্রেস। নাম না করে সোমবার রাহুলকে উপত্যকায় আসতে প্রস্তাব দেন জম্মু-কাশ্মীরের রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক। প্রয়োজনে তাঁকে বিমান পাঠানো হবে বলেও কটাক্ষ করেন। মঙ্গলবার জবাবে রাহুলের টুইট, বিমান নয়, চাই স্বাধীনতা। প্রাক্তন সভাপতির টুইটে চাঙ্গা কংগ্রেস। দাবি, উপত্যকায় অবিলম্বে ঢুকতে দিতে হবে বিরোধীদের। উপত্যকায় কেন্দ্রীয় শাসন চালুর পর গত শনিবার এটাই ছিল কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধির উদ্বেগ। অভিযোগ করেছিলেন, দেশবাসীকে অন্ধকারে রেখে কাশ্মীর থেকে তিনশো সত্তর প্রত্যাহারের ভুল সিদ্ধান্তকে ধামাচাপা দিতে চাইছে মোদি সরকার। সোমবার রাহুলের এই অভিযোগ উড়িয়ে দেন জম্মু-কাশ্মীরের রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক। নাম না করে কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধিকে তাঁর কটাক্ষ....তিনি একজন দায়িত্ববান রাজনীতিক। উপত্যকার পরিস্থিতি কী ? তা দেখতে এখানে আসতে হবে। পরিস্থিতি সম্পর্কে বলতে হলে আর একটু জানতে হবে। তিনি প্রস্তাব দিচ্ছেন, কাশ্মীরে এসে রাহুলকে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখার জন্য। প্রয়োজনে রাহুলের জন্য বিমানের ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে।

ওয়াইনাডের বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও রাজনৈতিক মহলের দাবি, জম্মু-কাশ্মীরের রাজ্যপালের এই প্রস্তাবকে চ্যালেঞ্জ হিসেবেই নিয়েছেন কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি। মঙ্গলবার পালটা জবাব রাহুলের...বিরোধীদের পক্ষ থেকে তিনি প্রস্তাব গ্রহণ করছেন। তিনি জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখের পরিস্থিতি দেখতে চান। তাঁর বিমানের প্রয়োজন নেই। প্রয়োজন স্বাধীনতার। উপত্যকার বাসিন্দা, রাজনীতিক এবং ওখানে কর্তব্যরত সেনাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলার স্বাধীনতা চান তিনি। রাহুলের এই টুইটের পরেই চাঙ্গা কংগ্রেস। এতদিন কাশ্মীর প্রসঙ্গে দিশা খোজার চেষ্টা হচ্ছিল। রাজনৈতিক মহলের দাবি, প্রাক্তন সভাপতির টুইটকে হাতিয়ার করেই মোদি সরকারের বিরুদ্ধে সরাসরি সংঘাতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সোনভদ্র সফরে গিয়েও কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গান্ধি বঢ়রাও মনে করিয়ে দিলেন, কী হতে চলেছে কাশ্মীর প্রসঙ্গে মোদি সরকারে বিরোধিতায় কংগ্রেসের লাইন।

এদিকে, উপত্যকায় বিরোধীদের ঢুকতে দেওয়া হবে কিনা, সেই ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসন। কেন্দ্রীয় এই সিদ্ধান্তের পরেই সুর বদল রাজ্যপাল সত্যপাল মালিকের। কাশ্মীর নিয়ে রাহুলের আশঙ্কা অমূলক। বিক্ষিপ্ত ঘটনা ছাড়া শান্ত কাশ্মীর। ভুয়ো খবরের ভিত্তিতে মন্তব্য রাহুলের। সম্ভবত পাকিস্তান থেকে খবর পেয়েছেন তিনি।রাজ্যপালের সুর বদলের পরেও, কাশ্মীর নিয়ে কংগ্রেসেরই এই অবস্থানকে আমল দিতে নারাজ বিজেপি। রাজনৈতিক এই চাপান-উতোরের মধ্যেই কেন্দ্রীয় শাসনে বৃহস্পতিবার প্রথম স্বাধীনতা দিবস উপত্যকায়। মঙ্গলবার শুরু হল তার প্রস্তুতি। শের-ই-কাশ্মীর স্টেডিয়ামে মহড়াতে নতুন রং। এই পরিস্থিতি প্রতিশ্রুতি মতো স্বাধীনতা দিবসের পরে জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখে ব্যাপক উন্নয়নের হাওয়া বইতে চলেছে। সরকারি সূত্রে দাবি, ওই অঞ্চলের মানুষদের বোঝানো হবে তিনশো সত্তর ধারা বাতিলের ফলে তাঁদের কী সুবিধা হবে। সরকারি উন্নয়নে হাতিয়ার উপত্যকার সংবাদমাধ্যম। চোদ্দই অগাস্ট পাক অধিকৃত কাশ্মীরের রাজধানী মুজ্্জফরাবাদে ভাষণ দিতে চলেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

First published: 12:17:27 PM Aug 14, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर