corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউনে দিনভর বিমানবন্দরেই অপেক্ষা যাত্রীদের

লকডাউনে দিনভর বিমানবন্দরেই অপেক্ষা যাত্রীদের
Photo- File

লকডাউনের পর দিন বিমান ধরতে বা কলকাতায় এসে পড়া যাত্রীরা দিনভর অপেক্ষায় রইলেন বিমানবন্দরের বাইরে।

  • Share this:

#কলকাতা: প্রায় জনশূন্য বিমানবন্দরের সামনে বসে আছেন অনিমেষ মণ্ডল। ৩৯ বছরের অনিমেষকে কর্মসংস্থানের খোঁজে যেতে হচ্ছে সুদূর আন্দামানে।

পলতার বাসিন্দা অনিমেষের নিজের ধোপাখানা ছিল। মোটের উপরে তা থেকে রোজগারে দিব্যি সংসার চলত অনিমেষ এবং তাঁর স্ত্রী ও ছেলের। কিন্তু কোভিড হামলায় সব ছারখার হয়ে গিয়েছে। ধোপাখানার ঝাঁপ খুললেও তাতে রোজগার নেই। বাধ্য হয়ে আন্দামানে যাচ্ছেন মাছ ধরার কাজ করতে। কিন্তু বৃহস্পতিবার ভোরের ফ্লাইট ধরতে গেলে লকডাউনের মধ্যে  সময়মতো পৌঁছতে পারবেন না। তাই, বুধবার সকালেই এসে পড়েছেন বিমানবন্দরে। তাতেও হয়রানি কম নয়। কোথায় রাত কাটাবেন, কোথায় খাবেন, তা ভেবে কুল করতে পারছেন না অনিমেষ। বলছেন, "অনিশ্চিত ভবিষ্যতের ঝুঁকি নিয়েই যাচ্ছি। তার মধ্যে এই হয়রানি। কী যে হবে, কিছুই বুঝতে পারছি না।"

সুরিন্দর কুমারের অবস্থা আরও শোচনীয়। কানেক্টিং ফ্লাইট ধরতে এসে পড়েছেন বারাণসী থেকে কলকাতা। এসে আটকে পড়েছেন অজানা শহরে। জানতেনও না শহরে লকডাউন। কী করে সারা দিন কাটাবেন, কোথায় খাবার মিলবে, কিছুই জানেন না সুরিন্দর। বলেন, "জানতাম না লকডাউন। আগে কখনও কলকাতায় আসিনি। কিছুই চিনি না। আশপাশে কোনও দোকানও নেই। সঙ্গে সামান্য শুকনো খাবার ছিল। তাই দিয়ে কোনও রকমে কাজ চালাচ্ছি।"

কুলপির বাসিন্দা অভিজিৎ নস্কর বলেন, "কাল সকালের ফ্লাইট ধরতে পারতাম না। সে কারণেই গতকাল রাত থেকে এসে বসে আছি বিমানবন্দরে। এ ছাড়া অন্য কোনও উপায়ও তো নেই।"

লকডাউনের পর দিন বিমান ধরতে বা কলকাতায় এসে পড়া যাত্রীরা এ ভাবেই দিনভর অপেক্ষায় রইলেন বিমানবন্দরের বাইরে। লকডাউনে রাজ্য সরকারের অনুমতি না মেলায় দিনভর পুরোপুরি বন্ধই রইল কলকাতা বিমানবন্দর। কোনও বিমানই এ দিন ওঠানামা করেনি। নিরাপত্তারক্ষী ছাড়া সে ভাবে কর্মীদের ভিড়ও ছিল না।

বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের তরফে এক কর্তা বলেন, "পুরোপুরি লকডাউনে বিমান যাতে না চলে, সে জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকার অনুরোধ জানিয়েছিল কেন্দ্রকে। কেন্দ্র তাতে সায় দেওয়ায় বিমানবন্দর লকডাউনের দিনগুলিতে বন্ধই থাকবে। প্রথমে রাজ্য সরকার কিছু বাস চালিয়েছিল। এখন তো তা-ও চলছে না। কাজেই যাত্রীদের অপেক্ষা করা ছাড়া কোনও উপায় নেই।"

Shalini Dutta

Published by: Debamoy Ghosh
First published: July 29, 2020, 10:39 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर