সংস্কারের ঠেলায় ভাঙতে পারে পুরীর জগন্নাথ মন্দির ! আশঙ্কায় ক্ষোভ-বিক্ষোভ স্থানীয়দের

২৭ অগাস্ট, র‍্যাপিড অ্যাকশন ফোর্স ও পুলিশবাহিনী যৌথভাবে ৩০০ বছরের পুরনো নাঙ্গুলি মঠ ভেঙে দিয়েছে

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Aug 31, 2019 04:02 PM IST
সংস্কারের ঠেলায় ভাঙতে পারে পুরীর জগন্নাথ মন্দির ! আশঙ্কায় ক্ষোভ-বিক্ষোভ স্থানীয়দের
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Aug 31, 2019 04:02 PM IST

#ভুবনেশ্বর: রাস্তা চওড়া করার জন্য পুরীর দ্বাদশ শতাব্দীর একটি মন্দির ভেঙে চলছে নির্মাণকাজ । আর এই কারণেই ক্ষুব্ধ হেরিটেজ উৎসাহী, ঐতিহাসিক ও বহু সাধারণ মানুষ । গত ৫ দিনে দুই শতক পুরনো বেশ কয়েকটি মঠ ও প্রাচীন বাড়ি গুড়িয়ে গিয়েছে বুলডোজারের চাকায়।

সম্প্রতি পুরীর সৈকতকে বিশ্ব হেরিটেজ শহর বানানোর জন্য ৫০০ কোটি টাকা মেগা পরিকল্পনার ঘোষণা করেছেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েক । এই ঘোষণার পরই নির্মাণ কাজ শুরু করেছে জেলা প্রশাসন । জগন্নাথ মন্দিরে সন্ত্রাসবাদী হামলার আশঙ্কায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও জোরদার করার জন্য এই কাজ হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পট্টনায়েক । 'শ্রীমন্দির ও মহাপ্রভুর মন্দিরের সুরক্ষা প্রত্যেকটি ওড়িশার বাসিন্দার কর্তব্য', জন্মাষ্টমীর দিনই জানিয়েছিলেন পট্টনায়েক ।

২৭ অগাস্ট, র‍্যাপিড অ্যাকশন ফোর্স ও পুলিশবাহিনী যৌথভাবে ৩০০ বছরের পুরনো নাঙ্গুলি মঠ ভেঙে দিয়েছে । ২৯ অগাস্ট থেকে শুরু হয়েছে ৭০০ বছরের প্রাচীন এমর মঠ ভাঙার কাজ, সরিয়ে দেওয়া হয়েছে মূর্তি ও ১০০ বছরের পুরনো পাঠাগারের বইগুলি ।

এমর মঠ, একটি অতি পরিচিত বৈষ্ণব মঠ । ১২শতকে এর প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তামিল ধর্মতত্ববিদ্ রামানুজ । ২০১১ সালে এখানে প্রায় ৫২২ রুপোর খণ্ড পাওয়া গিয়েছিল যার মূল্য ছিল প্রায় ৯০ কোটি টাকা ।

puri img 2

Loading...

একের পর এক মন্দির ভেঙে গিয়েছে বুলডোজারের আঘাতে ও এর বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন সাধারণ মানুষরা । গবেষকরা এই নির্মাণকাজ বন্ধ করার দাবি জানিয়েছেন ইতিমধ্যেই। ওড়িশার ইতিহাসকে ক্ষতবিক্ষত করা হচ্ছে । 'ঐতিহ্য ধ্বংস করে পুরীকে কোনওভাবেই ঐতিহ্য শহর বানিয়ে তোলা সম্ভব নয় । মন্দির ও মঠগুলি এখানকার শতাব্দীপ্রাচীন ইতিহাসের চিহ্ন বহন করে; সেগুলিকে ধ্বংস করা ইতিহাসকে ধ্বংস করার সমান', জানিয়েছেন জগন্নাথ সংস্কৃতি ও ইতিহাসের গবেষক ডঃ প্রফুল্ল রথ । 'রাস্তা চওড়া করার নাম করে ঐতিহ্যবাহী মন্দিরগুলিকে ধ্বংস করা অনুচিৎ', মন্তব্য আরও এক গবেষক সুরেন্দ্র মিশ্রর।

puri img 4

'নিজেদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য নিয়ে প্রত্যেকটি ওড়িশাবাসী অত্যন্ত গর্বিত ও সরকার যা করছে তা সম্পূর্ণ ভুল', মত বাসিন্দাদের ।

প্রতিবাদের সুর ক্রমশ চড়লেও বিষয়টি নিয়ে এখনও প্রতিক্রিয়া জানায়নি রাজ্য সরকার । গোবর্ধন পীঠের শঙ্করাচার্য, স্বামী শ্রী নিশ্চলানন্দ সরস্বতী এমনকী গজপতি দিব্যসিংহ দেবও এই বিষয়টি নিয়ে এখনও পর্যন্ত সরব হননি ।

Report: Anand ST Das

First published: 04:02:35 PM Aug 31, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर