প্রথম পর্যায়ে ৩ কোটি করোনা যোদ্ধার টিকাকরণ, বিভ্রান্তি এড়াতে PM CARES ফান্ড দিয়ে টিকা কিনবে শুধু কেন্দ্র: মোদি

প্রথম পর্যায়ে ৩ কোটি করোনা যোদ্ধার টিকাকরণ, বিভ্রান্তি এড়াতে PM CARES ফান্ড দিয়ে টিকা কিনবে শুধু কেন্দ্র: মোদি
তবে প্রথম পর্যায়ের এই তিন কোটি টিকাকরণের পর বাকি টিকার খরচ কে বহন করবে তা নিয়ে স্পষ্ট করে কিছু জানাননি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ৷

তবে প্রথম পর্যায়ের এই তিন কোটি টিকাকরণের পর বাকি টিকার খরচ কে বহন করবে তা নিয়ে স্পষ্ট করে কিছু জানাননি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: ১৬ জানুয়ারি থেকে দেশজুড়ে শুরু হতে চলেছে কোভিড ১৯-এর টীকাকরণ ৷ তার আগে টিকা বণ্টন নিয়ে সমস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ৷ সেখানে তিনি জানান, প্রথম পর্যায়ের টিকাকরণের সব খরচ দেবে কেন্দ্র ৷ এই পর্যায়ে ৩ কোটি করোনাযোদ্ধার টিকা দেওয়া হবে ৷ প্রথম পর্যায়ে সমস্ত ফ্রন্টলাইন স্বাস্থ্যকর্মীরা পাবেন টিকা ৷’ তবে প্রথম পর্যায়ের এই তিন কোটি টিকাকরণের পর বাকি টিকার খরচ কে বহন করবে তা নিয়ে স্পষ্ট করে কিছু জানাননি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ৷ তবে কেন্দ্রের তরফে প্রধানমন্ত্রী স্পষ্টভাবে জানিয়েছেন বিভ্রান্তি এড়াতে আপাতত টিকা কিনবে শুধু কেন্দ্র ৷

    বিশ্বের বৃহত্তম টিকাকরণ প্রক্রিয়া শুরুর আগে সোমবার এই বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ভারতে অন্যান্য দেশের তুলনায় করোনা সংক্রমণ এখন অনেকটাই কম ৷ ৭-৮ মাস আগে সাধারণ মানুষ যতটা ভয়ে ছিলেন এখন আর তা নেই ৷ তবে এখনও সতর্ক থাকতে হবে, টিলেমি দিলে হবে না ৷ টিকাকরণ প্রক্রিয়া নিয়ে রাজ্যস্তরের আধিকারিকদের সঙ্গেও কথা বলেছি। রাজ্যগুলির থেকে পরামর্শও এসেছে। করোনা সঙ্কটে যেরকম হাতে হাত ধরে আমরা কাজ করেছি তেমনভাবে টিকাকরণ প্রক্রিয়াও চলবে ৷ তবে ভ্যাকসিন নিয়ে কোনওরকম গুজব বরদাস্ত করা হবে না ৷ এব্যাপারে রাজ্যগুলিকে কড়া নজর রাখতে হবে’

    এখানেই শেষ নয়, টিকাকরণ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী জানান, ‘বিদেশি ভ্যাকসিনের উপর নির্ভরশীল হলে আরও অপেক্ষা করতে হত ৷ ভারতে তৈরি দুটি ভ্যাকসিন এখনও পর্যন্ত ছাড়পত্র পেয়েছে ৷ অন্যান্য দেশের তুলনায় তা সস্তাও ৷ তবে আরও ৪টি ভ্যাকসিন নিয়ে দেশে কাজ চলছে ৷’


    বিশ্বের সর্ববৃহৎ টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু হবে  তিনি বলেছেন, প্রথমে স্বাস্থ্যকর্মী, সাফাইকর্মী, পুলিশকর্মীদের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। দ্বিতীয় পর্যায়ে পঞ্চাশোর্ধ্বদের টিকাকরণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে ৷ বিপুল জন সংখ্যার কথা মাথায় রেখেই দুটি ভ্যাকসিনের ডোজ ব্যবহার করা হবে ৷ কারণ ভারতের অন্ততপক্ষে ৩০ কোটি জনগণকে কয়েকমাসের মধ্যে প্রতিষেধক দেওয়ার লক্ষ্য রয়েছে ৷ টিকাকরণের তথ্য সঠিক সময়ে আপলোড করতে হবে। ভারত যা করছে, অনেক দেশ তা অনুসরণ করবে। আধারের মাধ্যমে কোউইন অ্যাপে  নথিভুক্ত থাকবে যাবতীয় তথ্য। টিকার পর দেওয়া হবে সবাইকে দেওয়া হবে ডিজিটাল সার্টিফিকেট। দ্বিতীয় ডোজের পর মিলবে একটি শংসাপত্র। ভ্যাকসিন নিয়ে কোনও অসুবিধা হলে তারও ব্যবস্থা থাকছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ৷

    Published by:Elina Datta
    First published: