corona virus btn
corona virus btn
Loading

বিস্ফোরণে মুখ-ঘাড়ের একাংশ ভেঙেছিল, মুখের ক্ষতে গিজগিজ করছিল পোকা, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেশ

বিস্ফোরণে মুখ-ঘাড়ের একাংশ ভেঙেছিল, মুখের ক্ষতে গিজগিজ করছিল পোকা, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেশ
ফাইল ছবি

বিস্ফোরণে মুখ ও ঘাড়ের অংশ ভেঙে গিয়েছিল , জিভ ছিন্নভিন্ন হয়ে যায় । মুখের ক্ষতে ম্যাগট জমেছিল । কেরলে হস্তিনী মৃত্যুর ময়না-তদন্তের রিপোর্টে চাঞ্চল্যকর তথ্য ।

  • Share this:

#তিরুঅনন্তপুরম: বিস্ফোরণে মুখ ও ঘাড়ের অংশ ভেঙে গিয়েছিল , জিভ ছিন্নভিন্ন হয়ে গিয়েছিল । মুখের ক্ষতে ম্যাগট অর্থাৎ পোকা জমেছিল । কেরলে হস্তিনী মৃত্যুর বিস্তারিত ময়না-তদন্তের রিপোর্ট হাতে নিয়ে এমনটাই জানিয়েছে কেরলের বনদফতর । আর তাতেই ‘মর্মান্তিক’ বিশেষণটাও অনেক কম  হয়ে যাচ্ছে ।

গত সপ্তাহে মারা যায় ২ মাসের অন্তঃস্বত্তা হস্তিনীটি । তার আগে তার শারীরিক পরিস্থিতি ক্রমে খারাপ হয় । বিস্ফোরণে তৈরি হওয়া হাতিটির মুখের ক্ষতে সংক্রমণ ছড়িয়েছিল । সেখানে পোকা পর্যন্ত ধরতে শুরু করেছিল । তবে রিপোর্টে হাতির মুখের ক্ষত ছাড়া শরীরে আর কোনও আঘাতের চিহ্ন মেলেনি । শরীরে কোনও বুলেট ইঞ্জুরি বা গুলির ক্ষত ছিল না । কিন্তু মুখের চরম অবস্থার জন্য দীর্ঘদিন অভুক্ত ছিল সে, তা রিপোর্টে স্পষ্ট ।  দু’মাসের ভ্রুণ ছিল হাতিটির পেটে । চিকিৎসকদের অনুমান, সন্তানকে বাঁচানোর জন্যই সম্ভবত জলে নেমেছিল হস্তিনীটি । চেয়েছিল গর্ভস্থ সন্তান অন্তত বেঁচে যাক । কিন্তু তা হয়নি শেষমেশ । চলার শক্তি হারিয়ে একটু শান্তি পেতে একগলা জলে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে চরম কষ্টে শ্বাসযন্ত্র বিকল হয়ে মারা যায় সে ।

বনদফতরের তরফে জানা গিয়েছে, হস্তিনীটির বয়স ১৫ বছর । কিন্তু অনাহারে দীর্ঘদিন থাকায় তাঁর শরীর শুকিয়ে গিয়েছিল । ফলে মৃত্যুর পর তাকে যখন উদ্ধার করা হয়, তখন তার শরীর অনেকটাই ছোট হয়ে গিয়েছিল । তিরুঅনন্তপুরম ফরেস্ট স্টেশন জানিয়েছে, ১৪-১৫ বছরের হাতিটি তাৎক্ষণিকভাবে ফুসফুসে জল জমে মারা যায় । অতক্ষণ জলে ডুবে থাকার জেরেই ফুসফুসে জল ঢুকে শ্বাস-প্রশ্বাস বন্ধ হয়ে যায় তার ।

২৭ মে হাতিটি মারা যাওয়ার পরে ২৮ তারিখ একটি প্রাথমিক রিপোর্ট পেশ করেছিল বন দফতর । তখনই জানা গিয়েছিল বিস্ফোরক ভর্তি ফল খেয়ে ফেলার ফলে মুখের ভিতরে সেটি ফেটে যায় হাতিটির । তার পরেই বাজিভর্তি আনারস খাইয়ে হাতিটিকে মেরে ফেলার অভিযোগ সামনে চলে আসে । ক্ষোভে ফেটে পড়ে গোটা দেশ । গোটা ঘটনার  তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন । হস্তিনীর মৃত্যুর নেপথ্যের কারণ খতিয়ে দেখতে গঠিত হয়েছে ১০ সদস্যের স্পেশ্যাল ইনভেস্টিগেশন টিম (সিট) ।
Published by: Shubhagata Dey
First published: June 5, 2020, 11:48 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर