দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

'কেন্দ্রের কাছে হিসেব নেই, সুতরাং কোনও পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু হয়নি?' তীব্র আক্রমণ রাহুলের

'কেন্দ্রের কাছে হিসেব নেই, সুতরাং কোনও পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু হয়নি?' তীব্র আক্রমণ রাহুলের
Rahul Gandhi

পরিযায়ী শ্রমিক ইস্যুতেই আজ অর্থাত্‍ মঙ্গলবার কেন্দ্রকে নিশানা করলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধি৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: লকডাউনের সময়ে বাড়ি ফেরার পথে কত জন পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছিল, কতজন কাজ হারিয়েছেন, তা নিয়ে কেন্দ্র স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, কোনও হিসেব নেই সরকারের কাছে৷ তাই ক্ষতিপূরণ দেওয়ার প্রশ্ন ওঠে না৷ সেই পরিযায়ী শ্রমিক ইস্যুতেই আজ অর্থাত্‍ মঙ্গলবার কেন্দ্রকে নিশানা করলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধি৷

গত শনিবার সনিয়া গান্ধির মেডিক্যাল চেক-আপের জন্য সনিয়া ও রাহুল একসঙ্গে আমেরিকায় গিয়েছেন৷ ফলে বাদল অধিবেশনে অর্ধেকের বেশি সময় তাঁরা দু জনেই উপস্থিত থাকতে পারছেন না৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকেই ট্যুইটারে কেন্দ্রকে কড়া আক্রমণ করলেন রাহুল৷ তাঁর বক্তব্য, সরকারের কাছে কোনও ডেটা নেই মানে, লকডাউনের সময়ে কোনও পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু হয়নি৷

ট্যুইটারে রাহুল লিখেছেন, 'মোদি সরকার জানে না, কতজন পরিযায়ী শ্রমিক মারা গিয়েছেন ও কতজন রোজগার হারিয়েছেন লকডাউন চলাকালীন৷ আপনারা হিসেব রাখেননি, তার মানে কেউ মারা যায়নি? দুঃখের বিষয় হল, সরকারের কিছু যায় আসেনি৷ গোটা বিশ্ব ওই মৃত্যুগুলি দেখেছে, শুধু মোদি সরকারই খবর পায়নি৷'

লোকসভায় বাদল অধিবেশনের প্রথম দিন অর্থাত্‍ সোমবার বিরোধীরা প্রশ্ন তোলেন, লকডাউনের ফলে কোন রাজ্যে কতজন পরিযায়ী শ্রমিক কাজ হারিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মারা গিয়েছেন, তার বিস্তারিত হিসেব দিক কেন্দ্র৷ এবং সরকার ওই মৃত পরিযায়ী শ্রমিকদের পরিবারগুলিকে কী ক্ষতিপূরণ দিচ্ছে৷ কেন্দ্র উত্তরে জানায়, কতজন পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে লকডাউনে তার কোনও হিসেব কেন্দ্রের কাছে নেই৷ সুতরাং ক্ষতিপূরণ দেওয়ার প্রশ্ন ওঠে না৷

কেন্দ্রীয় শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী সন্তোষ কুমার গঙ্গওয়ার বলেন, 'একটি রাষ্ট্র হিসেবে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার, রাজ্য সরকার, স্থানীয় প্রশাসন, স্বনির্ভর গোষ্ঠী, স্বাস্থ্য কর্মী, সাফাইকর্মী ও বহু স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা একযোগে করোনা ভাইরাসের মোকাবিলায় কাজ করছে ও দেশজুড়ে লকডাউনে সাড়া দিয়েছে৷'

Published by: Arindam Gupta
First published: September 15, 2020, 12:27 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर