অনেকটা বাড়তে পারে মোবাইল, এসি, ফ্রিজ, টেলিভিশনের দাম, দেখুন কেন

করোনা ভাইরাস আতঙ্কের কারণে ভারতে ইলেকট্রনিক দ্রব্যের ব্যবসায় ব্যাপক প্রভাব পড়তে চলেছে৷

করোনা ভাইরাস আতঙ্কের কারণে ভারতে ইলেকট্রনিক দ্রব্যের ব্যবসায় ব্যাপক প্রভাব পড়তে চলেছে৷

  • Share this:

    #নয়া দিল্লি: করোনা ভাইরাস আতঙ্কের কারণে ভারতে ইলেকট্রনিক দ্রব্যের ব্যবসায় ব্যাপক প্রভাব পড়তে চলেছে৷ এই মারণ রোগের দৌরাত্মের কারণে একদিকে যেমন চীন সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে৷ তেমনই আক্রান্ত হয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া সহ বেশ কয়েকটি দেশ৷ আর মনে রাখতে হবে, সেই দেশগুলিই স্মার্ট ফোন থেকে এসি, টিভি বা রিফ্রেজেরটরের মতো জিনিসগুলির মূল উৎপাদন কেন্দ্র৷ তাই বিশ্বের বিভিন্ন বাজারে তো বটেই ভারতেও এই সমস্যার একটা বড়সড় প্রভাব পড়তে চলেছে৷ পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছে যেতে পারে, যেখানে দেখা গেল গ্রীষ্মকালের মুখে কেউ দোকানে এসি কিনতে গেলেন৷ দেখলেন দোকানে স্টক ফুরিয়ে এসেছে৷ আবার এমনটাও হতে পারে, যেখানে দেখা যাবে সেই জিনিসটি পাওয়া গেলেও তার দাম বেড়ে গিয়েছে প্রায় ১০ থেকে ১৫ শতাংশ৷ অনেক ব্যবসায়ী জানাচ্ছেন যে তাঁরা নিয়মিত চীন ও দক্ষিণ কোরিয়ার দেশগুলির সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন, কিন্তু পরিস্থিতি খুবই খারাপ বলে জানানো হয়েছে৷ যে পরিমাণ জিনিস এখন মজুত আছে, তাতে মে মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত হয়ত বাজারে তা পাওয়া যাবে৷ অ্যাপেল ঘোষণা করেছে, করোনা ভাইরাসের জন্য শেষ কোয়ার্টারে উৎপাদন বেশ কিছুটা কমে গিয়েছে৷ শুধু মোবাইল ফোন নয়, ঘরের অন্য জিনিস যেমন ফ্রিজ, এসি, টেলিভিশনের বাজারও করোনার কারণে প্রভাবিত হতে পারে৷ কারণ এসি ও ফ্রিজের অন্যতম মূল জিনিস, কম্প্রেশারটি আসে চীন থেকে৷ করোনা ভাইরাসের কারণে স্বাভাবিকভাবে এগুলির উৎপাদনেও প্রভাব পড়তে চলেছে৷ ফেব্রুয়ারি মাসের ২২ তারিখ, দক্ষিণ কোরিয়ার স্যামসং ইলেকট্রনিক্সের একটি কারখানায় করোনা ভাইরাস আক্রান্ত একজনের সন্ধান পাওয়া যায়৷ তারপর থেকে তিনদিনের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয় কারখানা৷ কতটা দাম বাড়তে পারে? যা পরিস্থিতি, বৈদ্যুতিক জিনিসপত্রের দাম বাড়তে পারে ১০ থেকে ১৫ শতাংশ৷ গ্রীস্মকালে চাহিদা বাড়লেই ভারতে বাড়িতে ব্যবহারের জিনিসপত্রের দাম এক ধাক্কায় ৫-১০ শতাংশ বাড়তে পারে বলে খবর৷ গরম কালে সাধারণত ‘কুলিং’ অ্যাপ্লায়েন্সেসের চাহিদা অনেকটা বেড়ে যায়৷ তখন ঠিক মতো সরবরাহ না থাকলে দাম যে বাড়বেই সে কথা সকলেই বলছেন৷

    Published by:Uddalak Bhattacharya
    First published: