corona virus btn
corona virus btn
Loading

ভারতীয় মুসলিমদের সঙ্গে CAA-NRC-র কোনও সম্পর্ক নেই, বিরোধীদের এক হাত নিয়ে বললেন মোদি

ভারতীয় মুসলিমদের সঙ্গে CAA-NRC-র কোনও সম্পর্ক নেই, বিরোধীদের এক হাত নিয়ে বললেন মোদি
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি
  • Share this:

#নয়াদিল্লি: নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন ঘিরে যখন গোটা দেশ উত্তাল, তখন রবিবার দিল্লির রামলীলা ময়দানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মুখ খুললেন৷ সভায় বিরোধীদের উদ্দেশ্যে মোদির বার্তা, 'সংসদে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন পাস হয়েছে৷ বিলকে পাস করাতে সাহায্য করেছেন সাংসদরা৷ আপনাদের উচিত সংসদকে সম্মান করা৷ সংবিধানকে সম্মান করা৷'

এ দিন নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বিরোধীদের একহাত নিলেন প্রধানমন্ত্রী৷ তাঁর কথায়, 'আমি বিরোধীদের চ্যালেঞ্জ করছি, আমার কাজের তদন্ত করুন৷ গরিব মানুষের উজ্জ্বলা যোজনায় লাভ হয়েছে৷ আমি বিরোধীদের জিগ্গেস করছি, কেন মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন? আমরা কখনও জাতপাত নিয়ে কোনও প্রশ্ন করিনি৷ আমরা শুধু গরিবের উন্নয়ন চেয়েছি৷'  

দিল্লি-সহ দেশের বিভিন্ন রাজ্য যখন নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে জ্বলছে, তখন মোদির কথায়, ' আমাকে ঘৃণা করুন, কুশপুতুল পোড়ান, কিন্তু ভারতকে ঘৃণা করবেন না৷ নাগরিকত্ব আইন ভারতের কোনও নাগরিকের জন্য নয়৷ সে হিন্দু হোক বা মুসলিম৷ দেশের এনআরসি নিয়েও নানা মিথ্যে প্রচার চলছে৷ কংগ্রেস ও তার সঙ্গীরা বলল, কাকে কান নিয়ে গেল৷ কিছু লোক কাকে কান নিয়ে গেল বলে লাফাতে শুরু করে দিল৷ আমরা তো এনআরসি তৈরি করিনি৷ কংগ্রেস জমানায় তৈরি হয়েছিল৷ তখন কি কংগ্রেস ঘুমোচ্ছিল? আমরা কোনও নাগরিকের নাগরিকত্ব ছিনিয়ে নেব না৷ কংগ্রেসের সঙ্গে মিলে কিছু আরবান নক্সাল ভুয়ো বার্তা ছড়াচ্ছে, সব মুসলিমদের ভারত থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হবে৷ ভুয়ো ভিডিও তৈরি করে ছড়াচ্ছে৷ আরে একবার এনআরসি, নাগরিকত্ব আইনটা পড়ে তো নিন৷ কোনও ডিটেনশন সেন্টার হচ্ছে না৷ সম্পূর্ণ মিথ্যে কথা৷'

মোদি বললেন, 'যাঁরা ভারতের মুসলমান, যাঁরা বংশের পর বংশ ধরে ভারতের মাটিতে বসবাস করছেন, তাঁদের সঙ্গে আনআরসি ও নাগরিকত্ব আইনের কোনও সম্পর্ক নেই৷ দেশে কোনও ডিটেনশন সেন্টার গড়া হয়নি, হবেও না৷ বিরোধীরা মিথ্যে কথা বলছে৷ আরে মিথ্যে কথা ছড়ানোর আগে একটু গরিবের দিকেও তাকান৷ নাগরিকত্ব আইনে কোনও নতুন শরণার্থীর লাভ হবে না৷ যারা বছরের পর বছর ধরে ভারতে বাস করছেন, যাঁরা পাকিস্তান, আফগানিস্তান, বাংলাদেশ থেকে ধর্মী নিপীড়নের স্বীকার হয়ে ভারতে এসে বছরের পর বছর ধরে বাস করছেন, তাঁদের সুরক্ষার জন্য নাগরিকত্ব আইন৷ খোঁজ নিয়ে দেখুন, পাকিস্তান কী ভাবে সংখ্যালঘুদের উপর অত্যাচার করে, তাই দেশের ভালোর জন্য ও বিশ্বে পাকিস্তানের কাজকর্মের পর্দা ফাঁস করতেই নাগরিকত্ব আইন৷ শরণার্থীরা নিজেদের পরিচয় গোপন রাখে না, কিন্তু অনুপ্রবেশকারীরা গোপনে লুকিয়ে থাকে৷ আসলে অনুপ্রবেশকারীরা ভয় পাচ্ছে, এ বার সত্যিটা সামনে চলে আসবে৷ অসমে এনআরসি হয়েছে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে৷'

Published by: Arindam Gupta
First published: December 22, 2019, 4:31 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर