'মুসলিম দেশ একাধিক, হিন্দুদের জন্য কোনও দেশ নেই, হিন্দুরা কোথায় যাবে?' CAA স্বপক্ষে সওয়াল গড়করির

'মুসলিম দেশ একাধিক, হিন্দুদের জন্য কোনও দেশ নেই, হিন্দুরা কোথায় যাবে?' CAA স্বপক্ষে সওয়াল গড়করির
কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নীতিন গড়করি

গড়করি বললেন, 'আমরা আমাদের দেশের মুসলিম নাগরিকদের বিরুদ্ধে নই৷ কিছু রাজনৈতিক দল সংখ্যালঘুদের মধ্যে ভয়ের সঞ্চার করছে৷ আমি নিশ্চিত করে বলছি, আমাদের সরকার রাজনৈতিক বিভাজনের বিরোধী৷'

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে যখন দেশজুড়ে প্রতিবাদের ঝড়, তখন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নীতিন গড়করি হিন্দু রাষ্ট্রের পক্ষে সওয়াল করলেন৷ তাঁর দাবি, এই আইন জরুরি৷ কারণ, হিন্দুদের জন্য বিশ্বে কোনও দেশ নেই৷ মুসলিম দেশ তো অনেক আছে৷

কেন কেন্দ্র সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন আনল, তা বুধবার News18 India Chaupal-এ জানালেন নীতিন গড়করি৷ তাঁর কথায়, 'হিন্দুদের জন্য বিশ্বে কোনও দেশ নেই৷ কিছু রাজনৈতিক দল সংখ্যালঘুদের মধ্যে ভয়ের সৃষ্টি করছে৷ আগে নেপাল ছিল একমাত্র হিন্দু রাষ্ট্র৷ কিন্তু বর্তমানে হিন্দুদের জন্য একটিও দেশ নেই৷ হিন্দু, শিখরা তা হলে কোথায় যাবে? মুসলিমদের জন্য একাধিক দেশ রয়েছে, যেখানে মুসলিমরা অনায়াসেই নাগরিকত্ব পেতে পারেন৷ বিরোধীরা মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে৷'

গড়করি বললেন, 'আমরা আমাদের দেশের মুসলিম নাগরিকদের বিরুদ্ধে নই৷ কিছু রাজনৈতিক দল সংখ্যালঘুদের মধ্যে ভয়ের সঞ্চার করছে৷ আমি নিশ্চিত করে বলছি, আমাদের সরকার রাজনৈতিক বিভাজনের বিরোধী৷'

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে বলা হয়েছে, সেই সব হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পারসি ও খ্রিস্টানদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে, যাঁরা ধর্মীয় নিপীড়নের জেরে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে পালিয়ে ভারতে এসে আশ্রয় নেন৷ ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইনে ভারতের নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য ১২ মাস টানা ভারতে থাকতে হত৷ একই সঙ্গে গত ১৪ বছরের মধ্যে ১১ বছর ভারতবাস জরুরি ছিল। সংশোধনী বিলে দ্বিতীয় নিয়মে পরিবর্তন ঘটানো হচ্ছে। ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্থান থেকে আনা নির্দিষ্ট ৬টি ধর্মাবলম্বীদের জন্য ১১ বছর সময়কালটিকে নামিয়ে আনা হচ্ছে ৬ বছরে। বেআইনি অভিবাসীরা ভারতের নাগরিক হতে পারে না। এই আইনের আওতায়, যদি পাসপোর্ট বা ভিসা ছাড়া কেউ দেশে প্রবেশ করে থাকেন, বৈধ নথি নিয়ে প্রবেশ করার পর নির্দিষ্ট সময়কালের বেশি এ দেশে বাস করে থাকেন, তা হলে তিনি বিদেশি অবৈধ অভিবাসী বলে গণ্য হবেন।

আজ সুপ্রিম কোর্ট সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন কার্যকরের ক্ষেত্রে কোনও স্থগিতাদেশ দেয়নি সুপ্রিম কোর্ট৷ নয়া নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতায় মোট ৫৯টি মামলা দায়ের করা হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে৷ সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিয়েছে, সব কটি আবেদনের শুনানি হবে ২২ জানুয়ারি৷

First published: December 18, 2019, 3:06 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर