দেশ

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

টাকা শোধের নামে ঘর থেকে ডেকে এনে মাথা থেঁতলে, বিচ্ছিন্ন করে, হাত ছিঁড়ে খুন বৃদ্ধকে

টাকা শোধের নামে ঘর থেকে ডেকে এনে মাথা থেঁতলে, বিচ্ছিন্ন করে, হাত ছিঁড়ে খুন বৃদ্ধকে

মৃতের পরিচয় গোপন করতে পাথর দিয়ে মাথা থেঁতলে, মাথা দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেয় । একটি হাত বিচ্ছিন্ন করতে পারলেও আরেকটি হাত দেহের সঙ্গেই ছিল | দু’দিন দেহ পরে থাকায় রাতে শেয়াল ও কুকুর সেই দেহ ছিঁড়ে খায় |

  • Share this:

Debasish Chakraborty

#শালিমার: পাওনা টাকা শোধ করার নাম করে ঘর থেকে ডেকে এনে এক বৃদ্ধের মাথা থেতলে ও দেহ থেকে মাথা ছিন্ন করে খুন করল এক আরপিএফ জওয়ান | বুধবার থেকে নিখোঁজ ৭৫ বছরের বৃদ্ধ গুন্না নিধি সাউয়ের মস্তিষ্কহীন দেহ উদ্ধার হল শালিমার রেল ইয়ার্ডের নর্দমা থেকে, দেহের অনেক দূর থেকে উদ্ধার হয় মৃতের মাথা ও একটি হাত | এমনকি পায়ের পাতার বেশ কিছু অংশ ছিঁড়ে খায় কুকুর-শেয়ালে |

মৃতের পরিবারের অভিযোগ, অভিযুক্ত আরপিএফ কর্মী আদতে ওড়িশার বাসিন্দা এবং মৃতের প্রতিবেশী | চাকরি সূত্রে দু’জনের আলাপ হলেও একই এলাকার বাসিন্দা হাওয়ায় ঘনিষ্ঠতাও ছিল যথেষ্ট | মৃত গুন্নানিধি বাবু দীর্ঘ দিন গার্ডেনরিচ এলাকার হুগলি জুটমিলের কর্মী ছিলেন, অবসরের পর ওই এলাকাতেই থাকতেন পরিবার নিয়ে । গার্ডেনরিচ এলাকায় রেল দফতরে কর্মরাত সুকান্ত সাহু ওড়িশার একই গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন | গুন্নানিধি বাবু অবসরের পর গার্ডেনরিচ এলাকায় একটি জগন্নাথ মন্দির স্থাপন করেন এবং সেই মন্দিরের ট্রাস্টি বোর্ডের কর্তা হিসাবে কাজ করতেন | অবসরের জন্য পাওয়া অর্থ সুদে খাটিয়ে সংসার চলত |

অভিযুক্ত সুকান্ত সাহু শালিমার রেল কোয়াটারের বাসিন্দা ছিলেন, বেশ কয়েকবার গুন্নানিধি বাবুর থেকে টাকা ধার নেন সুকান্ত । নিজের টাকা ছাড়াও মন্দিরের টাকাও সুকান্তকে ধার হিসাবে দিয়েছিলেন বৃদ্ধ । সুকান্ত সেই টাকা ফিরত দিচ্ছিল না । বার বার চাপ দিলেও আজ না কাল করে দিন কাটাচ্ছিল সুকান্ত | সামনেই জগন্নাথ পুজো তাই একটু বেশিই চাপ সৃষ্টি করছিলেন গুন্নানিধি বাবু । কয়েকবছর আগে গার্ডেনরিচ থেকে সুকান্ত সাহুর বদলি হয় খড়্গপুরে | বুধবার রাতে গুন্নানিধি বাবুর গার্ডেনরিচের বাড়িতে যান সুকান্ত । টাকা ফেরত দেওয়ার নামে করে নিয়ে যান গুন্নানিধি বাবুকে | এরপর আর বাড়ি না ফেরায় পরিবারের লোকেরা খোঁজ করতে আসেন শিবপুরের শালিমার রেল কোয়াটারে সুকান্তর বাড়িতে । তখন সুকান্ত জানান, বুধবার রাতেই গুন্নানিধি বাবু বাড়ি চলে গিয়েছেন । এরপর পরিবার শিবপুর থানায় অভিযোগ করতে গেলে পরিবারকে একটু অপেক্ষা করতে বলেন | পরিবারের লোকেরা বুঝতে পারেন কিছু এক বিপদ হয়েছে । তাঁরা শিবপুর থেকে গিয়ে গার্ডেনরিচে স্থানীয় থানায় একটা নিখোঁজ মামলা করেন |

 অপরাধী সুকান্ত সাহু ।
অপরাধী সুকান্ত সাহু ।

শুক্রবার সকাল হয়ে গেলেও গুন্নানিধি বাবু না ফেরায় পরিবারের লোকেরা শিবপুর থানায় আসেন । সেখানে ডাকা হয় সুকান্তকে । জিজ্ঞাসাবাদে সুকান্ত শালিমারের একটি জায়গা দেখিয়ে বলেন গুন্নানিধি বাবুকে রাতে সেখানে ছেড়ে দিয়েছে সে । রাস্তায় লাগানো সিসিটিভি চেক করে পুলিশ বুঝতে পারে সুকান্ত ভুল বলছেন । তারপর টানা জিজ্ঞাসাবাদে অবশেষে সুকান্ত স্বীকার করে খুনের কথা | বুধবার রাতেই পানীয়ের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে খুন করে গুন্নানিধি বাবুকে । তারপর মৃতের পরিচয় গোপন করতে পাথর দিয়ে মাথা থেঁতলে, মাথা দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেয় । একটি হাত বিচ্ছিন্ন করতে পারলেও আরেকটি হাত দেহের সঙ্গেই ছিল | দু’দিন দেহ পরে থাকায় রাতে  শেয়াল ও কুকুর সেই দেহ ছিঁড়ে খায় | মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ । মৃতদেহের সামনে থেকেই উদ্ধার হয় একটি রক্ত মাখা পাথর | মৃতের পরিবারের অভিযোগে আরপিএফের কর্মী সুকান্ত সাহুকে গ্রেফতার করে শিবপুর থানার পুলিশ |

Published by: Simli Raha
First published: June 6, 2020, 10:06 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर