দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

সাত বছর ধরে নির্ভয়ার ধর্ষকদের বাঁচিয়েছেন এই আইনজীবী, কে এই এ পি সিং

সাত বছর ধরে নির্ভয়ার ধর্ষকদের বাঁচিয়েছেন এই আইনজীবী, কে এই এ পি সিং
ধর্ষকদের আইনজীবী এপি সিংহ

সাত বছর আগে দিল্লির সকেত আদালতে লড়াই শুরু করেন এফি সিংহ। অক্ষয় এবং বিনয়ের হয়ে লড়াই শুরু করেছিলেন তিনি। তাঁর প্রথম চালই ছিল নির্ভয়ার চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন তোলা। আজ সাত বছর পরেও সেই কৃতকর্ম নিয়ে তিনি অনুতপ্ত নন। প্রশ্ন করলে পাল্টা বলেন, নির্ভয়ার সংস্কৃতি আমার সংস্কৃতি নয়।

  • Share this:

#নয়াদিল্লিঃ শেষ মুহূর্তেও লড়াই থামাননি। ছুটে গিয়েছিলেন সুপ্রিম কোর্টে এবং দিল্লি হাইকোর্টের দরজায়।যদিও তাতেও শেষরক্ষা হয়নি। তবে নির্ভয়ার বিচার পাওয়ার যাত্রায় অন্তরায় হিসেবে তাঁর নাম কালো অক্ষরে লেখা রইল। তিনি এ পি সিং, নির্ভয়ার ধর্ষকদের পক্ষের আইনজীবী।

শুক্রবার ভোরে ফাঁসি কার্যকর হওয়ার কিছুক্ষণ আগে বিচারপতি আর ভানুমতি, বিচারপতি অশোকভূষণ এবং বিচারপতি এ এস বোনাপ্পার বেঞ্চ তাঁকে ফিরিয়ে বলে , রায় স্থগিত করার কোনও কার্যকারণ খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

বলা চলে. নির্ভয়ার মাকে বারবার অন্ধকারে ঠেলে দিয়েছেন এই আইনজীবী। ২০১২ সালে আশাদেবীর মেয়ের সঙ্গে যে বর্বরতা হয়, তাঁর ন্যায়বিচার নিয়ে ধন্ধে পড়ে যান আশাদেবী। প্রকাশ্যে চোখ রাঙিয়ে তাঁকে এপি সিংহ বলেন, এই মামলা কখনও শেষই হবে না। বিচারপ্রার্থীরা হতাশ হয়েছেন, চিতকার করে ধিক্কার জানিয়েছেন, প্রকাশ্যে বলেছেন, ওকেই ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দেওয়া উচিত। কিন্তু লড়াই থামাননি নির্ভয়ার মা। সেই নাছোড় লড়াইই শেষ হল শুক্রবার সকাল সাড়ে পাঁচটায়।

অজয়প্রকাশ সিং-এর বর্তমান বয়েস ৪৫। লখনউ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক তিনি। ১৯৯৭ সাল থেকে তিনি সুপ্রিম কোর্টে পেশাদার আইনজীবী হিসেবে সওয়াল করেছেন। অপরাধ বিজ্ঞান তাঁর গবেষণার বিষয়। গুলে খেয়েছেন অপরাধীদের মনস্তত্ব। সেই ক্ষমতাকেই কাজে লাগিয়েছিলেন এই ব্যক্তি। সিএনএন নিউজ-১৮ কে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে এখকবার এপি সিংহ বলেন, "অক্ষয়ের স্ত্রী গ্রাম থেকে এসছেন স্বামীর সঙ্গে দেখা করতে। আপনারা অনুগ্রহ করে তাঁকে আমার নম্বর দিয়ে দিন। আমার বাবা মা আমায় আশির্বাদ করছেন কারণ আমি এই মেয়েটির জন্যে লড়ছি।"

সাত বছর আগে দিল্লির সকেত আদালতে লড়াই শুরু করেন এ পি সিং। অক্ষয় এবং বিনয়ের হয়ে লড়াই শুরু করেছিলেন তিনি। তাঁর প্রথম চালই ছিল নির্ভয়ার চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন তোলা। আজ সাত বছর পরেও সেই কৃতকর্ম নিয়ে তিনি অনুতপ্ত নন। প্রশ্ন করলে পাল্টা বলেন, নির্ভয়ার সংস্কৃতি আমার সংস্কৃতি নয়। ভোটের রাজনীতির জন্যে এই ফাঁসি কার্যকর করা হচ্ছে এমনও বলতে শোনা গিয়েছে এপি সিংহকে।

এ পি সিং-এর নিজেরও মেয়ে আছে। রয়েছে এক পুত্রও। নির্বিকার মুখে তিনি বলে যেতে পারেন, আমার মেয়ে যদি বিয়ের আগে কোনও সম্পর্কে জড়ায় আমি তাকে ফার্ম হাউজে নিয়ে গিয়ে গায়ে পেট্রোল ঢেলে পুড়িয়ে মারব।

সাত বছর তাঁর বৃষকন্ধেই আটকে ছিল নির্ভয়ার শেষ বিচার। এই লড়াই আন্তর্জাতিক খ্যাতি দিয়েছে তাঁকে। কিন্তু এদিন দিল্লির ওই প্যারামেডিক্যাল ছাত্রী বিচার পাওয়ার পরে বিচারপ্রার্থীরা বলছেন, সময় লাগল তবে অমানবিকতার বিরুদ্ধে জিতল মানবিকতা।

Published by: Arka Deb
First published: March 20, 2020, 7:03 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर