corona virus btn
corona virus btn
Loading

রাজনৈতিক মহলে সেভাবে জনপ্রিয় নন, তবু কোবিন্দকেই কেন রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হিসেবে বাছল NDA?

রাজনৈতিক মহলে সেভাবে জনপ্রিয় নন, তবু কোবিন্দকেই কেন রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হিসেবে বাছল NDA?

রাজনৈতিক মহলে সেভাবে জনপ্রিয় নন, তবু কোবিন্দকেই কেন রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হিসেবে বাছল NDA?

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে এনডিএ-র পদপ্রার্থী হিসেবে বিহারের রাজ্যপাল রামনাথ কোবিন্দের নাম ঘোষণা করলেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। কে এই রামনাথ কোবিন্দ?

৭১ বছর বয়সী রামনাথ কোবিন্দ উনিশশো পয়তাল্লিশের পয়লা অক্টোবর উত্তরপ্রদেশের কানপুরের পারাউনখ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। কানপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিকম এবং এলএলবি করার পর আইনজীবীর পেশাকে বেছে নেন তিনি। এরপর IAS পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে দিল্লি চলে যান। পরপর তৃতীয়বারের চেষ্টায আইএএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন তিনি। কিন্তু পাশ করার পরও আইনের পেশাকেই বেছে নেন রামনাথ কোবিন্দ। ১৯৭১ সালে দিল্লি বার কাউন্সিলে আইনজীবী হিসেবে তাঁর নাম নথিভুক্ত হয়।

১৯৭৭ সালে দিল্লি হাইকোর্টে সরকারি আইনজীবী হিসেবে তাঁকে নিযুক্ত করে কেন্দ্রীয় সরকার। টানা তিন বছর এই পদে কাজ করার পর ১৯৮০ সালে কেন্দ্রীয় সরকারের আইনি পরামর্শদাতা করা হয় কোবিন্দকে। এই পদে টানা ১৩ বছর ছিলেন তিনি।

১৯৭৭ সালেই সক্রিয় রাজনীতিতে যোগ দেন রামনাথ কোবিন্দ। তার আগে, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মোরারজি দেশাইয়ের ব্যক্তিগত সচিব ছিলেন তিনি। ১৯৯৪ সালে সংসদীয় রাজনীতিতে প্রবেশ করেন রামনাথ কোবিন্দ।

উত্তরপ্রদেশ থেকে পরপর দু-বার রাজ্যসভার সদস্য হন তিনি। এই সময় তফশিলি জাতি-উপজাতি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক, সামাজিক ন্যায় ও ক্ষমতায়ন, পেট্রোলিয়াম ও ন্যাচারাল গ্যাস এবং আইন এ বিচার সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ সংসদীয় কমিটির প্রতিনিধিত্ব করেছেন। এরপর রাজ্যসভা হাউস কমিটির চেয়ারম্যানও হন তিনি।

১৯৯৮ সালে বিজেপি দলিত মোর্চার সভাপতি নির্বাচিত হন রামনাথ কোবিন্দ। ২০০২ সাল পর্যন্ত এই পদে ছিলেন তিনি। সেইসঙ্গে তিনি কোলি সমাজেরও সর্বভারতীয় সভাপতি ছিলেন। কৃষক পরিবারের সন্তান কোবিন্দের দলিত সমাজের প্রতিনিধিত্ব ভোটের বাক্সে বরাবরই ফসল তুলতে সাহায্য করেছে। উত্তরপ্রদেশে কোবিন্দই ছিলেন মায়াবতীর বিরুদ্ধে বিজেপি-র অন্যতম তাস।

দলিত ভোট ব্যাঙ্কের রাজনীতির অঙ্ককে মাথায় রেখেই .. সালে কোবিন্দকে বিহারের রাজ্যপাল করে বিজেপি। তা নিয়ে জলঘোলাও কম হয়নি। তাঁকে না জানিয়ে কেন রাজ্যপালের নাম ঠিক করা হল তা নিয়ে আপত্তি জানান নীতীশ কুমার। ভুল উচ্চারণ করায় ২০১৫ সালে মন্ত্রী হিসেবে লালু প্রসাদ যাদবের বড় ছেলে তেজপ্রতাপ যাদবকে দু-বার শপথবাক্য পাঠ করিয়েছিলেন রামনাথ কোবিন্দ।

এমন এক বর্ণময় ব্যক্তিত্বই দেশের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে এনডিএ-র প্রার্থী। আগামী ২৩ জুন রামনাথ কোবিন্দ তাঁর মনোনয়ন পেশ করবেন।

First published: June 20, 2017, 12:59 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर