জাতীয় পর্যটন দিবস ২০২১: পর্যটনের সঙ্গে যুক্ত এই তথ্যগুলো চমকে দেবে !

জাতীয় পর্যটন দিবস ২০২১: পর্যটনের সঙ্গে যুক্ত এই তথ্যগুলো চমকে দেবে !
পর্যটন সম্পর্কে কয়েকটি বিস্ময়কর তথ্য যা চমকে দেবে

পর্যটন সম্পর্কে কয়েকটি বিস্ময়কর তথ্য যা চমকে দেবে

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: পর্যটন যে মানুষের আত্মিক বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, সে অতি পুরনো প্রবাদ। তার চেয়েও বড় এবং পুরনো সত্যি হল এই যে পর্যটন কোনও এক দেশের অর্থনৈতিক বিকাশেও জোরদার এক ভূমিকা পালন করে থাকে। সেই জন্য একে রাখা হয়েছে শিল্পের পর্যায়ে। ভারত সরকার এই লক্ষ্যে জানুয়ারি মাসের ২৫ তারিখটিকে জাতীয় পর্যটন দিবস হিসেবে ঘোষণা করেছে।

অর্থনীতির বিকাশে কী ভাবে সাহায্য করে পর্যটন?

বিভেদের মধ্যে ঐক্য ভারতের মূল সুর। সে যেমন ভূপ্রকৃতিতে, তেমনই দেশের সংস্কৃতিতেও। ফলে দেশের নানা জায়গার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের টানে, নানা সংস্কৃতির হস্তশিল্পের টানে প্রতি বছর বিদেশি পর্যটকরা এই দেশে আসেন। তাঁদের সঙ্গে আসে বিদেশি মুদ্রা। সরাসরি এই বিদেশি মুদ্রা এবং কিছু পরিমাণ পর্যটন শুল্ক সরকারের রাজস্বকোষটিকে ভরাট করে। যা পর্যটনের উন্নয়নে ব্যবহার করে দেশের উন্নতির সহায়ক হয়।


২০২০ সাল থেকে সারা বিশ্বের মতো এই দেশের পর্যটন শিল্পও এক বড়সড় ধাক্কা খেয়েছে। বিদেশি পর্যটকরা যেমন আসেননি, তেমনই দেশের অনেক পর্যটনকেন্দ্রেও এখনও তেমন ভিড় জমেনি। তবে অবস্থার নেতিবাচকতা ধীরে ধীরে হলেও আবার আগের ইতিবাচকতায় ফিরছে বলে জানা গিয়েছে।

বিশ্ব পর্যটন দিবস

২৫ জানুয়ারি আমাদের দেশের পর্যটন দিবস। ঠিক একই ভাবে একটি বিশ্ব পর্যটন দিবসও ঘোষিত হয়েছে। এটি উদযাপন করা হয় ২৭ সেপ্টেম্বরে। লক্ষ্য একই- পর্যটন সচেতনতার প্রসারের মাধ্যমে অর্থনীতিকে মজবুত করে তোলা!

পর্যটন সম্পর্কে কয়েকটি বিস্ময়কর তথ্য যা চমকে দেবে:

১. পর্যটন একটি উন্নয়নশীল শিল্প, বিশ্ব অর্থনীতিতে এর সর্বশেষ অবদান ৭.৬ ট্রিলিয়ন ইউএস ডলার।

২. বিশ্বে প্রতি ১০ চাকরির মধ্যে একটি পর্যটন-সংক্রান্ত। এই হিসেব মোতাবেকে পর্যটনক্ষেত্রে চাকরির সারা বিশ্বে অনুপাত ৯৯ শতাংশ।

৩. বিশ্বের প্রথম সারির পর্যটনকেন্দ্রের তালিকায় রয়েছে যথাক্রমে ফ্রান্স, ইউএসএ, স্পেন, চিন আর ইতালি।

৪. সারা বিশ্বের নিরিখে পর্যটকরা সব চেয়ে বেশি টাকা উড়িয়ে থাকেন দুবাইতে।

৫. সারা বিশ্বের নিরিখে জাপানের ওসাকা সব চেয়ে দ্রুত বর্ধমান পর্যটনকেন্দ্রের তালিকায় রয়েছে।

Published by:Ananya Chakraborty
First published: