corona virus btn
corona virus btn
Loading

শিলাবতীর দু’পাড়ে অবৈধ নির্মাণ, শিলাবতীর জল উপচে প্লাবন

শিলাবতীর দু’পাড়ে অবৈধ নির্মাণ, শিলাবতীর জল উপচে প্লাবন

শিলাবতী বয়ে গিয়েছে। আর তার সঙ্গে জীবন চলেছে প্রাচীন শহর ঘাটালের।

  • Share this:

#ঘাটাল : ঘাটাল শহরের বুক চিরে বইছে শিলাবতী নদী। শিলাবতীর দুই পাড় ঠিকানা হয়েছে অবৈধ দখলদারদের। ব্যাঙের ছাতার মত গজিয়ে উঠেছে বসতবাড়ি, দোকানপাট। দু’ পাড়ে অবৈধ নির্মাণে নদীর জল বওয়ার ক্ষমতা কমছে। ফলে বর্ষাকালে জল বাড়লেই প্লাবিত হয়ে পড়ে শীলাবতী সংলগ্ন বারোটি ওয়ার্ড।

শিলাবতী বয়ে গিয়েছে। আর তার সঙ্গে জীবন চলেছে প্রাচীন শহর ঘাটালের। ঘাটাল থেকে রানিচক হয়ে রূপনারায়ণে মিশেছে শিলাবতী। একসময় এই নদীপথে ব্যবসা-বাণিজ্য হত। নদীর জলে ভেসে আসত পাল তোলা নৌকা-স্টিমার। এখন শিলাবতীর সেদিন ফুরিয়েছে। শিলাবতী মজে গিয়েছে। নদীর দু’পাড় গ্রাস করেছে অবৈধ দখলদারেরা। ব্যাঙের ছাতার মত গজিয়ে উঠেছে বসতবাড়ি। দোকানপাট।  বাম আমল থেকেই শিলাবতী নদীর দু’পাড় দখল হয়ে যায় ৷

সেচ দফতর বলছে,

- শিলাবতীর দু’পাড় দখল হওয়ায় জল বহন ক্ষমতা কমেছে - দু’পাড়ে নির্মাণকাজের সময় খোঁড়া মাটি নদীতে পড়ে নাব্যতা হারাচ্ছে - বৃষ্টিতে শিলাবতীর জল উপচে প্লাবিত হচ্ছে ঘাটালের ১২টি ওয়ার্ড

দু’হাজার সতেরোয় ঘাটালের প্রতাপপুরে শিলাবতীর পাড় ভেঙে প্লাবিত হয়ে যায় বিস্তীর্ণ এলাকা। এয়ারলিফ্ট কোরে উদ্ধার করে বায়ুসেনা। প্রতিবছর নদীর পশ্চিম পাড় প্লাবিত হয়ে সড়কপথে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। অভিযোগ, বাঁধের ধারে নির্মাণের জন্যই এই অবস্থা। কয়েকবছর ধরে নির্মাণকাজের অনুমতি দিচ্ছে পুরসভা ও পঞ্চায়েতই। পুরপ্রধান বলছেন, এই অভিযোগ মিথ্যে।নতুন করে অবৈধ নির্মাণ রুখতে পদক্ষেপ করছে সেচ দফতর।

স্থানীয় মানুষেরাও চাইছেন, সরকারি হস্তক্ষেপে দখলমুক্ত হোক শিলাবতীর দু’পাড়। প্রতিবছর প্লাবনের যন্ত্রণা আর সহ্য করতে চায় না ঘাটাল।

First published: August 5, 2019, 12:25 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर