Home /News /national /
আজই মায়ের জন্মদিন, বাড়িতে গিয়ে চমকে দেবেন, ভেবেছিলেন নিহত পাইলট

আজই মায়ের জন্মদিন, বাড়িতে গিয়ে চমকে দেবেন, ভেবেছিলেন নিহত পাইলট

নিহত ক্যাপ্টেন দীপক সাঠে এবং তাঁর মা নীলা সাঠে৷ PHOTO- ANI

নিহত ক্যাপ্টেন দীপক সাঠে এবং তাঁর মা নীলা সাঠে৷ PHOTO- ANI

শোকের মধ্যেও ছেলেকে নিয়ে রীতিমতো গর্বিত নীলা৷ তিনি জানিয়েছেন, পড়াশোনা হোক বা খেলাধুলো, সবেতেই বরাবর প্রথম স্থানটিই দখল করতেন দীপক৷

  • Share this:

    #নাগপুর: আজই ছিল মায়ের জন্মদিন৷ ভেবেছিলেন জন্মদিনে নাগপুরের বাড়িতে গিয়ে চমকে দেবেন মাকে৷ শেষ পর্যন্ত সেই সুযোগ পেলেন না ক্যাপ্টেন দীপক বসন্ত সাঠে৷ কোঝিকোড়ের ভয়াবহ দুর্ঘটনাতে প্রাণ হারিয়েছেন পাইলটের আসনে থাকা দীপক৷ পরিস্থিতি এমনই, ছেলেকে হয়তো শেষ বারের মতো দেখতে পাবেন না সাঠের বাবা-মা৷

    বড় ছেলের পর নিজের আরও দুর্ঘটনায় আরও এক ছেলেকে হারালেন আশি পেরনো নীলা সাঠে ও তাঁর স্বামী বসন্ত সাঠে ৷ শনিবারই তাঁর ৮৪ তম জন্মদিন৷

    ৫৮ বছর বয়সি দীপক সাঠে কোঝিকোড়েই থাকতেন৷ তাঁর বৃদ্ধ বাবা-মা নাগপুরের বাসিন্দা ৷ দীপক সাঠের এক আত্মীয় সংবাদসংস্থাকে জানিয়েছেন, শনিবার বিমান পেলে নাগপুরে মায়ের কাছে হঠাৎ চলে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল তাঁর৷

    মার্চ মাসে শেষবার নিজের বাবা- মায়ের সঙ্গে দেখা করে গিয়েছিলেন দীপক সাঠে৷ কিন্তু তার পর থেকে আর নাগপুরে যাওয়ার সুযোগ পাননি তিনি৷ যদিও ফোনে নিয়মিত মা- বাবার সঙ্গে যোগাযোগ ছিল তাঁর৷ গত বৃহস্পতিবারও দীপক সাঠের সঙ্গে কথা হয় তাঁর বাবা- মায়ের৷

    শোকস্তব্ধ দীপক সাঠের বাবা এবং মা৷ PHOTO- ANI

    দীপক সাঠের বাবা বসন্ত সাঠে ভারতীয় সেনার একজন প্রাক্তন কর্নেল ৷ নাগপুরের ভারত নগরে স্বামীর সঙ্গে থাকেন নীলা সাঠে৷ প্রিয় সন্তানের একের পর এক স্মৃতি এখন ভিড় করছে তাঁর মনে ৷ নীলা জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর তাঁদের দু' জনকেই বাড়ি থেকে বেরোতে নিষেধ করেছিলেন দীপক সাঠে ৷

    শোকের মধ্যেও ছেলেকে নিয়ে রীতিমতো গর্বিত নীলা৷ তিনি জানিয়েছেন, পড়াশোনা হোক বা খেলাধুলো, সবেতেই বরাবর প্রথম স্থানটিই দখল করতেন দীপক৷ শুধু তাই নয়, সবসময় অন্যদের সাহায্য করতেন তিনি৷ পুরনো স্মৃতি হাতড়ে নীলা বলেন, 'ও খুব ভাল টেনিস, স্কোয়াশ খেলতে পারত৷ ঘোড়া চড়ার ক্ষেত্রেও ও দারুণ দক্ষ ছিল৷ আমাদের সন্তান বায়ুসেনার 'সোর্ড অফ অনার' পুরস্কার পেয়েছিল৷ কিন্তু তার পরেও কোনওকিছু নিয়েই দম্ভ প্রকাশ করত না ও৷' নীলা সাঠে আরও দাবি করেছেন, মহারাষ্ট্রের প্রথম বাসিন্দা হিসেবে এয়ার ফোর্সের আটটি পুরস্কারই জিতেছিলেন দীপক৷

    নীলা সাঠে আরও জানিয়েছেন, বরাবর পরোপকারী ছিলেন দীপক৷ গুজরাতে বন্যার সময় সেনাকর্মীদের সন্তানদের নিজের কাঁধে বসিয়ে উদ্ধার করেছিলেন তিনি৷ এয়ার ইন্ডিয়ায় যোগ দেওয়ার আগে বায়ুসেনার উইং কমান্ডার ছিলেন দীপক৷ নীলা সাঠের বড় ছেলে ভারতীয় সেনার লেফটেন্যান্ট বিকাশ সাঠেও পথ দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছিলেন৷

    দীপক সাঠে তাঁর স্ত্রী এবং শ্যালকের সঙ্গে কোঝিকোড়েই থাকতেন৷ তাঁর দুই ছেলে ধনঞ্জয় ও শান্তনু বেঙ্গালুরু এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাসিন্দা৷ ধনঞ্জয় বেঙ্গালুরু থেকে সড়কপথে কোঝিকোড় পৌঁছনোর চেষ্টা করছেন৷ কিন্তু শান্তনুর পক্ষে বাবার শেষকৃত্যে যোগ দেওয়া সম্ভব হবে না৷

    দীপক সাঠের শেষকৃত্য কোথায় হবে তাও এখনও চূড়ান্ত নয়৷ করোনা সংক্রমণের কারণে সব আত্মীয়, বন্ধুরাও শেষকৃত্যে যোগ দিতে পারবেন না৷ ফলে দীপক সাঠের বাবা- মা শেষবারের মতো সন্তানকে দেখতে পাবেন কি না, তা এখনও নিশ্চিত নয়৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    পরবর্তী খবর