Home /News /national /
বন্যা থেকে বাঁচতে গোয়াল ঘরে বাঘ, বস্তা ভেবে ছুঁয়ে ফেললেন বৃদ্ধা!

বন্যা থেকে বাঁচতে গোয়াল ঘরে বাঘ, বস্তা ভেবে ছুঁয়ে ফেললেন বৃদ্ধা!

কাজিরাঙার বন্যা থেকে বাঁচার চেষ্টা একটি বাঘের৷

কাজিরাঙার বন্যা থেকে বাঁচার চেষ্টা একটি বাঘের৷

বাঘটিকে উদ্ধারের জন্য এরপর বন দফতরকে খবর দেন বাড়ির মালিক৷

  • Share this:

    #কাজিরাঙা: কাজিরাঙা অভয়ারণ্যের প্রায় ৯৫ শতাংশ এলাকাই জলের তলায় চলে গিয়েছে৷ বহু বন্যপ্রাণী প্রাণ বাঁচাতে জঙ্গল ছেড়ে জাতীয় সড়ক এবং লোকালয়ে চলে আসছে৷ বাদ যায়নি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারও৷ সেরকমই একটি বাঘ জঙ্গল থেকে বেরিয়ে সোমবার আগোরাতলি এলাকায় এক গবাদি পশুপালকের বাড়িতে এসে আশ্রয় নিল৷

    শুধু তাই নয়, দীর্ঘক্ষণ জলের মধ্যে সাঁতরে এসে বাঘটি এতটাই কাহিল হয়ে পড়েছিল যে তার নাগালের মধ্যে একপাল ছাগল থাকলেও তাদের গায়ে আঁচড়ও কাটেনি বাঘটি৷ এমনকী বাড়ির বাসিন্দা এক বৃদ্ধা ভুল করে বাঘটির গায়ে হাত দিয়ে ফেললেও তাঁকেও আক্রমণ করেনি বাঘটি৷

    যে বাড়িটিতে বাঘটি আশ্রয় নেয় তার মালিক কমল শর্মা জানিয়েছেন, জঙ্গল লাগোয়া তাদের বাড়িতে একটি ছাউনির নীচে ছাগল রাখা হয়৷ প্রবল বর্ষায় চারপাশে জল জমে থাকলেও ওই জায়গাটি তুলনামূলক ভাবে কিছুটা উঁচুতে৷ সেখানে এসে আশ্রয় নেয় বাঘটি৷

    কমলবাবু জানান, রাত দেড়টা নাগাদ অস্বাভাবিক শব্দ পেলেও তাঁরা গুরুত্ব দেননি৷ কিন্তু সকালে উঠে বাড়ির চত্বরে মাটির উপরে বড় বড় পায়ের ছাপ দেখতে পায়৷ তা দেখে তাঁরা আন্দাজ করেন, বাঘের মতো কোনও বন্যপ্রাণী এসে সেখানে হয়তো আশ্রয় নিয়েছিল৷ কিন্তু বাঘটি চলে গিয়েছে ভেবে কমলবাবুর মা ছাগলদের খাবার দিতে যান৷ তখনই তিনি জলের মধ্যে বস্তার মতো কিছু উঁচু হয়ে থাকতে দেখেন৷ কিন্তু সেটির গায়ে হাত দিতেই আঁতকে ওঠেন ওই বৃদ্ধা৷

    কমলবাবুর কথায়, 'ঘরে ফিরে আমার মা প্রায় ১৫ মিনিট ধরে কাঁপছিলেন৷ পরে তিনি জানান, তিনি বাঘের গায়ে হাত দিয়েছেন৷' কমলবাবুর দাবি অনুযায়ী, মাত্র ফুট তিনেকের দূরত্ব থেকে তাঁরাও বাঘটিকে দেখেছেন৷

    এক সময় ভয় পেয়ে গিয়ে বাঘটি ছাগল রাখার জন্য ঘেরা জায়গার পাশেই জমা জলের মধ্যে নেমে যায়৷ সেখানে কোনওক্রমে গলা উঁচু করে অপেক্ষা করতে থাকে সে৷ বাঘটিকে উদ্ধারের জন্য এরপর বন দফতরকে খবর দেন বাড়ির মালিক৷ বাঘ দেখতে ভিড় করে থাকা জনতাকেও সরিয়ে দেয় বনরক্ষীরা৷ যদিও বাঘটিকে উদ্ধারে স্থানীয় বাসিন্দারাও সাহায্য করেন৷ বাঘটিকে ধরতে ঘুমপাড়ানি গুলিরও ব্যবহার করা হয়নি৷ শেষ পর্যন্ত প্রায় ১১ ঘণ্টা পরে বাঘটিকে নিরাপদে কাছাকাছি উঁচু জায়গায় যাওয়ার পথ করে দেওয়া হয়৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    Tags: Royal Bengal Tiger

    পরবর্তী খবর