মোদির বিরোধিতা করলে মোহন ভাগবতকেও সন্ত্রাসবাদী বলা হবে: রাহুল

মোদির বিরোধিতা করলে মোহন ভাগবতকেও সন্ত্রাসবাদী বলা হবে: রাহুল

মোদির বিরোধিতা করলে মোহন ভাগবতকেও সন্ত্রাসবাদী বলা হবে: রাহুল

রাহুল গান্ধি বলছেন, মোদির বিরুদ্ধে যাঁরাই কথা বলেছেন, তাঁদের সন্ত্রাসবাদী আখ্যা দেওয়া হয়েছে৷ এমন কাজ আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত করলে তাঁকেও সন্ত্রাসবাদী তকমা দেওয়া হবে৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ফের একবার কড়া ভাষায় আক্রমণ করলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধি৷ তিনি বলছেন, মোদির নেতৃত্বে "দেশে কোনও গণতন্ত্র নেই৷" প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতির বক্তব্য, মোদির বিরুদ্ধে যাঁরাই কথা বলেছেন, তাঁদের সন্ত্রাসবাদী আখ্যা দেওয়া হয়েছে৷ এমন কাজ আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত করলে তাঁকেও সন্ত্রাসবাদী তকমা দেওয়া হবে৷

    বৃহস্পতিবার কেন্দ্রের কৃষি আইনের প্রতিবাদে কংগ্রেসের রাষ্ট্রপতি ভবন অভিযান ছিল৷ বিতর্কিত নয়া কৃষি আইনের বিরুদ্ধে দু'কোটি স্বাক্ষর নিয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে একটি স্মারকপত্র জমা দিতে গিয়েছিল কংগ্রেস৷ যদিকংগ্রেসের এই অভিযানে প্রথমে বাধা দেয় পুলিশ। প্রিয়াঙ্কা গান্ধী-সহ আরও কয়েকজন কংগ্রেস নেতাকে হেফাজতে নিয়েছিল দিল্লি পুলিশ। পরে রাহুল অ্যান্ড কোং রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করেন৷

    রাহুল এদিন সাংবাদিকদের বলছেন, "প্রধানমন্ত্রী তাঁর পুঁজিবাদী বন্ধুদের টাকা তৈরি করছেন৷ যেই তাঁর বিরুদ্ধে বলবে তাঁকে সন্ত্রাসবাদী আখ্যা দেওয়া হবে৷ সেটা কৃষক হোক, শ্রমিক! এমনকী মোহন ভাগবতও৷  এই দেশে কোনও গণতন্ত্র নেই৷ যদি কেউ ভাবে আছে তাহলে সে কল্পনার জগতে বাস করছে৷"

    রাহুল মোদিকে আক্রমণ করে আরও কড়া ভাষায় বললেন, "এই দেশের যুবসমাজ এবং সমস্ত জনগণের যা জানা উচিত যে, দেশের প্রধানমন্ত্রী একজন অযোগ্য ব্যক্তি, যিনি কিছুই জানেন না। তিনি একজন অযোগ্য ব্যক্তি যিনি কেবল কট্টর পুঁজিবাদীদের কথা শোনেন। তাঁরা যা বলেন মোদি তাই করেন৷"

    রাহুলের আরও সংযোজন, "কৃষক ও শ্রমিকরা এখন ঐক্যবদ্ধ হয়েছে৷ তবে বরাবরের মতো, যেই মুহূর্তে কেউ সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলেছে, তাঁকে দেশদ্রোহী কিংবা সন্ত্রাসবাদী হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এটি অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক৷ তবে এটাই হচ্ছে  জনগণের কণ্ঠরোধ করা হচ্ছে৷"

    দু'দিন আগেই তথ্যের অধিকার আইনে একটি তথ্য প্রকাশিত হয়৷ যেখানে বলা হয়েছে, ইউপিএ সরকারের ১০ বছরে ব্যাঙ্কগুলি যত ঋণ মকুব করেছে, মোদি সরকার পাঁচ বছরে তার তিন গুণ বেশি ঋণ মকুব করেছে। রাহুল এই ঘটনাকে মোদি সরকারের ‘নতুন কীর্তিস্তম্ভ’ বলে কটাক্ষ করেছিলেন। তাঁর অভিযোগ ছিস, দেশের সাধারণ মানুষের উপর হামলা চালালেও মোদি সরকার তাঁর ‘মিত্রোঁ’ দের বাঁচাতে ব্যস্ত।

    Published by:Subhapam Saha
    First published: