নাগরিকত্ব আইনে স্থগিতাদেশ নয়, তবে আবেদন নিয়ে কেন্দ্রকে নোটিস সুপ্রিম কোর্টের

নাগরিকত্ব আইনে স্থগিতাদেশ নয়, তবে আবেদন নিয়ে কেন্দ্রকে নোটিস সুপ্রিম কোর্টের
সুপ্রিম কোর্ট

এ দিন শীর্ষ আদালত কেন্দ্রকে একটি নোটিস পাঠিয়েছে৷ আইন নিয়ে কেন্দ্রের কাছে জবাব তলব করেছে সুপ্রিম কোর্ট৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন কার্যকরের ক্ষেত্রে আপাতত কোনও স্থগিতাদেশ দিল না সুপ্রিম কোর্ট৷ নয়া নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতায় মোট ৫৯টি মামলা দায়ের করা হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে৷ সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিয়েছে, সব কটি আবেদনের শুনানি হবে ২২ জানুয়ারি৷

এ দিন শীর্ষ আদালত কেন্দ্রকে একটি নোটিস পাঠিয়েছে৷ আইন নিয়ে কেন্দ্রের কাছে জবাব তলব করেছে সুপ্রিম কোর্ট৷ অন্যদিকে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতা আজও অব্যাহত দেশজুড়ে৷ এই আইনের বিরোধিতায় শীর্ষ আদালতে মামলা করেন কংগ্রেস নেতা জয়রাম রমেশ, ত্রিপুরার প্রাক্তন মহারাজা কিশোর দেব বর্মন৷ নাগরিকত্ব আইনের সাংবিধানিক বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন তাঁরা৷ প্রধান বিচারপতি এস এ বোবদের নেতৃত্বে বেঞ্চ এই আবেদনের শুনানির দিন ১৮ ডিসেম্বর ধার্য করেছিল৷ এ দিন আদালত জানিয়ে দেয়, মোট ৫৯টি আবেদনই ২২ জানুয়ারি শোনা হবে৷

নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতায় মঙ্গলবার উত্তাল হয় দিল্লি৷ পুলিশকে লক্ষ করে পাথর, ইট ছোড়েন বিক্ষোভকারীরা৷ দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল এ দিন News18-কে বলেন, 'যাঁরা অন্য দেশ থেকে ভারতে এসেছেন, তাঁদের আমাদের সরকার নথি দেবে৷ কিন্তু ভারতের যারা নাগরিক, যাদের কাছে কাগজপত্র নেই, তাদের দেশ থেকে তাড়িয়ে দেবে? এটা কী রকম আইন? এই আইনের প্রয়োজনই নেই৷ দেশে আরও অনেক ইস্যু রয়েছে, চিন্তাভাবনা করার৷'

আজও দিল্লির জামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে চলছে বিক্ষোভ৷ স্লোগান উঠছে, 'হিন্দু-মুসলিম একতা জিন্দাবাদ৷' উত্তর-পূর্ব দিল্লিতে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে৷ জামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পুলিশের মারধর নিয়েও মামলা করা হয় দিল্লি হাইকোর্টে৷ সেই মামলা শুনতে রাজি হয়েছে দিল্লি হাইকোর্ট৷ কাল অর্থাত্‍ বৃহস্পতিবার মামলার শুনানি৷ দিল্লি পুলিশের এফআইআর-এ এক ছাত্রের নাম রয়েছে৷

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে বলা হয়েছে, সেই সব হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পারসি ও খ্রিস্টানদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে, যাঁরা ধর্মীয় নিপীড়নের জেরে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে পালিয়ে ভারতে এসে আশ্রয় নেন৷ ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইনে ভারতের নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য ১২ মাস টানা ভারতে থাকতে হত৷ একই সঙ্গে গত ১৪ বছরের মধ্যে ১১ বছর ভারতবাস জরুরি ছিল। সংশোধনী বিলে দ্বিতীয় নিয়মে পরিবর্তন ঘটানো হচ্ছে। ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্থান থেকে আনা নির্দিষ্ট ৬টি ধর্মাবলম্বীদের জন্য ১১ বছর সময়কালটিকে নামিয়ে আনা হচ্ছে ৬ বছরে। বেআইনি অভিবাসীরা ভারতের নাগরিক হতে পারে না। এই আইনের আওতায়, যদি পাসপোর্ট বা ভিসা ছাড়া কেউ দেশে প্রবেশ করে থাকেন, বৈধ নথি নিয়ে প্রবেশ করার পর নির্দিষ্ট সময়কালের বেশি এ দেশে বাস করে থাকেন, তা হলে তিনি বিদেশি অবৈধ অভিবাসী বলে গণ্য হবেন।

First published: December 18, 2019, 12:13 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर