সমর্থকদের লাঠিচার্জ করছে পুলিশ, পিঠ পেতে দিলেন প্রিয়াঙ্কাই

ধস্তাধস্তির মধ্যে প্রিয়াঙ্কা। ছবি-ANI

দলীয় কর্মীদের পুলিশি লাঠিচার্জ থেকে বাঁচাতে পিঠ পেতে দিতে দেখা গেল প্রিয়াঙ্কাকেই।

  • Share this:

    #লখনউ: ট্যুইটারে দেখা মেলে তাঁদের। কিন্তু বিরোধিতা করতে গেলে পথে নামতেই হবে। বারবার এমনটাই পরামর্শ দিচ্ছিলেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। পথে নামলেন রাহুল ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধি। দলীয় কর্মীদের পুলিশি লাঠিচার্জ থেকে বাঁচাতে পিঠ পেতে দিতে দেখা গেল প্রিয়াঙ্কাকেই।

    শনিবার হাতরাস যাওয়ার পথে নয়ডায় ডিএনডি ব্রিজে টোল প্লাজায় আটকানো হয় রাহুল প্রিয়াঙ্কাকে। শুরু হয় দফায় দফায় অশান্তি। কংগ্রেস সমর্থকদের লাঠিচার্জ করতেও উদ্যত হয় উত্তরপ্রদেশ পুলিশ।ধস্তাধস্তির মধ্যে দেখা যায় দলীয় সমর্থকদের আগলে রেখেছেন প্রিয়ঙ্কা।

    বেশ কিছুক্ষণ বাদানুবাদের পর স্থির হয় হাতরস যেতে পারবেন রাহুল প্রিয়াঙ্কা। তাঁদের সঙ্গে যেতে পারবেন তিন অনুগামী।

    স্টিয়ারিংয়ে বসে যাত্রা শুরু করেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। পাশের সিটে ভাই রাহুল। পাশাপাশি ৩৫ জন কংগ্রেস সাংসদও রওনা হয়েছেন হাতরসের দিকে।

    বৃহস্পতিবার প্রথম ওই দলিত তরুণীর পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে হাতরাসে যাওয়ার চেষ্টা করেন রাহুল গান্ধি। যমুনা সেতুত পুলিশের সঙ্গে প্রবল ধাক্কাধাক্কির মধ্যে পড়েন রাহুল। পুলিশের যুক্তি, পরিস্থিতি বেসামাল হওয়ায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে হাতরাসে। তাই যাওয়া চলবে না হাতরসে। রাহুল-প্রিয়াঙ্কারা সেই নির্দেশ অমান্য করে এগোতেই শুরু হয়ে যায় ধাক্কাধাক্কি। রাহুল গান্ধি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, "আমাদের গাড়ি আটকে দিয়েছে, তাই আমরা পায়ে হেঁটেই এগোচ্ছিলাম। এর মধ্যেই পুলিশ লাঠিচার্জ করে। আমাকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেওয়া হয়। এ দেশে কি শুধু নরেন্দ্র মোদিই হাঁটবেন? সাধারণ মানুষের হাঁটারও অধিকার নেই?"

    এদিন ট্যুইটারেও প্রিয়ঙ্কা জোরালো সওয়াল করেন নির্যাতিতার পক্ষে। তার বক্তব্য- নির্যাতিতার সঠিক চিকিৎসা হয়নি। সময়মতো অভিযোগ নেওয়া হয়নি। জবরদস্তি দেহ জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি এখন দলিত তরুণীর পরিবারকে চাপ দেওয়া হচ্ছে।

    প্রসঙ্গত ১৪ সেপ্টেম্বর ধর্ষিতা হন ওই নির্যাতিতা। নানা মহলের চাপে আজ প্রথমবার উচ্চপদস্থ কর্তারা ওই দলিত কন্যার বাড়ি যান। সমস্ত বয়ান শুনে তাঁরা রিপোর্ট করেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে।

    Published by:Arka Deb
    First published: