• হোম
  • »
  • খবর
  • »
  • দেশ
  • »
  • PRECIOUS CARGO 3 TRUCKS CARRYING COVISHIELD VACCINE LEAVE PUNES SERUM INSTITUTE HOURS AFTER GOVT SEALS DEAL RM

সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে রওনা ৩ ট্রাক ভর্তি ভ্যাকসিন, আজই পশ্চিমবঙ্গ-সহ ১৩ রাজ্যে কোভিশিল্ড

পুণে বিমানবন্দর থেকে বিশেষ কার্গো বিমানে ভ্যাকসিন যাবে দেশের ১৩টি জায়গায়

পুণে বিমানবন্দর থেকে বিশেষ কার্গো বিমানে ভ্যাকসিন যাবে দেশের ১৩টি জায়গায়

  • Share this:

    #পুণে: ১৬ তারিখ গোটা দেশ জুড়ে শুরু হবে করোনা ভ্যাকসিনের টিকাকরণ! ভ্যাকসিন দেওয়া হবে ৩ কোটি ভারতবাসীকে। হাতে আর মাত্র ৩ টে দিন! কাজেই মঙ্গলবার কাকভোরেই পুণের সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন নিয়ে রওনা দিল ৩টি ট্রাক।

    তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রিত এই ৩টি ট্রাক করে ভ্যাকসিন নিয়ে যাওয়া হয় পুণের বিমানবন্দরে। সেখান থেকে একটি বিশেষ কার্গো বিমানে ভ্যাকসিন পৌঁছে দেওয়া হয় ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে। জানা গিয়েছে, ভোর ৫টায় সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে রওনা দেয় ট্রাকগুলি। তার আগে ছিল পুজোর আয়োজন। পুণের জোন ৫-এর ডিসিপি নম্রতা পাটিল জানান, নীরাপত্তার মোড়কে মঙ্গলবার ভোরেই সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে ভ্যাকসিনের প্রথম কনসাইনমেন্ট রওনা হয়ে গিয়েছে।

    পুণে বিমানবন্দর থেকে বিশেষ কার্গো বিমানে ভ্যাকসিন যাবে দেশের ১৩টি জায়গায়। এরমধ্যে রয়েছে আহমেদাবাদ, কলকাতা, চেন্নাই, বেঙ্গালুরু, কর্ণাল, হায়দরাবাদ, বিজয়ওয়াড়া, গুয়াহাটি, লখনৌ, চন্ডীগড় ও ভূবনেশ্বর। ৩টি ট্রাকে মোট ৪৭৮টি বাক্সে রাখা হয় কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন। এক-একটি বাক্সের ওজন ৩২ কেজি। আগামী ৫দিনের মধ্যেই কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন পৌঁছাবে গুজরাত, মধ্যপ্রদেশ ও হরিয়ানায়।

    আজই পশ্চিমবঙ্গে আসতে চলেছে কোভিশিল্ডের ভ্যাকসিন। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, আজ (মঙ্গলবার) দুপুরেই পুনে থেকে এসে পৌঁছবে কোভিশিল্ড ভায়াল। এই ভায়াল কলকাতায় পৌছনোর পরেই যাবে বাগবাজারের কেন্দ্রীয় মেডিক্যাল স্টোরে। সেখান থেকে রাজ্যের কোল্ড স্টোরেজ পয়েন্টগুলিতে পৌঁছে দেওয়া হবে। সূত্রের খবর আপাতত ৬৮ হাজার ৯০০ ভায়াল পাঠাবে কেন্দ্র। তাতে ৬ লক্ষ ৮৯ হাজার ডোজ দেওয়া সম্ভব হবে। এ দিন কোল্ড চেন পয়েন্টে যে ভ্যাকসিন ভায়াল যাবে তা বাদ দিয়ে অতিরিক্ত ভ্যাকসিন পাঠানো হবে হেস্টিংসে কেন্দ্রীয় মেডিক্যাল স্টোর্সে। সেখান থেকেই ওই ভায়াল আবার চলে যাবে উত্তর-পূর্ব ভারতের বেশ কয়েকটি অঞ্চলে। আপাতত রাজ্যে চারহাজার ভ্যাকসিনেশন পয়েন্ট বা টিকাকরণ কেন্দ্র থাকবেষ প্রতিটি কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকবেন চার টিকা অফিসার। প্রথমে ভ্যাকসিন পাবেন পাঁচ লক্ষ আশি হাজার স্বাস্থ্যকর্মী, আড়াই লক্ষ পুলিশ এবং ১ লক্ষ ১২ হাজার পুরকর্মী।

    Published by:Rukmini Mazumder
    First published: