corona virus btn
corona virus btn
Loading

ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষা মৌলিক অধিকার, ঐতিহাসিক রায় সুপ্রিম কোর্টের

ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষা মৌলিক অধিকার, ঐতিহাসিক রায় সুপ্রিম কোর্টের

ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষা মৌলিক অধিকার ৷ বৃহস্পতিবার ঐতিহাসিক রায় দিল সুপ্রিম কোর্ট ৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষা দেশের নাগরিকদের মৌলিক অধিকার। তাৎক্ষণিক তিন তালাককে বাতিলের পর আরও এক ঐতিহাসিক রায় সুপ্রিম কোর্টের। শীর্ষ আদালতের নয় সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ এবার একসুরে জানিয়ে দিল, ব্যক্তিগত গোপনীয়তা সংবিধানস্বীকৃত অধিকার। জীবন ও স্বাধীনতার অধিকারের সঙ্গে সহজাতভাবেই জড়িয়ে। সেইসঙ্গে এই সংক্রান্ত আগের সমস্ত মামলার রায়ও খারিজ করে দিয়েছে ওই সাংবিধানিক বেঞ্চ।

দেশের নাগরিকরা কী গোপনীয়তা বজায় রাখতে পারবেন না? নাকি সমস্ত তথ্যই থাকবে রাষ্ট্রের নজরদারির আওতায়? নাগরিকদের সাংবিধানিক অধিকার নিয়ে প্রশ্ন তুলে এই বিতর্ক জন্ম নেয় ১৯৫৪ সালে।

কীভাবে বিতর্কের জন্ম?

এম পি শর্মা বনাম দিল্লির জেলাশাসক - ১৯৫৪ সালে ডালমিয়া গ্রুপ নামে একটি সংস্থায় পুলিশি তল্লাশি - সংস্থার প্রচুর গোপন নথি বাজেয়াপ্ত করা হয় - গোপনীয়তা রক্ষা মৌলিক অধিকার বলে দাবি করে সুপ্রিম কোর্টে যায় ওই সংস্থা - সুপ্রিম কোর্টের ৮ সদস্যের বেঞ্চ তাকে মৌলিক অধিকার বলে স্বীকার করেনি

তার কয়েক বছর পরই ফের একই প্রশ্ন নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন।

কীভাবে বিতর্কের জন্ম? খড়ক সিং বনাম উত্তরপ্রদেশ সরকার - ডাকাতির অভিযোগে গ্রেফতার হয়েও বেকসুর খালাস হন খড়ক সিং নামে এক ব্যক্তি - তাঁকে নজরদারির আওতায় রাখে উত্তরপ্রদেশ সরকার - ১৯৬২ সালে ওই নজরদারির বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেন খড়ক সিং - ৬ বিচারপতির বেঞ্চও গোপনীয়তা রক্ষা মৌলিক অধিকার বলে মানেনি অবশেষে একষট্টি বছর পর ইতিহাস বদল। তিন সপ্তাহের ম্যারাথন শুনানির পর, বৃহস্পতিবার ঐতিহাসিক রায়ে সুপ্রিম কোর্ট জানাল,

সংবিধানের ২১ নম্বর ধারা অনুযায়ী, গোপনীয়তা রক্ষার অধিকার সুরক্ষিত। এই অধিকার সংবিধানের অবিচ্ছেদ্য অংশ। জীবন ও স্বাধীনতার মতোই এই অধিকার সহজাত। গোপনীয়তা রক্ষার অধিকারও মৌলিক অধিকারের মধ্যেই পড়ে।

কেন্দ্রীয় সরকারের অবশ্য যুক্তি ছিল, গোপনীয়তা রক্ষার অধিকার আসলে অভিজাত শ্রেণির একটি ধারণা। কিন্তু, তাতে কান দেয়নি শীর্ষ আদালত।

গোপনীয়তা রক্ষা নিয়ে আগের সমস্ত রায়ও বৃহস্পতিবার খারিজ হয়ে গিয়েছে। নতুন এই রায়ের ভিত্তিতেই আধার কার্ড সংক্রান্ত মামলার শুনানি চলবে শীর্ষ আদালতে। ফলে, আধার কার্ড নিয়ে বিতর্কের মাঝেই শীর্ষ আদালতের রায়ে জোরালো ধাক্কা খেল কেন্দ্র।

First published: August 24, 2017, 2:31 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर