এই রোগে আক্রান্ত হলে ৪৫ বছরের বেশি ব্যক্তিরা নিতে পারবেন করোনার টিকা

এই রোগে আক্রান্ত হলে ৪৫ বছরের বেশি ব্যক্তিরা নিতে পারবেন করোনার টিকা

কেন্দ্র তরফে অনুমান করা হচ্ছে এর মধ্যে প্রায় ২৭ কোটি মানুষ সামিল রয়েছে ৷ ভ্যাকসিনের এই দ্বিতীয় পর্যায়ে নিজেরাই রেজিস্ট্রেশন করাতে পারবেন ৷

কেন্দ্র তরফে অনুমান করা হচ্ছে এর মধ্যে প্রায় ২৭ কোটি মানুষ সামিল রয়েছে ৷ ভ্যাকসিনের এই দ্বিতীয় পর্যায়ে নিজেরাই রেজিস্ট্রেশন করাতে পারবেন ৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: দেশে ১ মার্চ থেকে টিকাকরণের দ্বিতীয় পর্যায় শুরু হয়ে গিয়েছে ৷ কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছিল ৬০ বছরের বেশি বয়সের ব্যক্তিদের এই পর্যায়ে করোনার টিকা দেওয়া হবে ৷ এছাড়া কঠিন রোগে আক্রান্ত ৪৫ বছরের বেশি ব্যক্তিদেরও ভ্যাকসিন দেওয়া হবে এই পর্যায়ে ৷ কেন্দ্র তরফে অনুমান করা হচ্ছে এর মধ্যে প্রায় ২৭ কোটি মানুষ সামিল রয়েছে ৷ ভ্যাকসিনের এই দ্বিতীয় পর্যায়ে নিজেরাই রেজিস্ট্রেশন করাতে পারবেন ৷ এর জন্য Co-WIN 2.0 অ্যাপে রেজিস্টার করতে হবে ৷

    এখানে Comorbidities-র সঙ্গে লড়াই করা ব্যক্তিদেরও সামিল করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে ৷ এবার প্রশ্ন হচ্ছে কোনও রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের এর মধ্যে সামিল করা হয়েছে ? কার্ডিয়োভাস্কুলার, ডায়েবিটিজ, হাইপারটেনশন, ক্যানসার, এডস সামিল করা হয়েছে ৷ রোগীদের চিকিৎসকের কাছ থেকে রোগ সংক্রান্ত একটি সার্টিফিকেট নিতে হবে ৷

    যে সমস্ত ব্যক্তিদের হার্টের সমস্যা রয়েছে এবং গত এক বছরে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন তাঁরা এই লিস্টে সামিল রয়েছেন ৷ লেফ্ট ভেন্ট্রিকুলার সিস্টোলিক সমস্যা, PAH রয়েছে তাঁদেরও এই পর্যায়ে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে ৷ এর মধ্যে কিডনি, লিভার, হার্ট সংক্রান্ত সমস্যা সামিল রয়েছে ৷

    কেন্দ্র সরকারের নিজের হাসপাতালে প্রতি টিকার জন্য অধিকতম ২৫০ টাকা হবে ৷ বেসরকারি হাসপাতালে টিকার জন্য এর চেয়ে বেশি টাকা নেওয়া হতে পারে ৷ করোনার জন্য দুটি ডোজ নিতে হবে ৷ অর্থাৎ অধিকতম ৫০০ টাকা লাগবেই ৷ ৬০ বছরের বেশি বয়সের ব্যক্তিদের পরিচয় পত্র দেখাতে হবে ৷

    ৪৫ থেকে ৫৯ বছরের ব্যক্তিরা যাঁরা গুরুতর রোগে আক্রান্ত তাঁদের একটি ফর্ম দেওয়া হবে ৷ এই ফর্মে রেজিস্টার্ড মেডিকেল প্র্যাক্টিশনার থেকে প্রমাণ দিতে হবে ৷

    Published by:Dolon Chattopadhyay
    First published: