‘দেশে বিপন্ন গণতন্ত্র, ধুঁকছে অর্থনীতি’, এমন অবস্থায় দলকে একজোট হয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ার নির্দেশ সোনিয়ার

নির্দেশ এল, মাঠে নেমে আন্দোলনে ফিরতে হবে। অর্থনীতি, গণতন্ত্র নিয়ে সরব হতে হবে। আর্থিক সংকট নিয়ে মাঠে নামানো হল প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংকে।

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 13, 2019 12:03 AM IST
‘দেশে বিপন্ন গণতন্ত্র, ধুঁকছে অর্থনীতি’, এমন অবস্থায় দলকে একজোট হয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ার নির্দেশ সোনিয়ার
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 13, 2019 12:03 AM IST

#নয়াদিল্লি: সভানেত্রী পদে ফেরার পর সোনিয়া গান্ধির প্রথম গুগলি। তাও একেবারে উঁচু থেকে নীচু স্তরের কর্মীদের। নির্দেশ এল, মাঠে নেমে আন্দোলনে ফিরতে হবে। অর্থনীতি, গণতন্ত্র নিয়ে সরব হতে হবে। আর্থিক সংকট নিয়ে মাঠে নামানো হল প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংকে।

আন্দোলনে ফিরুক কংগ্রেস। সোশ্যাল মিডিয়ায় নয়, মাঠে নেমে, ঘরে ঘরে পৌঁছে জনসংযোগ। ঠিক যেভাবে বারবার বিপর্যয় কাটিয়ে উঠেছে ১৩৬ বছরের পুরনো দলটি। দলের সাংগঠনিক বৈঠকে নির্দেশ সোনিয়া গান্ধির।

লোকসভা ভোটে বিপর্যয়ের পর কংগ্রেস নেতাদের কাজিয়া প্রকাশ্যে। তবে আন্দোলনের নামগন্ধও নেই। বৃহস্পতিবার সেটাই বদলানোর কথা বলেছেন কংগ্রেস সভানেত্রী। তিনি বলেন, ‘দেশের গণতন্ত্র বিপন্ন। জনতার রায়কে অপব্যবহার করা হচ্ছে। এনিয়ে এখনই সরব হওয়া প্রয়োজন ৷’

অর্থনৈতিক সংকট নিয়ে কংগ্রেসের চাপ বাড়ানোর কৌশল স্পষ্ট হয়েছে রাহুলের টুইটে। ওয়াইনাডের সাংসদ লেখেন, ‘ভুয়ো প্রচার নয়, বানানো তত্ত্ব ও বোকা বোকা অজুহাতেও কিছু হবে না। অর্থনীতির হাল ফেরাতে প্রয়োজন পরিকল্পনা ৷’

আর্থিক বিপর্য়ের কতটা? সেটা বোঝাতেই মাঠে নামানো হয় মনমোহন সিংকে ৷ তাঁর কথায়, 'ভারত যে অর্থনৈতিক সমস্যার সম্মুখীন হয়েছে, এটা তো অগ্রাহ্য করতে পারি না আমরা৷ ইতিমধ্যেই অনেকখানি সময় নষ্ট হয়ে গিয়েছে৷ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে নোটবন্দির মতো ভুল না-করে, আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যত্‍ নিয়ে ভাববার সময় এসেছে কেন্দ্রের৷ তার জন্য দরকার গঠনমূলক সংস্কার ও সেই সেক্টরগুলিকে চাঙ্গা করা, যেখানে চাকরির সংস্থান হবে যুব সম্প্রদায়ের৷'

Loading...

আর্থিক সংকট কাটানোর পরামর্শ নিতে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর বাড়ি গিয়েছেন নরেন্দ্র মোদি। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল এই মিম। তবে এনডিএ-র সবচেয়ে পুরনো শরিক শিবসেনাই চাইছে, অর্থনীতি নিয়ে মনমোহনের পরামর্শ নিন মোদি।

First published: 12:03:04 AM Sep 13, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर