দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

৫ বছরের শিশুকন্যাকে খুন করে মৃত শরীরের সঙ্গে যৌনতা, ধৃত ওডিশার বিকৃতকাম যুবক

৫ বছরের শিশুকন্যাকে খুন করে মৃত শরীরের সঙ্গে যৌনতা, ধৃত ওডিশার বিকৃতকাম যুবক

শুধু খুন নয়, ওডিশার নয়াগড় হত্যাকাণ্ডে ৫ বছরের শিশুকন্যাকে খুন করে মৃতদেহের সঙ্গে যৌনতায় লিপ্ত হয় অভিযুক্ত

  • Share this:

#ভূবনেশ্বর: শুধু খুন নয়, ওডিশার নয়াগড় হত্যাকাণ্ডে ৫ বছরের শিশুকন্যাকে খুন করে মৃতদেহের সঙ্গে যৌনতায় লিপ্ত হয় অভিযুক্ত, এমনটাই জানাল ওডিশা পুলিশের স্পেশ্যাল ইনভেস্টিগেশন টিম (SIT)। SIT-এর প্রধান অরুণ বোথরার দাবি, অভিযুক্ত যুবক চাইল্ড পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত। নিজের যৌন আকাঙ্ক্ষা পূরণ করতে ৫ বছরের ওই শিশুকে ধর্ষণ করতে যায়, বাধা পেলে শিশুটিকে শ্বাসরুদ্ধ করে খুন করে। এরপর, নিশ্প্রাণ দেহের সঙ্গেই যৌনতায় মেতে ওঠে যুবক।

কিন্তু, 'বিকৃতকাম' ওই যুবকের মা ও বোনের দাবি, সে নির্দোষ। এমনকী ঘটনার শিকার ওই শিশুটির মা-বাবা পর্যন্ত স্পেশ্যাল ইনভেস্টিগেশন টিমের দাবির সঙ্গে একমত নন। বাচ্চাটির মা সিটের তদন্তের বিপক্ষে গিয়ে অভিযুক্তকে 'ভাল মানুষ' হিসেবে উল্লেখ করেন।

অভিযুক্তের মা নয়াগড় সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে জানিয়েছেন, 'সিট আমার নিরপরাধ ছেলেকে গ্রেফতার করেছে। এই বিষয়ে ইতিমধ্যেই পুলিশের কাছে অভিযোগ জানিয়েছি।'' অভিযুক্তের মায়ের দাবি, SIT-এর প্রধান অরুণ বোথরা নাকি তাঁর ছেলেকে নগদ ৫ লক্ষ টাকার বিনিময়ে অপরাধ কবুল করে নেওয়ার চাপ দিচ্ছে। সিটের হেফাজতে ছেলের উপর শারীরিক ও মানসিক অত্যাচার করা হচ্ছে বলেও তিনি অভিযোগ আনেন।

অন্যদিকে, সিটের প্রধান বলেন, পুলিশের ২২ বছরের কর্মজীবনে এটি অন্যতম নৃশংস ও মারাত্মক অপরাধ। তিনি এও বলেন, অভিযুক্ত অত্যন্ত চালাক, মোবাইলের সমস্ত সার্চ হিস্ট্রি আগেভাগেই ডিলিট করে দিয়েছিল। কিন্তু, পুলিশ মোবাইল ফোনটি খোলার সঙ্গে সঙ্গে তিন বছরের এক শিশুকন্যাকে খুন ও ধর্ষণের ভিডিও পপ আপ সামনে আসে।

তদন্তে পুলিশ জানতে পারে, মৃতার সঙ্গে অভিযুক্ত যুবকের বোনের বন্ধুত্ব ছিল। সেই সুবাদে অভিযুক্তের বাড়িতে মাঝেমধ্যেই গাছের জাম খেতে যেত মেয়েটি। ১৪ জুলাই ঘটনার দিনও শিশুটি অভিযুক্তের বাড়িতে গিয়েছিল। তখন বাড়িতে আর কেউ ছিল না। সিটের প্রধান বোথরা জানান, ঘটনার আগের দিন, অর্থাত্‍‌ ১৩ জুলাই রাতভর পর্ন ভিডিও দেখেছিল ছেলেটি। পরের দিন অভিযুক্তের মা ও বোন বাড়িতে ছিল না, বাড়ি ফাঁকা থাকার সুযোগে শিশুটিকে ধর্ষণ করে যুবক। পুলিশের দাবি, কোনওরকম আগাম পরিকল্পনা ছাড়াই সে এই অপরাধ করে।

পুলিশ আরও জানায়,  প্রমাণ লোপাটে বাচ্চাটির পরনের পোশাক একটি বস্তায় ভরে পুকুরে ফেলে দিয়েছিল যুবক। সেই বস্তা উদ্ধার করে বাচ্চাটির পোশাক থেকে অভিযুক্তের বীর্য পেয়েছেন তদন্তকারীরা।

ওডিশা পুলিশ সূত্রে খবর, ১৪ জুলাই শিশুটি খুন হয়। ২৩ জুলাই বাড়ির পিছন থেকে তার কঙ্কাল উদ্ধার হয়। কিন্তু, সেসময় ঘটনা সকলের নজরে আসেনি। মেয়ের মৃত্যুর সুবিচার চেয়ে শিশুটির মা-বাবা ওডিশা বিধানসভার সামনে গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করলে, এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসে। অপরাধীকে খুঁজে বের করতে ওডিশা সরকার SIT গঠনের নির্দেশ দেয়। সোমবার যযুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ২৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত অভিযুক্ত যুবককে পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

Published by: Rukmini Mazumder
First published: December 24, 2020, 5:30 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर