‘রাফাল দুর্নীতি ফাঁস করতে জেপিসি তদন্ত হওয়া উচিত’, ট্যুইট রাহুলের

‘রাফাল দুর্নীতি ফাঁস করতে জেপিসি তদন্ত হওয়া উচিত’, ট্যুইট রাহুলের

রাফাল নিয়ে এবার জেপিসি অর্থাৎ জয়েন্ট পার্লামেন্টারি তদন্তের দাবি তুললেন কংগ্রেসের প্রাক্তন অধ্যক্ষ রাহুল গান্ধি

  • Share this:

#নয়াদিল্লি:  রাফাল নিয়ে এবার জেপিসি অর্থাৎ জয়েন্ট পার্লামেন্টারি তদন্তের দাবি তুললেন কংগ্রেসের প্রাক্তন অধ্যক্ষ রাহুল গান্ধি ৷ রাফাল মামলায় পুনর্বিবেচনার আর্জি খারিজ করে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট । কিন্তু, এরপরেও একে পরাজয় হিসেবে দেখছেন না। তাঁর দাবি, বিচারপতি কে এম জোসেফ তাঁর রায়ে রাফাল তদন্তের জন্য বিরাট দরজা খুলে দিয়েছেন। যৌথ সংসদীয় কমিটি তৈরি করে তদন্তের দাবিতেও সরব হয়েছেন রাহুল।

বৃহস্পতিবারই রাফাল নিয়ে রায় দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট ৷ রাফাল নিয়ে রায় দেয় ৩ বিচারপতির বেঞ্চ ৷ তিন বিচারপতির মধ্যে বিচারপতি কে এন জোসেফ তদন্তের পক্ষে সওয়াল করেন ৷ সেই বিচারপতির সওয়ালকে ভিত্তি করেই রাহুল ট্যুইট করে জেপিসি তদন্তের দাবি তুলেছেন ৷ সুপ্রিম কোর্টের রাফাল রায়ের পর এদিন সোনিয়া পুত্র রাহুল ট্যুইটে করেন, ‘সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি কে এন জোসেফ রাফাল দুর্নীতি মামলায় নতুন দিশা দিয়েছেন ৷ রাফাল দুর্নীতির তদন্তের জন্য বিরাট দরজা খুলে দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি জোসেফ। তদন্ত শুরু করা উচিত। যৌথ সংসদীয় কমিটি গড়েও তদন্ত হওয়া উচিত। ’

রাহুলের দাবি প্রশ্ন তুলে দিল, তা হলে কি রাফাল মামলায় এ দিন তিন বিচারপতির বেঞ্চ যে রায় দিল, তা সর্বসম্মত নয়? বিচারপতি কে এম জোসেফের কি ভিন্ন মত ছিল? যদিও দুর্নীতির অভিযোগ উড়িয়ে গত ডিসেম্বরেই রাফাল চুক্তিতে সিবিআই তদন্তের দাবি খারিজ করেছিল সুপ্রিম কোর্ট। সেই রায় পুনর্বিবেচনার আরজি জানান দুই প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী যশবন্ত সিনহা, অরুণ শৌরি এবং আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ। বৃহস্পতিবার সেই আর্জি খারিজ করে দিয়ে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের বেঞ্চ জানাল, রাফাল চুক্তিতে এফআইআর দায়ের করা বা তদন্তের কোনও প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না ৷ আগের রায় পুনর্বিবেচনার আর্জি অপ্রয়োজনীয় ৷

মোদি সরকারের স্বস্তির দিনেই সুপ্রিম কোর্টে মামহানি মামলায় স্বস্তি পেলেন রাহুল গান্ধি। লোকসভা ভোটের প্রচারে রাফাল চুক্তিতে দুর্নীতির অভিযোগকে অস্ত্র করেছিলেন রাহুল। তুলেছিলেন চৌকিদার চোর হ্যায় স্লোগান ৷ রাফাল চুক্তির কয়েকটি নথি আদালতে পেশ করতে আপত্তি করে কেন্দ্র ৷ ১০ এপ্রিল সুপ্রিম কোর্ট কেন্দ্রের আপত্তি খারিজ করে দেয় ৷ তারপরই রাহুল বলেন, সর্বোচ্চ আদালত মেনে নিয়েছে চৌকিদার চোর হ্যায় ৷ এরপরই রাহুলের বিরুদ্ধে মামহানির মামলা করেন বিজেপি নেত্রী মীনাক্ষী লেখি। নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়ে নেওয়ায়, এদিন স্বস্তি পেলেন কংগ্রেস নেতা। তবে প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতিকে সতর্কও করেছেন বিচারপতিরা।

 অনেকে মনে করছেন, সংসদে আসন্ন শীতকালীন অধিবেশনে, ফের রাফালে দুর্নীতির অভিযোগে, জেপিসি তদন্তের দাবিকে হাতিয়ার করতে পারে কংগ্রেস। যার সুর এ দিন বেঁধে দিলেন রাহুল গান্ধি।

First published: 05:03:54 PM Nov 14, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर